শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করবে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ

রুশ সেনাবাহিনী দক্ষিণে ক্রিমিয়ার খেরসন ওব্লাস্টে চলে গেছে ইউক্রেনের ২টি সু-২৫ বিমান ধ্বংস : আটটি ইউক্রেনীয় ড্রোন ভূপাতিত : দেপ্রোপেট্রোভস্ক অঞ্চলে ৮০ জনের বেশি ভাড়াটে নিহত : ১৫০ স

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

ব্রিটিশ গোয়েন্দা কর্মকর্তারা গতকাল বলেছেন, রাশিয়া এবং ইউক্রেনে যুদ্ধ ‘এক নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করতে চলেছে’। ইউকে ডিফেন্স ইন্টেলিজেন্স একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলেছে, রুশ বাহিনী দক্ষিণ ইউক্রেনে ‘অবশ্যই জড়ো হচ্ছে’ এবং কৌশলগত লড়াই এখন পূর্ব ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চল থেকে দক্ষিণে মাইকোলাইভ ওব্লাস্ট, খেরসন এবং ক্রিমিয়ান উপদ্বীপের মধ্যবর্তী অঞ্চলে স্থানান্তরিত হবে।

যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘ইউক্রেনের সাথে রাশিয়ার যুদ্ধ একটি নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করতে চলেছে, সবচেয়ে ভারী লড়াইটি প্রায় ৩৫০ কিলোমিটার ফ্রন্ট লাইনে স্থানান্তরিত হচ্ছে যা দক্ষিণ-পশ্চিমে জাপোরিঝিয়া থেকে খেরসন পর্যন্ত, ডিনিপার নদীর সমান্তরালে প্রসারিত হয়েছে’। গোয়েন্দা প্রতিবেদনে যোগ করা হয়েছে, ‘ইউক্রেনের পাল্টা আক্রমণের প্রত্যাশায় বা সম্ভাব্য হামলার প্রস্তুতিতে রাশিয়ান বাহিনী প্রায় নিশ্চিতভাবেই দক্ষিণে ভিড় করছে’।

যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় দক্ষিণাঞ্চলে রাশিয়ান সেনা, ট্যাঙ্ক এবং সহায়তা যানবাহনের একটি বড় চলাচলের বিস্তারিতও জানিয়েছে।

গোয়েন্দা আপডেটে বলা হয়েছে, ‘রাশিয়ান সামরিক ট্রাক, ট্যাঙ্ক, টোয়েড আর্টিলারি এবং অন্যান্য অস্ত্রের দীর্ঘ কনভয় ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চল থেকে দূরে সরে যাচ্ছে এবং দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে যাচ্ছে। সরঞ্জামগুলো রাশিয়া-অধিকৃত মেলিটোপোল, বার্দিয়ানস্ক, মারিউপোল এবং মূল ভূখণ্ড থেকে রাশিয়ার মাধ্যমে সরে যাচ্ছে বলেও জানা গেছে’।

‘ব্যাটালিয়ন কৌশলগত গোষ্ঠী (বিটিজি), যারা ৮০০ থেকে ১,০০০ সৈন্যের মধ্যে সমঝোতা করে, ক্রিমিয়াতে মোতায়েন করা হয়েছে এবং প্রায় নিশ্চিতভাবে খেরসন অঞ্চলে রাশিয়ান সৈন্যদের সমর্থন করার জন্য ব্যবহার করা হবে’, প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, অন্য একটি বিটিজি সম্ভবত ‘অনাগত দিনে’ এই বাহিনীতে যোগ দেবে।

ইউক্রেনের ২টি সু-২৫ বিমান ধ্বংস : গতকাল এক ব্রিফিংয়ে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ বলেছেন, রাশিয়ার মহাকাশ বাহিনী গত ২৪ ঘণ্টায় দুটি ইউক্রেনীয় সু-২৫ বিমান ধ্বংস করেছে। তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘রাশিয়ান মহাকাশ বাহিনী গত ২৪ ঘণ্টায় ইউক্রেনীয় বিমান বাহিনীর দুটি সু-২৫ বিমান ধ্বংস করেছে। কিরোভোগ্রাদ অঞ্চলের সলন্তসেভো বসতির কাছে একটি বায়বীয় লড়াইয়ে অপারেশনাল এবং কৌশলগত বিমান দ্বারা একটি বিমান ধ্বংস করা হয়েছে। আরেকটি সু-২৫ খেরসন অঞ্চলের রাদগোস্পনয়ে বসতির কাছে বিমান প্রতিরক্ষা দ্বারা বিমানটি ভূপাতিত করা হয়েছিল’।

কোনাশেনকভ উল্লেখ করেছেন, ‘রাশিয়ান বিমান প্রতিরক্ষা গত দিনে খারকভ অঞ্চলের ডিব্রোভনয়ে, সুলিগোভকা, ডলগেনকোয়ে, প্রশিব, বাইরাক এবং ভোলোখভ ইয়ার জনবসতির কাছে এবং জাপোরোজিয়ে অঞ্চলের পোলোগি বসতির কাছে আটটি মনুষ্যবিহীন আকাশযানকে ভূপাতিত করেছে’। তার মতে, একাধিক রকেট লঞ্চার থেকে ছোড়া ২৬টি রকেট কাখোভকা হাইড্রোইলেকট্রিক স্টেশন, আন্তোনোভস্কি ব্রিজ, চেরনোবায়েভকা, ব্রিলিওভকা, নোভায়া কাখোভকা, আলেশকোভস্কি পেস্কি এবং খেরসন অঞ্চলের স্যুরুপিনস্কের পাশাপাশি সুখায়া কামেনকা ও বারোয়ারি সেটেলমেন্টের কাছে আটকানো হয়েছিল। আটটি ইউক্রেনীয় ড্রোন ভূপাতিত : ইগর কোনাশেনকভ ব্রিফিংয়ে আরো বলেছেন, রাশিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী গত ২৪ ঘণ্টায় আটটি ইউক্রেনীয় ড্রোন ভূপাতিত করেছে এবং ২৬টি রকেট নিক্ষেপ করেছে।

তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘রাশিয়ান বিমান প্রতিরক্ষা খারকভ অঞ্চলের ডিব্রোভনয়ে, সুলিগোভকা, ডলগেনকোয়ে, প্রশিব, বাইরাক এবং ভোলোখভ ইয়ার বসতি এবং জাপোরোজিয়ে অঞ্চলের পোলোগি বসতির কাছে আটটি মনুষ্যবিহীন আকাশযানকে ধ্বংস করেছে’। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতে, রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে মোট ২৬৩টি বিমান, ১৪৫টি হেলিকপ্টার, ১,৬৯৩টি ড্রোন, ৩৬১টি অ্যান্টি-এয়ারক্রাফ্ট সিস্টেম, ৪,২৫৯টি ট্যাঙ্ক এবং অন্যান্য সাঁজোয়া যুদ্ধের যান, ৭৮৯টি একাধিক রকেট লঞ্চার, ৩,২৭০টি ফিল্ড আর্টিলারি টুকরো, ৯টি বিশেষ মর্টার এবং ৭৩টি মর্টার, সামরিক মোটর গাড়ি ধ্বংস করা হয়েছে।
দেপ্রোপেট্রোভস্ক অঞ্চলে ৮০ জনের বেশি ভাড়াটে নিহত : ইগর কোনাশেনকভ ব্রিফিংয়ে আরো জানিয়েছেন, রাশিয়ান এরোস্পেস ফোর্স দ্যনেপ্রপেট্রোভস্ক অঞ্চলে ইউক্রেনের বিদেশী সৈন্যবাহিনীর একটি ঘাঁটিতে হামলায় ৮০জনেরও বেশি ভাড়াটে সৈন্যকে ধ্বংস করেছে। তিনি উল্লেখ করেছেন, ‘ডিনেপ্রপেট্রোভস্ক অঞ্চলে বিদেশী সৈন্যবাহিনীর ঘাঁটিতে রাশিয়ান অ্যারোস্পেস ফোর্সের উচ্চ-নির্ভুল হামলায় ৮০ জনেরও বেশি বিদেশী ভাড়াটে নিহত এবং ১১টি বিশেষ সরঞ্জাম ধ্বংস করা হয়েছিল’।

জাপোরোজিয়ের কাছে ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর জ্বালানী ডিপো ধ্বংস : রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযানে ৫০ হাজার টন ডিজেল জ্বালানি সমন্বিত একটি ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর জ্বালানি ডিপো ধ্বংস করা হয়েছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ গতকাল এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর জ্বালানি ডিপোতে ৫০ হাজার টন ডিজেল জ্বালানি যা ডেনপার অপারেশনাল টাস্ক ফোর্সের জন্য ছিল জাপোরোজিয়ে শহরের কাছে ধ্বংস হয়ে গেছে’। তার মতে, বিমান হামলা এবং আর্টিলারি আক্রমণগুলি ডোনেটস্ক পিপলস রিপাবলিকের দ্রুজকোভকা বসতির কাছে ইউক্রেনের দশম মাউন্টেন অ্যাসল্ট ব্রিগেডের কমান্ড পোস্ট, সেইসাথে ১৩৫টি এলাকায় সৈন্য ও সামরিক সরঞ্জামকে টার্গেট করে। দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিকের ট্রুডোভয়ে এবং সোলেদারের কাছে দুটি অস্ত্র ও গোলাবারুদ ডিপো ধ্বংস করা হয়েছিল।

১৫০ সৈন্য, দুটি মার্কিন এম৭৭৭ হাউইটজার নিশ্চিহ্ন : প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ শুক্রবার জানান, ইউক্রেনে তাদের বিশেষ অভিযানে জাপোরোজিয়ে অঞ্চলে প্রায় ১৫০ ইউক্রেনীয় জঙ্গি, দুটি মার্কিন এম৭৭৭ হাউইৎজার এবং ১,৫০০ গোলাবারুদ রাউন্ড নির্মূল করতে রাশিয়ান বাহিনী নির্ভুল-নির্দেশিত অস্ত্রে হামলা চালিয়েছে।

‘রাশিয়ান মহাকাশ বাহিনী ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর ৪৪তম আর্টিলারি ব্রিগেডের দুটি হাউইটজার আর্টিলারি ব্যাটালিয়নের অস্থায়ী স্থাপনার এবং নোভোইভানোভ্যাপোরোর রেজিওভানভোকাতে বন্দোবস্তের এলাকায় ক্ষেপণাস্ত্র/আর্টিলারি অস্ত্রের ডিপোর অস্থায়ী স্থাপনার বিরুদ্ধে বায়ুচালিত নির্ভুল ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা হামলা চালিয়েছে’ বলেছেন মুখপাত্র। স্ট্রাইক আমেরিকান এম৭৭৭ হাউইটজার এবং গ্র্যাড মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেমের শেল নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে, জেনারেল বলেছেন। ‘হামলায় ১৫০ জন সেনা নিহত, দুটি আমেরিকান এম৭৭৭ হাউইটজার এবং তাদের জন্য প্রায় ১,৫০০ গোলাবারুদ রাউন্ড, ছয়টি এমস্টা-বি হাউইটজার, বিভিন্ন পরিবর্তনের আটটি আর্টিলারি বন্দুক, প্রায় ৩৫০টি গ্র্যাড রকেট এবং সাতটি মনুষ্যবিহীন বিমান যান ধ্বংস হয়ে গেছে’।

খাদ্য সঙ্কটের দায়ভার রাশিয়ার কাছে হস্তান্তরের চেষ্টা অযৌক্তিক : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আনাতোলি আন্তোনোভ বিশ্বব্যাপী খাদ্য সঙ্কটের দায়ভার রাশিয়ার কাছে সরিয়ে নেওয়ার ওয়াশিংটনের প্রচেষ্টাকে অযৌক্তিক বলে নিন্দা করেছেন। শুক্রবার মার্কিন রাষ্ট্রদূত সামান্থা পাওয়ারের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার প্রধানের সাম্প্রতিক বক্তব্যের বিষয়ে মন্তব্য করতে চাইলে রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘রাশিয়ার কাছে সমস্ত দায়ভার স্থানান্তরিত করার প্রচেষ্টা অযৌক্তিক। বরাবরের মতো এখানে অনেক মিথ্যা। বিবৃতিগুলি অব্যবসায়ী, পরিস্থিতির সঠিক বিশ্লেষণ এবং বোঝা ছাড়াই, অথবা বরং সমস্যার সারাংশ বোঝার ইচ্ছার অনুপস্থিতি’।

রাশিয়ান রাষ্ট্রদূত বলেন, মহামারির পরিণতি, সরবরাহ শৃঙ্খলে ব্যাঘাত, মুদ্রাস্ফীতি, ত্বরান্বিত নগরায়ণ, জমে থাকা মাটির ক্লান্তি, আবহাওয়া পরিবর্তন এবং অন্যান্য কারণে কৃষি পণ্যের ঘাটতি হয়েছে।
তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে রাশিয়ান দূতাবাস আন্তোনভকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে,‘এ সারিতে একটি পৃথক স্থান অবৈধ রুশ-বিরোধী নিষেধাজ্ঞার ‘অ্যারে’ নেয়। বিদেশী কোম্পানিগুলোকে বিভ্রান্ত ও ভয় দেখানোর জন্য এবং যতটা সম্ভব রাশিয়ান উদ্যোগের সাথে তাদের সহযোগিতাকে জটিল করার জন্য বিধিনিষেধগুলো ডিজাইন করা হয়েছে’।

তা সত্ত্বেও, আন্তোনভ বলেছেন, রাশিয়া খাদ্য নিরাপত্তা জোরদার করার প্রচেষ্টায় অধ্যবসায় রয়েছে। ২০০৩ সাল থেকে রাশিয়া জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির তহবিলে অবদান রাখছে। তিনি বলেন, দেশটি বিশ্ব কৃষি বাজারে পণ্যের একটি নির্ভরযোগ্য ও দায়িত্বশীল সরবরাহকারী হিসেবে কাজ করে এবং রাশিয়া সক্রিয়ভাবে বিদেশী সহকর্মীদের সাথে কাজ করছে, আন্তোনভ যোগ করেছেন। তিনি রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সাম্প্রতিক আফ্রিকা সফরের দিকে ইঙ্গিত করেছেন, যেমন মিসর, কঙ্গো প্রজাতন্ত্র, উগান্ডা এবং ইথিওপিয়া। ল্যাভরভের সফরের সময়, রাশিয়ার অংশীদাররা মিটিংগুলোর সমৃদ্ধ, পারস্পরিকভাবে উপকারী এবং ফলপ্রসূ প্রকৃতি নিশ্চিত করেছে, আন্তোনভ বলেছেন।

‘ওয়াশিংটন, মনে হচ্ছে, ২২ জুলাই ইউক্রেনের বন্দর থেকে শস্য এবং খাদ্য নিরাপদ পরিবহনের বিষয়ে চতুর্ভুজ উদ্যোগের অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে তার অনুপস্থিতির সাথে মানিয়ে নিতে পারেনি। এটি উল্লেখযোগ্য যে, আমেরিকান কর্মকর্তারা সাধারণত এ বিষয়ে কথা বলতে পছন্দ করেন না। রাশিয়ান কৃষি পণ্যের রপ্তানি প্রচারের জন্য একই দিনে রাশিয়া এবং জাতিসংঘের মধ্যে একটি স্মারক স্বাক্ষর’ আন্তোনভ মন্তব্য করেছেন।

রাশিয়াকে উপেক্ষা করে ইউক্রেনের যুদ্ধ শেষ করা যাবে না : তুরস্কের প্রেসিডেন্টের একজন শীর্ষ সহযোগী শুক্রবার বলেছেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় মস্কোকে উপেক্ষা করে ইউক্রেনের যুদ্ধ শেষ করতে পারে না, কারণ তাইয়্যেব এরদোগান তার প্রতিপক্ষ ভøাদিমির পুতিনের সাথে দেখা করতে রাশিয়ায় গিয়েছিলেন। তেহরানে তারা আলোচনা করার তিন সপ্তাহেরও কম সময় পরে এ বৈঠক হয়, যখন তুরস্ক রাশিয়ার আগ্রাসনের দ্বারা অবরুদ্ধ ইউক্রেনের কৃষ্ণ সাগরের শস্য রফতানি পুনরায় শুরু করার জন্য একটি চুক্তিতে সাহায্য করে।

অন্যান্য দেশের ভূমিকার সমালোচনা করে তুরস্কের প্রেসিডেন্টের যোগাযোগ পরিচালক ফাহরেটিন আলতুন বলেছেন, চুক্তিটি ন্যাটো সদস্য তুরস্কের প্রচেষ্টা এবং দুই নেতার মধ্যে সরাসরি কূটনীতির সাফল্যের প্রমাণ দেয়। ‘সত্য হল যে, আমাদের কিছু বন্ধু যুদ্ধ শেষ করতে চায় না। তারা কুমিরের চোখের পানি ফেলছে’ আলতুন রয়টার্সকে বলেছেন, কেউ কেউ কে নির্দিষ্ট না করে সক্রিয়ভাবে তুরস্কের প্রচেষ্টাকে দুর্বল করার চেষ্টা করছে।
তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রাশিয়াকে উপেক্ষা করে ইউক্রেনের যুদ্ধ শেষ করতে পারবে না। কূটনীতি ও শান্তি অবশ্যই জয় করতে হবে’।

উত্তর কোরিয়া ক্রেমলিনকে ১ লাখ স্বেচ্ছাসেবক’ দিচ্ছে : রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টিভি দাবি করেছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের প্রচেষ্টাকে শক্তিশালী করতে উত্তর কোরিয়া এক লাখ সেনা পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে। প্যারিয়া রাষ্ট্রের সামরিক সহায়তার প্রস্তাব তাৎক্ষণিকভাবে যাচাই করা যায়নি, তবে রাশিয়ান প্রতিরক্ষা পন্ডিত ইগর কোরোচেঙ্কো এটি দখল করেন।

‘এমন খবর রয়েছে যে, ১ লাখ উত্তর কোরিয়ার স্বেচ্ছাসেবক এসে সংঘর্ষে অংশ নেওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে’ করোটচেঙ্কো রাশিয়ান চ্যানেল ওয়ানে বলেছেন।
কোরোটচেঙ্কো বিশেষভাবে আগ্রহী ছিলেন যাকে তিনি উত্তর কোরিয়ার ‘পাল্টা ব্যাটারি যুদ্ধের অভিজ্ঞতার সম্পদ’ বলে অভিহিত করেন - জুন মাসে মার্কিন-নির্মিত হিমারস রকেট সিস্টেম অর্জনের পর থেকে ইউক্রেনের দূরপাল্লার আর্টিলারি সাফল্যের প্রতিবেদন দেওয়া একটি বলার মতো মন্তব্য।
‘যদি উত্তর কোরিয়া ইউক্রেনীয় ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য তার আন্তর্জাতিক দায়িত্ব পালনের ইচ্ছা প্রকাশ করে, তাহলে আমাদের উচিত তাদের অনুমতি দেওয়া’ কোরোটচেঙ্কো বলেছেন।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ইউক্রেন প্রধানের পদত্যাগ : উত্তর কোরিয়া ক্রেমলিনকে ১ লাখ স্বেচ্ছাসেবক’ দিচ্ছে : অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ইউক্রেন শাখার প্রধান মানবাধিকার সংস্থা কিয়েভকে বেসামরিক নাগরিকদের বিপন্ন করার জন্য এবং তার যুদ্ধকালীন কৌশলগুলোর সাথে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের জন্য দায়ী করার পরে পদত্যাগ করেছেন। ওয়াচডগ গ্রুপ বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীকে আন্তর্জাতিক মানবিক আইন লঙ্ঘন করার এবং স্কুল, হাসপাতাল এবং অন্যান্য জনবহুল আবাসিক এলাকায় ঘাঁটি স্থাপন এবং অস্ত্র ব্যবস্থা পরিচালনা করার কৌশলসহ বেসামরিক নাগরিকদের বিপন্ন করার অভিযোগ এনে একটি প্রতিবেদন জারি করেছে।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইউক্রেনের প্রধান ওকসানা পোকালচুক শুক্রবার গভীর রাতে একটি ফেসবুক পোস্টে বলেছেন যে, প্রতিবেদনটি ‘রুশ প্রচারের একটি হাতিয়ার হয়ে উঠেছে’। পোকালচুক বলেছেন, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের নেতৃত্বের সাথে মূল্যবোধ নিয়ে মতানৈক্যের কারণে তিনি চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সূত্র : ফক্স নিউজ, পলিটিকো, তাস, আল-জাজিরা, নিউইয়র্ক পোস্ট, ইউএসনিউজ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
সব মুসলিম রাষ্ট্রের উচিত সরাসরি রাশিয়ার সঙ্গে থাকা।
Total Reply(0)
Juwel Ahmmad ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৪১ এএম says : 0
ইচ্ছেকৃত বিশ্বকে অর্থনৈতিক পঙ্গু করার যুদ্ধ!!! অনেকে এই যুদ্ধকে রাশিয়া -ইউক্রেন যুদ্ধ হিসেবে দেখে কিন্তু আমি দেখি ৩য় বিশ্ব যুদ্ধ হিসেবে যা অর্থনৈতিক যুদ্ধ।।।।
Total Reply(0)
Moniruzzaman Sikder ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৪১ এএম says : 0
রাশিয়ার ভুল ছিলো ৭ দিনের মধ্যে যুদ্ধ শেষ না করা , প্রথমেই জেলেনস্কিকে উড়িয়ে দিলে যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হতো না ।
Total Reply(0)
Moniruzzaman Sikder ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৪১ এএম says : 0
রাশিয়ার ভুল ছিলো ৭ দিনের মধ্যে যুদ্ধ শেষ না করা , প্রথমেই জেলেনস্কিকে উড়িয়ে দিলে যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হতো না ।
Total Reply(0)
Mozlish Amin Babu ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৪২ এএম says : 0
রাশিয়ার উচিৎ হবে ইউক্রেনে হামলা অারো জোরদার করা
Total Reply(0)
Tansen Zulfiquar ৭ আগস্ট, ২০২২, ৮:৪২ এএম says : 0
এই যুদ্ধ এখন আর কারোর নিয়ন্ত্রনে নাই,কেউ ইচ্ছা করলেেই এই যুদ্ধ থামাতে পারবে না।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন