বৃহস্পতিবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৩ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বিশ্ব প্রতিনিধিদের আরো সচেতন হতে হবে

ভবিষ্যৎ মহামারি মোকাবিলা প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ভবিষ্যতে যেকোনো মহামারি মোকাবিলায় বিশ্ব প্রতিনিধিদের সচেতনতা আরও বাড়াতে হবে। ভবিষ্যৎ মহামারিগুলো মোকাবিলায় বিশ্বের শক্তিধর দেশগুলোকে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে। একইসঙ্গে সব দেশকে স্বাস্থ্য গবেষণায় জোরালো গুরুত্ব দিতে হবে।

গতকাল ভুটানের পারো শহরে শুরু হওয়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) অধীনে পরিচালিত সাউথ-ইস্ট এশিয়ান রিজিওনাল অর্গানাইজেশনের (এসইএআরও) পাঁচদিনের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রথম দিনের কার্যক্রমে যোগ দিয়ে এসব কথা বলেন তিনি। সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী কোভিড মোকাবিলায় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নেয়া পদক্ষেপগুলো তুলে ধরেন। এছাড়া, কোভিড মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফলপ্রসূ দিক-নির্দেশনা ও সার্বিক পরামর্শের কথাও উল্লেখ করেন জাহিদ মালেক

প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মেলনের প্রথম দিনের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং। জানা গেছে, পাঁচদিনের আঞ্চলিক সভায় সদস্য দেশগুলোর উল্লেখযোগ্য সাফল্যের কৌশল কীভাবে অন্যদেশে কার্যকরভাবে ব্যবহার করা যায় সে বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এদিকে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও ভারতের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ড. ভারতী প্রভীন পাওয়ারের একটি সৌজন্য দ্বিপাক্ষিক বৈঠক গতকাল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভুটানের পারো শহরের হোটেল লা মেরিডিয়ানে বৈঠকে উভয় দেশের স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে করনীয় সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে আলাপ-আলোচনা হয়। একই সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতা ও যৌথভাবে কাজ করার জন্য মত বিনিময় হয়। এছাড়া জিরো ম্যালেরিয়া ডিক্লারেশনের এর জন্য ক্রস বর্ডার কো-অপারেশন নিয়েও আলোচনা হয়।

বৈঠকে করনাকালীন বিভিন্ন প্রয়োজনে বাংলাদেশের প্রতি সহযোগিতায় এগিয়ে আসার জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ভারত সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এসময় তিনি বাংলাদেশের নিজস্ব কারখানায় ভ্যাক্সিন, ওষুধ উৎপাদনসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে ভারত সরকারের বিশেষ সহযোগিতার কথা তুলে ধরলে ভারতীয় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীকে সেক্ষেত্রে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দেন। করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে উল্লেখ করে এসময় ভারতীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা করেন।

গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া পাঁচদিন ব্যাপি এই সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহযোগিতায় এসইএআরওভুক্ত ১০টি দেশের ভবিষ্যত মহামারি মোকাবিলা প্রস্তুতি, করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা, সর্বজনীন স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা, অসংক্রামক ব্যাধি মোকাবিলাসহ সার্বিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে একযোগে কাজ করার কৌশল নির্ধারণ করবে। এতে অবশ্য আটটি দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রীরা অংশ নিয়েছেন। বাংলাদেশের পক্ষে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে ছয় সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নিয়েছে। প্রতিনিধিদলের সদস্যলা হলেন- স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেছা বেগম, উপ-সচিব খন্দকার জাকির হোসেন, উপ-সচিব মোহাম্মদ শাহাদত খন্দকার, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মেখলা সরকার, স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. আরাফাতুর রহমান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন