মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ২৬ চৈত্র ১৪৩০, ২৯ রমজান ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

যুদ্ধের বদলে কূটনৈতিক আলোচনা! তাইওয়ান নিয়ে নতুন কৌশলের পথে চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ মার্চ, ২০২৩, ৮:৪২ পিএম

যুদ্ধ নয়, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের মাধ্যমেই তাইওয়ান পুনরুদ্ধার করবে চীন। আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই আবার এক হয়ে যাবে দুই ভূখণ্ড, তার জন্য যুদ্ধের প্রয়োজন নেই। তবে তাইওয়ান যে স্বাধীন ভূখণ্ড নয়, এ অবস্থানে অনড় থাকতে হবে- এমনই বার্তা দিলেন চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সর্বময় কর্তা লি কেকিয়াং। প্রসঙ্গত, কয়েকদিন পরেই রাজনীতি থেকে অবসর নিতে চলেছেন কেকিয়াং। তার পদে বসতে চলেছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

চীনা পার্লামেন্টের বার্ষিক সম্মেলনে বক্তৃতা দিতে গিয়ে তাইওয়ান প্রসঙ্গ তোলেন কেকিয়াং। তার মতে, ‘তাইওয়ান নিয়ে আমাদের দলের যা অবস্থান, সরকারকেও সেই অবস্থান নিতে হবে। চীনের অবিচ্ছেদ্য অংশ তাইওয়ান, এই তত্ত্বে অনড় থাকতে হবে বেইজিংকে। তবে যুদ্ধ নয়, শান্তিপূর্ণ আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই দুই ভূখণ্ড আবার এক হয়ে যাবে। কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমেই এই সমস্যা মেটাতে চাই আমরা।’

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরেই তাইওয়ানকে নিজেদের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসাবে দাবি করে আসছে চীন। পররাষ্ট্রনীতি নির্ধারণ থেকে শুরু করে একাধিক বিষয় নিয়েই তাইওয়ানের উপর চাপ সৃষ্টি করে থাকে বেইজিং। যদিও সেই বাধা উড়িয়ে একাধিক দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখেছে তাইওয়ান। চীনের অধীনে থাকবে না তাদের ভূখণ্ড, এমনটাই বলেছেন প্রেসিডেন্ট সাই ইং অয়েন।

তবে গত তিন বছরে তাইওয়ান সংলগ্ন এলাকায় সামরিক তৎপরতা বাড়িয়েছে চীন। ২০২২ সালে মার্কিন স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরের পরেই দুই দেশের মধ্যে তিক্ততা চরমে ওঠে। সমুদ্রপথে পরিবহন কার্যত বন্ধ করে তাইওয়ান সীমান্তের আশেপাশে সামরিক মহড়া শুরু করে চীন। বেশ কয়েকদিন ধরে চলে সেই মহড়া। তবে কমিউনিস্ট পার্টির প্রধানের মন্তব্যে শুরু হল নতুন জল্পনা। এবার কি আক্রমণের পরিবর্তে কূটনৈতিকভাবে তাইওয়ান দখলের পরিকল্পনা চীনের? সূত্র: টাইমস নাউ।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন