ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

ক্লাব ক্রিকেটে করের আওতায় ক্রিকেটাররা

প্রকাশের সময় : ১০ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) এ ক্রিকেটাররা করের আওতায় থাকলেও ক্লাব ক্রিকেটে করের আওতায় এতোদিন ছিলেন না ক্রিকেটাররা। ক্লাব ক্রিকেটে ক্রিকেটারদের প্রকৃত আয়ও ছিল অপ্রকাশিত। বার বার তাগাদা দিয়েও ক্লাবসমুহ এবং ক্রিকেটারদের অপরাগতায় জাতীয় রাজস্ব রোর্ড ক্লাব ক্রিকেটের খেলোয়াড়দের কর আদায় করতে পারেনি এতোদিন। এমনকি ২০১২-১৩ মওশুমে প্লেয়ার্স ড্রাফটে বিক্রি হওয়া ক্রিকেটারদের আয়ের পরিমাণ প্রকাশিত হওয়ার পরও কর আদায় করতে পারেনি জাতীয় রাজস্ব বিভাগ। তবে এবার কঠোর হয়েছে বিসিবি এবং সিসিডিএম। আসন্ন প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে সকল ক্রিকেটারকে দিতে হবে কর, এ শর্ত জুড়ে দিয়েছে বিসিবি। প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে ক্রিকেটারদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তির জন্য চুক্তিপত্রও তৈরি করেছে সিসিডিএম। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য দিয়েছেন বিসিবি’র সহ-সভাপতি মাহাবুব আনামÑ‘ এবার প্রথম বারের মতো আমরা খেলোয়াড়দের কন্ট্রাক করছি বিসিবি তরফ থেকে। যাতে করে খেলোয়াড় এবং ক্লাবগুলোর উভয়ের স্বার্থরক্ষিত হয়। আমরা আইসিসির একটি পূর্ণসদস্যভূক্ত দেশ। আমরা পেশাদারিত্বে বিশ্বাস করি। এজন্য এবার থেকে আমাদের প্রত্যেক খেলোয়াড়ের চুক্তি বাধ্যতামূলক। সেক্ষেত্রে দেশের প্রচলিত যা আইন আছে সেগুলো মেনেই আমরা খেলোয়াড়দের কন্ট্রাকগুলো করবো।’
আগামী ২২ এপ্রিল থেকে অনুষ্ঠেয় প্রিমিয়র ডিভিশন ক্রিকেট লীগ উপলক্ষ্যে আজ হোটেল লা মেরিডিয়ানে প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠান হবে। মোট ১৮৮ জন ক্রিকেটারকে ৯টি ক্যাটাগরিতে রাখা হয়েছে। যার মধ্যে আইকন ক্যাটাগরিতে আছেন ৭ জন, ‘এ’ প্লাস গ্রেডে ৬ জন, ‘এ’ গ্রেডে ৪ জন, ‘বি’ প্লাস গ্রেডে ২৯ জন, ‘বি’ গ্রেডে ৩৪ জন, ‘সি’ গ্রেডে ৫৬ জন, ‘ডি’ গ্রেডে ২১ জন, ‘ই’ গ্রেডে ২৩ জন, এবং ‘এফ গ্রেডে ৮ জন। সর্বোচ্চ ৩০ লাখ টাকা সম্মানী ধার্য করা হয়েছে আইকন গ্রেডের ক্রিকেটারদের জন্য। ‘এ’ প্লাস গ্রেডের ক্রিকেটাররা সেখানে পাবেন ২৫ লাখ টাকা, ‘এ’ গ্রেডের জন্য ২০ লাখ টাকা, ‘বি’ প্লাস গেডে ১৫ লাখ টাকা, ‘বি’ গ্রেডে ১২ লাখ টাকা, ‘সি’ গ্রেডে ৮ লাখ টাকা, ‘ডি’ গ্রেডে ৫ লাখ টাকা, ‘ই’ গ্রেডে সাড়ে ৩ লাখ টাকা এবং এফ গ্রেডের (পেসার হান্টের আবিস্কার) জন্য ১ লাখ টাকা। লটারিতে ভাগ্য নির্ধারিত হবে এই সব গ্রেডের ক্রিকেটারদের। আইকন এবং ‘প্লাস’ গ্রেড বাদ দিয়ে ২ জন করে অপরিহার্য ক্রিকেটারদের ইতোমধ্যে নিয়ে ফেলেছে প্রিমিয়ার ডিভিশনের ১১টি ক্লাব। এই সব ক্রিকেটারদের প্লেয়ার্স ড্রাফটের বাইরে রাখা হয়েছে। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন প্রাইম ব্যাংক রেখে দিয়েছে সোহান এবং শুভাগতহোমকে, রানার্স আপ প্রাইম দোলেশ্বর রনি তালুকদার ও সানজামুলকে, আবাহনী লিটন দাস ও মোসাদ্দেক সৈকতকে, মোহামেডান নাইম ইসলাম ও আরিফুল হককে, কলাবাগান একাডেমি মেহেদী হাসান মিরাজ ও মাহামুদুল হাসানকে, ভিক্টোরিয়া নাতিফ চৌধুরী ও সোহরাওয়ার্দি শুভকে, লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ জহুরুল ইসলাম অমি ও মোশাররফ হোসেন রুবেলকে, শেখ জামাল সোহাগ গাজী ও আরাফাত সানিকে, কলাবাগান ক্রীড়াচক্র আবদুর রাজ্জাক ও তাসামুলকে, ব্রাদার্স ইউনিয়ন আসিফ হাসান ও ইফতেখার রনিকে রেখে দিয়েছে দলে। প্রিমিয়ার ডিভিশনের নবাগত সিসিএস’র ভাগ্যটা একটু ভাল। তারা অপরিহার্য তালিকার ২ ক্রিকেটার সাইফ হাসান ও সফিউদ্দিনের সঙ্গে বাইন্ডিংস ক্রিকেটার পিনাক ঘোষকে নিশ্চিত করেছে। তবে প্রিমিয়ার ডিভিশনের আর এক নবাগত গাজী গ্রæপ আজ প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠানে ২ ক্রিকেটারকে নিবে বেছে।
প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠানের শেষটা আকর্ষণীয় পর্ব। যে পর্বে ৭ আইকন এবং ৬ ‘এ’ প্লাস গ্রেডের ক্রিকেটারের ভাগ্য হবে নির্ধারিত। আইকন গ্রেডে মাশরাফি, মুশফিকুর, মাহামুদুল্লাহ, সাকিব, ইমরুল, তামীম, সাব্বির রহমান রুম্মান এবং ‘এ’ প্লাস গ্রেডে সৌম্য, মুস্তাফিজুর, মুমিনুল, মিঠুন, নাসির, এনামুল বিজয়ের ভাগ্য নির্ভর করছে শ্বাসরুদ্ধকর লটারিতে। আইকন ৭ ক্রিকেটারের মধ্যে মাশরাফি, মাহামুদুল্লাহ এবং সাব্বিরের চাহিদা এবার বেশি বলে ক্লাবসমুহের সাথে কথা বলে জানা গেছে।
প্লেয়ার্স ড্রাফটের শুরুটা হবে গাজী ট্যাংকের ২টি কোটা পূরনের মধ্য দিয়ে। এরপর ‘এ’ থেকে ‘ই’ গ্রেডের ১৩ রাউন্ড থেকে পছন্দের ক্রিকেটার নিতে পারবে দলগুলো। ক্লাবগুলোর কলিংটাও লটারির মাধ্যমেই হবে। প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠানে কমপক্ষে দশ জন খেলোয়াড় দলে নিতে হবে এক একটি ক্লাববে। অবিক্রিত খেলোয়াড়রা ফ্রি খেলোয়াড় হিসেবে গণ্য হবে। ক্লাবগুলোর সঙ্গে পরবর্তীতে আলাপ আলোচনা করে তাদেরকে অর্ন্তভুক্ত করতে পারবে। সেক্ষেত্রে তারা নির্ধারিত বেজ প্রাইস পাবেন বলে নিশ্চয়তা দিয়েছেন প্লেয়ার্স ড্রাফট কমিশনার ও বিসিবি’র সহ-সভাপতি মাহাবুব আনাম। তিন ধাপে ক্রিকেটাররা পাবেন সম্মানী। প্রথম ধাপে মোট সম্মানীর ৩০ শতাংশ চুক্তিপত্রে স্বাক্ষরের পর পাবেন, প্রথম রাউন্ড শেষ হওয়ার পর পাবেন ৩০ শতাংশ, অবশিষ্ট ৪০ শতাংশ সুপার লীগ সম্পন্ন হওয়ার ৬ সপ্তাহের মধ্যে ক্রিকেটারদের বুঝিয়ে দিতে হবে।
ক্রিকেটারদের সম্মানী আদায়ে ক্লাবসমুহের কাছ থেকে মোট প্লেয়ার্স বাজেটের ৫০ শতাংশ ব্যাংক গ্যারান্টি বিসিবিকে জমা দিতে হবে। বিপিএল’র মতো প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগেও ক্রিকেটারদের ব্যাংক গ্যারান্টার বিসিবি। গতকাল প্লেয়ার্স ড্রাফট কমিশনার মাহাবুব আনাম এ বিষয়টি পরিস্কার করেছেনÑ ‘খেলোয়াড়দের স্বার্থ রক্ষার জন্য প্রত্যেকটি ক্লাব বিসিবিকে সংরক্ষিত একটি চেক দিতে হবে। যাতে করে প্রেমেন্টগুলো নিশ্চিত হয়। কারণ এখানে বিসিবির দায় দায়িত্ব রয়েছে খেলোয়াড়দের প্রতি। বিসিবি যেহেতু একটা চেক নিচ্ছে তাই সেক্ষেত্রে বিসিবি অবশ্যই দায় দায়িত্ব নিচ্ছে।’
এদিকে কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির মালিকানা নিয়ে ঝামেলা ছিল। এফিডেভিটের মাধ্যমে দলটির মালিকানা পরিবর্তন হলেও আগের ক্লাব কর্ত্তৃপক্ষের দাবিকৃত সব অর্থ পরিশোধ করেননি নুতন মালিকপক্ষ। সে অভিযোগে দলটির প্লেয়ার্স ড্রাফটে অংশগ্রহণ করা নিয়েই ছিল শংকা। গতকাল বিকেলে সমঝোতার মাধ্যমে পূর্ববর্তী মালিক পক্ষকে দাবিকৃত ২৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা পরিশোধে সম্মত হওয়ায় আজ প্লেয়ার্স ড্রাফটে অংশ নিতে পারছে এই ক্লাবটি।
আইপিএলে খেলতে সাকিব, মুস্তাফিজুর ভারতে অবস্থান করায় তাদেরকে বাদ দিয়েই প্লেয়ার্স ড্রাফট তৈরি করেছিল নির্বাচকরা। তবে আইপিএল শেষ হওয়ার পর প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের সুপার লীগে তাদের খেলার সম্ভাবনা থাকছে বলে তাদেরকে প্লেয়ার্স ড্রাফটে যুক্ত করেছে বিসিবি। সে ক্ষেত্রে যে ক্লাব এই দুই ক্রিকেটারকে নিবে, গ্রেড অনুযায়ী পুরো সম্মানী নয়, বরং ম্যাচ প্রতি সম্মানী পাবেন তারাÑএমনটা নিশ্চিত করেছে সিসিডিএম।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন