ঢাকা সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৪ মাঘ ১৪২৭, ০৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

শিঘ্রই হচ্ছে না ট্রাম্প-পুতিন বৈঠক

ক্রিমিয়া নিয়ে পম্পেওর বক্তব্য প্রত্যাখ্যান রাশিয়ার

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২৭ জুলাই, ২০১৮, ১২:০২ এএম

 রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের সঙ্গে শিগগিরি বৈঠকে বসছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিছুদিন আগে ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকিতে পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি শিগগিরি আবারো রুশ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বুধবার বলেন, আগামী বছরের আগে ট্রাম্প ও পুতিনের মধ্যে নতুন কোনো বৈঠকে হবে না। তিনি বলেন, মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগের বিষয়ে যে তদন্ত চলছে তাতে দেরি হওয়ার কারণে ট্রাম্প ও পুতিনের পরবর্তী বৈঠক পিছিয়ে যাচ্ছে। তবে হেলসিংকি বৈঠকের পর ট্রাম্পের ওপর যে রাজনৈতিক চাপ সৃষ্টি হয়েছে দৃশ্যত সে কারণেই এ বৈঠকে পেছানো হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। বোল্টন বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প চাইছেন রুশ বিরোধী অভিযোগের নিষ্পত্তি হওয়ার পর একটা সুন্দর পরিবেশে পরবর্তী বৈঠকে বসতে। সে ক্ষেত্রে নতুন বছরের প্রথম দিকে ওই বৈঠক হতে পারে। তদন্তের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কলঙ্কমুক্ত হবেন বলে বোল্টন আশা করেন। তবে তদন্তে নিযুক্ত বিশেষ কৌঁসুলি রবার্ট মুলার বলেছেন, কবে নাগাদ এ তদন্ত শেষ হবে তার ঠিক নেই। অপর এক খবরে বলা হয়, ক্রিমিয়া উপদ্বীপ নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও’র বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছে রাশিয়া। রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া যাখারোভা বলেছেন, মার্কিন সরকার ক্রিমিয়ার ওপর রাশিয়ার সার্বভৌম ক্ষমতা মেনে নেবে না বলে পম্পেও যে বক্তব্য দিয়েছেন তা মস্কোর কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। মাইক পম্পেও বুধবার এক বক্তব্যে বলেছিলেন, ক্রিমিয়া উপদ্বীপের ওপর রাশিয়ার সার্বভৌম ক্ষমতা মেনে নেয়া থেকে বিরত থাকবে ওয়াশিংটন। সেইসঙ্গে তিনি এই উপদ্বীপের ওপর তার ভাষায় দখলদারিত্বের অবসান ঘটাতে রাশিয়ার প্রতি আহŸান জানান। ২০১৪ সালের ১৭ মার্চ ইউক্রেনের তৎকালীন প্রজাতন্ত্র ক্রিমিয়ায় অনুষ্ঠিত এক গণভোটে সেখানকার ৯৬.৮ শতাংশ জনগণ রাশিয়ায় যোগ দেয়ার পক্ষে রায় দেন। ওই রায়ের জের ধরে ক্রিমিয়া প্রজাতন্ত্রকে রুশ ফেডারেশনে অন্তর্ভুক্ত করে নেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। ওই ঘটনার পর আমেরিকা ও তার পশ্চিমা মিত্ররা রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে এবং রাশিয়ার সীমান্তের কাছে সামরিক তৎপরতা জোরদার করে। পার্সটুডে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন