রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ মুহাররম ১৪৪৪

ব্যবসা বাণিজ্য

আরও ১৫ লাখ স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করবে বিআরটিএ

প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : অবৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রতিরোধে দ্বিতীয় দফায় আরও ১৫ লাখ ডিজিটাল স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান করবে ‘বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি’ (বিআরটিএ)। এ লাইসেন্সের সঠিকতা সহজে ও দ্রুত যাচাই করা সম্ভব। তবে আগের তুলনায় প্রতিটি লাইসেন্স তৈরিতে ব্যয় বাড়ছে ভ্যাট-আইটিসহ ১৭২ টাকা।
গতকাল বুধবার সচিবালয়ে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। শিল্পমন্ত্রী আমির হেসেন আমু বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।
বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, বৈঠকে ৫টি ক্রয় প্রস্তাব এবং দুটি ভেরিয়েশন প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তিনি জানান, বিআরটিএ’র জন্য পার্সোনালাইজড ডুয়াল ইন্টারফেস পলিকার্বনেট ড্রাইভিং লাইসেন্স (ডিজিটাল স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স) ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। পাঁচ বছর মেয়াদে ১৫ লাখ ডিজিটাল স্মার্ট কার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স সরবরাহ করবে দেশীয় প্রতিষ্ঠান ‘টাইগার আইটি বাংলাদেশ লিমিটেড’। এতে মোট ব্যয় হবে ৭৪ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।
অতিরিক্ত সচিব জানান, রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ‘ব্লক-বি’ (মংলা-ঘষিয়াখালি চ্যানেল) অংশের ৯১৮ দশমিক ৫ একর ভূমি উন্নয়নের একটি দরপত্র অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে এ কাজটি পেয়েছে সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেড’ (বিডিপিএল)। ড্রেজিংকৃত মাটি/বালি দ্বারা এ ভূমি উন্নয়নে ট্যাক্স-ভ্যাটসহ মোট ব্যয় হবে ৩৩৭ কোটি ২৭ লাখ টাকা।
অতিরিক্ত সচিব জানান, ‘ঢাকার মিরপুরে পাইকপাড়ায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের জন্য ৬০৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৩ নম্বর ভবন (১ হাজার বর্গফুট আয়তনের চার ইউনিট বিশিষ্ট একটি ২০ তলা টুইন বিল্ডিং) নির্মাণের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে মোট ফ্ল্যাট থাকবে ১৫২টি। ৮১ কোটি ৯৪ লাখ টাকা ব্যয়ে এটি নির্মাণের কাজটি পেয়েছে ‘ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড’।
তিনি জানান, ‘কর্ণফুলি ওয়াটার সাপ্লাই ফেজ-২’ প্রকল্পের জাইকা অংশের ট্রান্সমিশন ও কনভয়েন্স পাইপ লাইন নির্মাণ (প্যাকেজ নং কেডব্লিউএসপি-২/ ডব্লিউ-২) কাজের ঠিকাদার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। যৌথভাবে এ কাজটি পেয়েছে জাপানি প্রতিষ্ঠান ‘কোবোটা কনস্ট্রাকশনস লিমিটেড’ ও ‘কোলন গ্লোবাল কনস্ট্রাকশনস লিমিটেড’। এতে ব্যয় হবে ৯৫১ কোটি ৩১ লাখ টাকা।
অতিরিক্ত সচিব জানান, এছাড়া ‘ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই অ্যান্ড স্যানিটেশন প্রকল্পে’র আওতায় বাস্তবায়নাধীন ‘কমলাপুর স্টর্ম ওয়াটার পাম্পিং স্টেশন’ এবং ‘রামপুরা স্টর্ম ওয়াটার পাম্পিং স্টেশন’ দুটির নির্মাণ কাজের পৃথক দুটি ভেরিয়েশন প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কমলাপুর স্টর্ম ওয়াটার পাম্পিং স্টেশনের নির্মাণ ব্যয় ১৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০৪ কোটি ১২ লাখ টাকা এবং রামপুরা স্টর্ম ওয়াটার পাম্পিং স্টেশনের নির্মাণ ব্যয় ১৭ কোটি ২৭ লাখ টাকা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩৩ কোটি ৭১ লাখ টাকা।
অতিরিক্ত সচিব জানান, এর আগে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে ২টি প্রস্তাব নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তিনি জানান, ওই বৈঠকে নদী ড্রেজিং-এর জন্য ড্রেজার ও ড্রেজিং সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি ক্রয়ে উন্মুক্ত ক্রয় পদ্ধতির পরিবর্তে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে ক্রয় করার জন্য দুটি প্রস্তাব উপস্থাপন করেছিল পানি উন্নয়ন বোর্ড। কিন্তু দুটি প্রস্তাবই উন্মুক্ত ক্রয় পদ্ধতিতে তথা দরপত্রের মাধ্যমে ক্রয়ের সুপারিশ করেছে কমিটি।
আইসিএমএবি প্রাক-বাজেট আলোচনা
আইসিটি খাতকে কর মুক্ত ও নারীর ক্ষমতায়নে গুরুত্বারোপ
অর্থনৈতিক রিপোর্টার : তরুণদের পৃষ্ঠপোষকতায় আইসিটি খাতকে করমুক্ত রাখা এবং নারীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। আসন্ন (২০১৬-১৭) অর্থবছরের জাতীয় বাজেটকে সামনে রেখে গতকাল দি ইনস্টিটিউট অব কস্ট এন্ড ম্য্যানেজমেন্ট একাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি) প্রাক-বাজেট আলোচনা সভায় বক্তারা একথা বলেন। ইনস্টিটিউটের রুহুল কুদ্দুস মিলনায়তনে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। বাংলাদেশ সরকারের গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড একচেঞ্জ কমিশনের কমিশনার ও আইসিএমএবি’র কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ডক্টর স্বপন কুমার বালা এফসিএমএ এবং ট্যাকসেস এপিলেট ট্রাইব্যুনাল এর সদস্য রঞ্জন কুমার ভৌমিক এফসিএমএ আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আইসিএমএবি’র প্রেসিডেন্ট আরিফ খান এফসিএমএ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ও সেমিনার এন্ড কনফারেন্স কমিটির চেয়ারম্যান এ এস এম শায়খুল ইসলাম এফসিএমএ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন আইসিএমএবি’র সচিব মো. আবদুর রহমান খান এফসিএমএ।
আইসিএমএবি বাজেট আলোচনায় দেশের দারিদ্র্য নিরসন, সম্ভাবনাময় তরুণদের পৃষ্ঠপোষকতা বিশেষত: আইসিটি খাতকে কর মুক্ত রাখা এবং নারীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের প্রতি গুরুত্ব দেওয়ার জন্য প্রস্তাব করে। এছাড়া সার্বিক উন্নয়নকে বেগবান করতে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বমূলক উন্নয়ন, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ এবং শিল্পায়নের প্রতি গুরুত্বারোপ করে প্রতিষ্ঠানটি। অর্থনীতির সকল নিয়ামক ও উপাদানসমূহকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে ২০২১ এর আগেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে সক্ষম হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে আইসিএমএবি। উক্ত আলোচনায় আইসিএমএবি’র ফেলো ও এসোসিয়েট সদস্যবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন।
সাভারে গ্রাহকদের তিন কোটি টাকা নিয়ে উধাও সূর্য উদয় বহুমুখী সমবায় সমিতি
স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে : সাভারে ঋণ দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে গ্রাহকদের সঞ্চিত প্রায় তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে ‘সুর্য্য উদয় বহুমুখী সমবায় সমিতি’ নামের একটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও)। এতে সমিতির অন্তত ১৫শ’ গ্রাহক নিজেদের কষ্টার্জিত সঞ্চয়ের টাকা হারিয়ে বিপাকে পড়েছেন।
এঘটনায় বিক্ষুব্ধ জনতা উত্তেজিত হয়ে ওই সমিতির অফিসের সামনে অবস্থান নিয়েছে। টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার খবর শুনে কয়েকজন নারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। পরে তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকরা জানায়, সাভার উপজেলার উলাইল বাজার এলাকার স্থানীয় একটি গার্মেন্টসের কর্মকর্তা মনির হোসেন (৪০) উলাইল বাজার এলাকায় গত এক বছর আগে সুর্য্য উদয় বহুমুখী সমবায় সমিতির নামে অফিস ভাড়া নিয়ে সে কাতলাপুর এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকত। তার বাড়ি টাঙ্গাইল জেলায়।
পরে সে গে-া, উলাইল, কর্ণপাড়া, কাতলাপুর এলাকায় সুবিধাবঞ্চিত মানুষকে মোটা অংকের ঋণ দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে সঞ্চয় আমানতের টাকা উত্তোলন করে এনজিও কর্মকর্তারা। এভাবে গত এক বছরে বিভিন্ন এলাকা থেকে টাকা নিয়ে গ্রাহকদের দ্বিগুণ দেবে বলে সমিতির মোটা অংকের অর্থ প্রায় তিন কোটি টাকা জমা হলে প্রতারক চক্রটি মঙ্গলবার রাতের আঁধারে টাকা নিয়ে অফিসে তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যায়।
বুধবার রাতে এবং বৃহস্পতিবার ঋণ নিতে এসে গ্রাহকরা সমিতির অফিসে তালা ঝুলানো দেখে ক্ষুব্ধ হয়ে বিক্ষোভ করে। পরে তারা অফিসের সামনে অবস্থান নেন।
ভুক্তভোগী গ্রাহকরা আরো জানান, সংস্থাটির মহাব্যবস্থাপক মনির হোসেন বিভিন্ন গ্রামের লোকজনের বাড়ি বাড়ি গিয়ে লোকজনকে বলেন, সমিতিতে ১ লাখ টাকা জমা রাখলে এক বছর পরে এক লাখ টাকায় পঞ্চাশ হাজার ও দুই লাখ রাখলে বছরে এক লাখ টাকা লাখ দেয়া হবে। এতে বিশ্বাস করে লোকজন অতি লাভের আশায় জিনিসপত্র বিক্রি করেও সমিতিতে টাকা জমা রাখতে শুরু করেন। পালিয়ে যাওয়ার পর থেকে সমিতির ওই কর্মকর্তা মনির হোসেনের মুঠোফোন বন্ধ রয়েছে।
গ্রাহকদের তিন কোটি টাকা নিয়ে এনজিও কর্মকর্তা পালিয়ে যাওয়ার খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে সাভার মডেল থানা পুলিশ।
এবিষয়ে সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল হাসান মোল্লা বলেন, আমি খবরটি শুনেই পুলিশকে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছি। এঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
জয়পুরহাট চিনিকলে শ্রমিক সমাবেশ
জয়পুরহাট জেলা সংবাদদাতা : সেক্টর কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশন সমন্বয় পরিষদের ডাকে মজুরি কমিশন-২০১৫ বাস্তবায়নসহ ৬ দফা দাবিতে জয়পুরহাট চিনিকলে শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সম্প্রতি জয়পুরহাট চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী  ইউনিয়ন ভবনে চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের উদ্যোগে সর্বনি¤œ বেতন ৮ হাজার ৭শ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার ৫শ টাকা মজুরি নির্ধারণ, কর্মচারীদের পেনশন প্রতিবছর ৩.৯৯ হারে গ্র্যাচুইটি নির্ধারণ, শ্রমিকদের মহার্ঘভাতা মূল বেতনের ৫০% অগ্রীম প্রদান, প্রসূতিকালীন ছুটি ৪ মাস থেকে ৬ মাসে উন্নীতকরণ, মুক্তিযোদ্ধা শ্রমিকদের অবসরের সময়সীমা বৃদ্ধি ও  কর্মচারীদের সমন্বয়সহ ল্যাম্প গ্র্যান্ট প্রদানসহ ৬ দফা দাবিতে এ সমাবেশ হয়।
জয়পুরহাট চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি আফজাল হোসেন তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সেক্টর কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশন সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক খান সিরাজুল ইসলাম। আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কেমিকেল ইন্ডাস্ট্রিজ শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি এম কামাল উদ্দিন, বাংলাদেশ চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি আতিয়ার রহমান, সাধারণ সম্পাদক হামিদুর রহমান, বাংলাদেশ কেমিকেল ইন্ডাস্ট্রিজ শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক শেখ নূরুল হাদী, সেক্টর কর্পোরেশন শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশন সমন্বয় পরিষদের সদস্য ফরিদ উদ্দিন, খোরশেদ আলম, মাসুদুর রহমান, সাইদুর রহমান, জয়পুরহাট চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমসহ বিভিন্ন চিনিকলের নেতৃবৃন্দ।
শ্রমিক সমাবেশে জয়পুরহাট, রংপুর, শ্যামপুরসহ বিভিন্ন চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারীরা অংশ নেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন