ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬, ১৮ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

সারা বাংলার খবর

টাঙ্গাইলে চলন্তবাসে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলায় চার আসামীর যাবতজীবন

টাঙ্গাইল জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ মে, ২০১৯, ২:৩৩ পিএম

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে চলন্তবাসে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলায় চার আসামীর যাবতজীবনের রায় দিয়েছেন আদালত। সেই সাথে প্রত্যেককে একলাখ টাকা করে অর্থদন্ড করা হয়েছে।
টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) বেগম খালেদা ইয়াসমিন আজ বুধবার দুপুরে আসামীদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। এ মামলার চার আসামীর মধ্যে এক আসামী পলাতক রয়েছে।
দন্ডপ্রাপ্তরা হলো, গাড়ি চালক হাবিবুর রহমান (নয়ন) (২৮), হেলাপার মো. খালেক ভুট্টো (২৩) অপর আসামী আশরাফুল (২৬)। এ ঘটনায় পলাতক রয়েছে গাড়ির সুপার ভাইজার রেজাউল করিম জুয়েল (৩৮)।
রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিশেষ পিপি নাসিমুল আক্তার নাসিম। তাকে সহায়তা করেন মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা টাঙ্গাইল জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ।
মামলার বিবরনে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল কালিয়াকৈরের মৌচাকে কর্মরত এক গার্মেন্টস কর্মী টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে ভোর পাঁচটার দিকে ‘বিনিময় পরিবহনের’ একটি বাসে কালিকৈরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। এসময় বাসে যাত্রী না থাকার সুযোগে বাসটি কিছুদূর যাওয়ার পর কন্টাকটার বাসের জানালা দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে গাড়ির চালক হাবিবুর রহমান নয়ন তাঁকে পিঁছনের ছিটে নিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষন করে। পালা ক্রমে বাসের কন্টাকটার ও হেলপার ধর্ষন করে। পরে বাসটি ঢাকা না গিয়ে টাঙ্গাইল ময়মনসিংহ রোডের একটি ফাঁকা জায়গায় ওই গৃহবধুকে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে ওই গৃহবধু মধুপুর সাসস্ট্যান্ড এসে তাঁর স্বামীকে বিষয়টি জানালে স্বামী তাঁকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত বাসের চালক, হেলপার ও সুপার ভাইজারকে ঐদিনই গ্রেপ্তার করে। গৃহবধু স্বামী বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় ৯ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ তদন্ত শেষে চার জনকে আসামী করে চার্জশিস্ট দিয়ে ছয়জনকে অব্যহতি প্রদান করে। গ্রেপ্তারকৃত তিন আসামী আদালতে স্বীকাররোক্তি জবানবন্দী প্রদান করেন। গৃহবধুকে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করা হয়। জবানবন্দীতে গৃহবধু আশরাফুল নামের আরো একজনের নাম উল্লেখ করে। এতে মোট আসামীর সংখ্যা দাড়ায় ১০ জন। এ মামলায় বাদীসহ ৯ জন আদালতে স্বাক্ষী প্রদান করে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
mohammad Sirajullah ২ জুন, ২০১৯, ১২:৪৭ পিএম says : 0
Gang Rape must have death penalty. No ifs and but./
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন