ঢাকা, সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ০৭ আষাঢ় ১৪২৮, ০৯ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

সিসিএস’র আপসেটের শিকার এবার মোহামেডান

প্রকাশের সময় : ৩০ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : ক’দিন আগে ফতুল্লায় পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে থাকা ভিক্টোরিয়াকে মাটিতে নামিয়ে এনেছে সিসিএস। প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের চলমান আসরে ওটাই ছিল সবচেয়ে বড় আপসেট। অবনমনের শংকায় থাকা এই দলটির শিকার এবার হতে হলো লীগ টেবিলের শীর্ষে থাকা মোহামেডান। রিজার্ভ ডে তে গড়ানো ইতোপূর্বের ২টি ম্যাচের দু’টিতেই হেসেছে মোহামেডান। তবে ৯ম রাউন্ডে রিজার্ভ ডে দুঃসংবাদ দিল মোহামেডানকে। ২৫ ওভারে ১৪৯’র টার্গেটে আগের দিন উইকেটহীন ১৪ বলে ১৩ রানে কাজটা এগিয়ে রেখেছিল মোহামেডান। তবে ফতুল্লায় গতকাল ১৩৬ বলে অবশিস্ট ১৩৬ রানের হিসাবটা মেলাতে পারেনি মোহামেডান। ২৪ বল হাতে থাকতেই হেরে গেছে মোহামেডান ৩১ রানে !
দিনের দ্বিতীয় বলে নাসুমকে বাউন্ডারিতে নাইম যে আশা দেখিয়েছিলেন,সে আশায় গুড়ে-বালি দিয়েছেন এই টপ অর্ডার নিজেই। চেঞ্জে বোলিং করতে এসেছেন সিসিএস পেস বোলার সালমান, তাকে মিড উইকেটের উপর দিয়ে খেলতে যেয়ে নাইমের আউটেই শুরু বিপর্যয়। স্কোরশিটে ২০ থেকে ৫৩ উঠতে হারাতে হয়েছে মোহামেডানকে ৫ উইকেট ! মুন্সীগঞ্জের পেস বোলার মেহরাব হোসেন জোসীর প্রথম স্পেলে ( ৪-১-১৩-৪) ছিন্ন ভিন্ন মোহামেডান। দ্বিতীয় বলে মুশফিকুর তার শিকার,তৃতীয় ওভারে ইজাজ,আরিফুলকে শিকার করে ৪র্থ ওভারে ভারতীয় মিথুন মানহাজকে পুরেছেন পকেটে ! সেখান থেকে ধ্বংস্তপে মোহামেডানকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সাহস দিয়েছিলেন নাজমুল মিলন। সাইফকে এক ওভারে ২ ছক্কা এক চারে ১৯ রান যোগ করে নিজেকে নিয়ন্ত্রন করতে পারেননি। সালমানের দ্বিতীয় স্পেলে মিড অফের উপর দিয়ে ছক্কা মারতে যেয়ে নিজের এবং দলের বিপর্যয় ডেকে এনেছেন এই লোয়ার অর্ডার ( ২৫ বলে ২ ছক্কা ১ চার এ ৩২)। এই পেস বোলারের দ্বিতীয় স্পেলে ( ১-০-৫-২) মোহামেডানের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দিয়েছে সিসিএস। ২৪ বল হাতে রেখে মোহামেডান হেরে গেছে ৩১ রানে।
এই ম্যাচ হেরেও নবম রাউন্ড শেষে পয়েন্ট তালিকায় প্রাইম দোলেশ্বরের সঙ্গে যৌথভাবে পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে আছে মোহামেডান। সেখানে জায়ান্ট কিলার হিসেবে চলমান মওশুমে আবির্ভূত সিসিএস ৯ম ম্যাচে এসে পেলো ২য় জয়ের দেখা।
পঁচা শামুকে মোহামেডানের পা কাটলেও প্রাইম ব্যাংককে হতে হয়নি আপসেটের শিকার। ২১ ওভারে ৯০ রানের টার্গেট পেরুতে রুদ্ধশ্বাস জয়ের অপেক্ষা করেনি ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। মাত্র ৬৩ বলেই লক্ষ্যে পৌছে গেছে দলটি। তা সম্ভব হয়েছে মিডল অর্ডার সাব্বির রহমান রুম্মান ( ২৯ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় ৪০) এবং সোহানের ১৭ বলে ১৫ রানের হার না মানা ইনিংসে। কলাবাগান একাডেমীর পেস বোলার হালিমকে বাউন্ডারিতে উইনিং শট নিয়ে প্রাইম ব্যাংকের সুপার লীগের পথটা প্রশস্ত করে দিয়েছেন রুম্মান। ৯ম ম্যাচে এসে ৫ম জয়ের দেখা পেলো দলটি ( ১০ পয়েন্ট)। অন্যদিকে এই ম্যাচ হেরে পয়েন্ট তালিকায় তলানীতে থেকে গেল কলাবাগান একাডেমী ( ৯ ম্যচে ২ পয়েন্ট)।

মোহামেডানÑসিসিএস ( ২৫ ওভারে নির্ধারিত ম্যাচ)
সিসিএস ঃ ১৪৯/১০ ( ২৪.৫ ওভারে), রাজিন ১০,সাইফ ১৩,সালমান ৫৮,অমিত মজুমদার ২৪,উত্তম সরকার ২৩*,শুভাশিষ ১/২২,হাবিবুর ২/২৩,নাইম জুনি.১/২৮,এনামুল জুনি.১/৩২,আরিফুল ৩/২৯।
মোহামেডান ঃ ১১৭/১০,২১.০ ওভারে ( আগের দিন ১৩/০ ২.২ ওভারে,ইজাজ ১২ব্যাটিং,নাইম ১ব্যাটিং),ইজাজ ৩৫,নাইম ৫,মুশফিকুর ৪,মানহাজ ২,আরিফুল ০,ডিকেন্স ৬,নাজমুল মিলন ৩২,হাবিবুর ২০,নাইম জুনি.৮,এনামুল জুনি.৪,শুভাশিষ ০*,শাওন ১/২৬,সালমান ৩/২৭,মেহরাব ৪/১৪,সাইফ ১/২৮।
ফল ঃ ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথডে সিসিএস ৩১ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ ঃ মেহরাব ( সিসিএস)।
প্রাইম ব্যাংকÑকলাবাগান একাডেমী
কলাবাগান একাডেমী ঃ ৮৯/১০ ( ২১.০ ওভারে), ইরফান শুকুর ১২,মেহেদী মিরাজ ১৯,তাপস ঘোষ ১২, আজিম ৩/২৩,মুনীর ৩/১২,সিহান জয়সুরিয়া ১/১২।
প্রাইম ব্যাংক ঃ ৯২/২ ( ১০.৩ ওভারে), মেহেদী মারুফ ৫,শেহনাজ ২২,সাব্বির রুম্মান ৪০*,সোহান ১৫*, রাহি ১/২২,মেহেদী মিরাজ ১/১২।
ফল ঃ প্রাইম ব্যাংক ৮ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ ঃ মুনীর হোসেন ( প্রাইম ব্যাংক)।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন