ঢাকা, বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৯ আষাঢ় ১৪২৮, ১১ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

তামীমের সেঞ্চুরিতে সুপার লিগে আবাহনী

প্রকাশের সময় : ৭ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : ১০ম রাউন্ডে এসে সুপার লীগ নিশ্চিত করেছে প্রাইম দোলেশ্বর, ভিক্টোরিয়া এবং রূপগঞ্জ। চতুর্থ দল হিসেবে গতকাল সুপার লীগের টিকিট পেলো আবাহনী। প্রথম ৭ রাউন্ডের মধ্যে ৪টিতে হেরে কি অসহনীয় পরিস্থিতিতেই না পড়েছিল আবাহনী। এই দূর্বিষহ পরিস্থিতি কাটাতে প্রথম লেগের শেষ ৪ ম্যাচ জয় ছাড়া উপায় ছিল না আবাহনীর। টানা ৪ জয়ে শেষ অভীষ্ঠ লক্ষ্যে পৌছে সুপার লীগ নিশ্চিত করেছে আবাহনী। গতকাল বিকেএসপিতে বৃষ্টি বিঘিœত ম্যাচে তামীমের ক্যাপ্টেনস নক সেঞ্চুরিতে (১০৫ নট আউট) পরিবর্তিত টার্গেটে ৫০ বল হাতে রেখে সিসিএসকে ৯ উইকেটে হারিয়ে সুপার লীগ নিশ্চিত করেছে আবাহনী।
বিকেএসপির আকাশে ঘন মেঘ দেখে সিসিএস’র ২০৫/১০ এর টার্গেট মাথায় রেখে ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথডের সমীকরণ মিলিয়ে ব্যাটিং শুরু করেছিল আবাহনী। ১৩ ওভার শেষে বৃষ্টি যখন আঘাত হানে, তখন আবাহনীর স্কোর ৬৫/১। বৃষ্টিতে টার্গেট নেমে আসে ৩৫ ওভারে ১৬৮। অবশিষ্ট ২২ ওভারে ১০৩ রানের লক্ষ্যটা মোটেও কঠিন হতে দেননি তামীম-শান্ত। নাজমুস সাকিবকে পর পর ২ বাউন্ডারিতে ওয়েলকাম জানিয়ে ৫ম বলে ইউসুফ পাঠান কট বিহাইন্ডে ফিরে গেলে কিছুটা দূর্ভাবনা ভর করেছিল আবাহনীর। তবে দ্বিতীয় উইকেট জুটির অবিচ্ছিন্ন ১৬০ রানে সহজ জয় পেয়েছে আবাহনী। লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারে ৯ম সেঞ্চুরি এদিন উদযাপন করেছেন তামীম। ৮৬ বলে ১১ চারের পাশে সাইফকে ২টি এবং শাওন ও মাইনুদ্দিনকে ১টি করে ছক্কা মেরেছেন তামীম। প্রথম ফিফটিতে লেগেছে তার ৫৬ বল, অবশিষ্ট ৩০ বলে করেছেন ৫৬ তামীম।
তামীমের এই সেঞ্চুরির ইনিংসে মøান হয়েছে সিসিএস’র রাজিনের সংগ্রামী ইনিংস (৯৫)। চতুর্থ জুটিতে সাইফকে নিয়ে ১২৩ রানের পার্টনারশিপে নেতৃত্ব দেয়া রাজিন ৫ রানের জন্য ৬ষ্ঠ সেঞ্চুরি মিস করেছেন। তবে এই ইনিংসে তার ৫টি ছক্কা ছিল দেখার মতো। যে ৪টি ছক্কায় সাকিব, সাকলায়েন সজীব, মোসাদ্দেককে নিয়েছেন বেছে। আবাহনীকে এদিনও বোলিংয়ে নির্ভরতা দিয়েছেন সাকিব (৩/৩৫)। প্রথম স্পেলে ১টি (৩-০-১৬-১) এবং শেষ স্পেলে ২টি (২-০-১৩-২) শিকার তার। এই ম্যাচ জিতে পয়েন্ট তালিকায় প্রাইম দোলেশ্বরের সঙ্গে যৌথভাবে শীর্ষে উঠে এলো আবাহনী (১৪ পয়েন্ট)। অন্যদিকে হেরে রেলিগেশন লীগ হলো ঠিকানা সিসিএস’র (১১ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট)।
আগের রাউন্ডে জিতে সুপার লীগ নিশ্চিত করা প্রাইম দোলেশ্বরের টার্গেট যেখানে ছিল শেষ রাউন্ডে পয়েন্ট বাড়িয়ে নেয়া, সেখানে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের সামনে ম্যাচটি ছিল সুপার লীগের সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখতে ‘ডু অর ডাই’। সেই মরণ কামড়ে জয় হয়েছে প্রাইম ব্যাংকের। মুনীর (৩/৩১) ও আজিমের (৩/২৮) বোলিংয়ে ফতুল্লায় প্রাইম দোলেশ্বরকে ১৮৮ রানে অল আউট করে জয়ের পথটা সহজ করেছে প্রাইম ব্যাংক। বৃষ্টির কারণে ৩৬ ওভারে ১৬৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ২৭ বল হাতে রেখে কাঙ্খিত জয় উদযাপন করেছে প্রাইম ব্যাংক। তা সম্ভব হয়েছে ৪র্থ উইকেট জুটির ১১৪ রানের অবিচ্ছিন্ন পার্টনারশিপে। এই পার্টনারশিপের ২ ব্যাটসম্যানই উদযাপন করেছেন ফিফটি। ৭৪ বলে ১ চার ৩ ছক্কায় ভারতীয় রিক্রুট উন্মুখ চাঁদ পেয়েছেন ফিফটি (৫৯ রান)। রুম্মান ৫৭ বলে ৪ চার ৩ ছক্কায় করেছেন সেখানে ৬২। যে ইনিংসে ছক্কা তিনটির ২টিকে বেছে নিয়েছেন তিনি সানজামুলকে,অন্যটি নাসিরকে। এই ম্যাচ জিতেও শেষ ম্যাচ পর্যন্ত থাকতে হচ্ছে প্রাইম ব্যাংককে অপেক্ষায় (১১ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট)।
এদিকে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে মাশরাফির দ্যুতি ছড়ানো বোলিংয়ে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে বৃষ্টি। টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে কি ভয়ংকর বোলিংই না করেছেন এদিন কলাবাগান ক্রীড়া চক্র অধিনায়ক মাশরাফি (৭-৩-১৩-২)। তার এমন ভয়ংকর বোলিংয়ে কলাবাগান একাডেমির স্কোর শিটের চেহারা যখন ৩৫/৪, তখন বেরসিক বৃষ্টি থামিয়ে দিয়েছে ম্যাচ। আজ রিজার্ভ ডে তে গড়ালো ম্যাচটি।
প্রাইম ব্যাংক-প্রাইম দোলেশ্বর
প্রাইম ব্যাংক : ১৮৮/১০ (৪৭.৪ ওভারে), ইমতিয়াজ তান্না ৩২, রাকিবুল ৪৪, নাসির ১১, মানেরিয়া ৯, সানজামুল ২০, রনি ৩৩, আল আমিন ১০, রুবেল ২/৩৯, মুনীর ৩/৩১, আজিম ৩/৩১, শুভাগতহোম ২/৩৪।
প্রাইম ব্যাংক : ১৬৫/৩ (৩১.৩ ওভারে), শেহনাজ ২২, উন্মুখ চাঁদ ৫৯*, সোহান ৪, রুম্মান ৬২*, সানজামুল ১/৪২, রাহুতল ফেরদৌস ২/৩৭।
ফল : ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথডে প্রাইম ব্যাংক ৭ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : সাব্বির রহমান রুম্মান (প্রাইম ব্যাংক)।
সিসিএস-আবাহনী
সিসিএস : ২০৫/১০ (৫০.০ ওভারে), রাজিন ৯৫, সালমান ১৬, সাইফউদ্দিন ৫০, তাসকিন ২/২২, আবুল হাসান রাজু ২/৩০, সাকিব ৩/৩৫।
আবাহনী : ১৭০/১ (২৬.৪ ওভারে), তামীম ১০৫*, ইউসুফ পাঠান ৮, নাজমুল শান্ত ৫৩*, নাজমুস সাকিব ১/১৬।
ফল : ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথডে আবাহনী ৯ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : তামীম (আবাহনী)।
কলাবাগান একাডেমি-কলাবাগান ক্রীড়া চক্র
কলাবাগান একাডেমি : ৩৫/৪ (১৪.২ ওভারে), মাইশুকুর ১৭, জতিন সাক্সেনা ১, মাহামুদুল ৮, মাশরাফি ২/১৩, দেওয়ান সাব্বির ১/১৩, রাজ ১/৩। (অসম্পূর্ণ)

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন