বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

জয়ে ফিরল প্রাইম ব্যাংক

নেগির ব্যাটিংয়ে শীর্ষে রূপগঞ্জ

প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা  : প্রথম পর্বে শেষ বল থ্রিলারে তাইজুলের ছক্কায় ভিক্টোরিয়ার জয় কেড়ে নিয়ে ‘টাই’। সেই ম্যাচে অবিশ্বাস্য ‘টাই’ থেকেই যেন ফিরতি দেখায় টনিক পেয়েছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। চিত্রনাট্যে এদিন বদল হয়েছে চরিত্র। তাইজুলের জায়গায় এদিন রূপগঞ্জের নায়ক রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ক্রিকেটার পাওয়ান নেগি। তার ১২৪ রানের হার না মানা ইনিংসে ভর করে ভিক্টোরিয়ার ২৫৯-এর চ্যালেঞ্জ পাড়ি দিয়ে ২ উইকেটে জিতে পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে রূপগঞ্জ।
মুমিনুল (৮২), আল আমিন জুনিয়রের (৬৩) ব্যাটিংয়ে ভর করে ২৫৮/১০ স্কোরকে একসময় যথেষ্টই মনে হয়েছে ভিক্টোরিয়ার। আগের রাতে ক্রিকেটারদের পাওনা মিটিয়ে স্বস্তিতেই ছিল এদিন ভিক্টোরিয়া অফিসিয়ালরা। শ্রীলংকান বাঁ হাতি স্পিনার চাতুরঙ্গা সিলভার বোলিংয়ে (৫/৪৬) রূপগঞ্জের ইনিংসের শুরুতে বড় ধরনের ধাক্কাও দিতে পেরেছে ভিক্টোরিয়া। তবে ৮৩/৬  স্কোরে যখন সব আশা ছেড়ে দিয়ে হারটাকে নিয়তি বলে ধরে নিয়েছে রূপগঞ্জ, তখন ৭ম জুটির অবিশ্বাস্য ১৪৮ রানে ম্যাচে ফিরেছে এই দলটি। মোশাররফ রুবেলের সঙ্গে দারুণ বোঝাপড়ায় পার্টনারশিপে নেতৃত্বটা দিয়েছেন ভারতীয় রিক্রুট পাওয়ান নেগি। চাতুরঙ্গাকে ছক্কায় আত্মবিশ্বাসী এই ভারতীয় ভিক্টোরিয়া পেসার ডলার মাহামুদকে এক ওভারে মেরেছেন ৪টি চার! ফিফটিতে লেগেছে তার ৪২টি বল, লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারে অভিষেক সেঞ্চুরিতে খেলেছেন তিনি ৭৭টি বল। শেষ ১০ ওভারে ৬৮ রানের লক্ষ্যটা কঠিন হতে দেননি। দায়িত্বশীল ইনিংসে ম্যাচ ফিনিশ করে এসেছেন এই পাওয়ার হিটার (৮৯ বলে ১৩ চার ৪ ছক্কায় ১২৪)। ফিফটি এবং সেঞ্চুরির উদযাপন করেছেন তিনি বাউন্ডারির চুমোয়। ফতুল্লায় ঝড় তোলা তার এই ইনিংসেই ৭ বল হাতে রেখে ২ উইকেটে জিতেছে রূপগঞ্জ। এই জয়ে প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে শীর্ষে উঠে এলো রূপগঞ্জ (১৩ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট)। রূপগঞ্জের কাছে হেরেও শিরোপা লড়াইয়ে টিকে আছে ভিক্টোরিয়া (১৩ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট)।   
লীগের প্রথম পর্বে প্রাইম ব্যাংকের কাছে হেরে যাওয়ার কষ্টটা লাঘব করতে পারেনি প্রাইম দোলেশ্বর সুপার লীগেও। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে এদিন বৃস্টি বিঘিœত ম্যাচে  প্রাইম ব্যাংকের কাছে  ৬ উইকেটে হেরে শিরোপা লড়াইয়ে টিকে থাকা কঠিন হয়ে গেল প্রাইম দোলেশ্বরের। নুতন বলে এদিন রুবেলের পেস বিষেই ধাক্কাটা খেয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর। নুতন বলে তার ভয়ংকর রূপ ছড়ানোয় (২/১৯) ৩৩ ওভারে প্রাইম দোলেশ্বরের স্কোর দাঁড়ায় ১০০/৬। বিধ্বস্ত দলটিকে আরো বেসামাল করেছে মুষলধারে বৃষ্টি। প্রায় তিন ঘণ্টা পর খেলা শুরু হলে প্রাইম ব্যাংকের টার্গেট দাঁড়ায় ৩৩ ওভারে ১১৮। ভারতীয় রিক্রট উন্মুখ চাঁদের হার না মানা ৪৩ রানে ৪৮ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটে জিতে শিরোপা লড়াইয়ে টিকে রইল প্রাইম ব্যাংক। ১২ ম্যাচ শেষে প্রাইম দোলেশ্বরের সংগ্রহ ১৪, সেখানে ১ ম্যাচ বেশি খেলে প্রাইম ব্যাংকের সংগ্রহও ১৪ পয়েন্ট।

লিজেন্ডস-ভিক্টোরিয়া
ভিক্টোরিয়া : ২৫৮/১০ (৫০.০ ওভারে), মজিদ ২৬, ফজলে রাব্বী ৪০, মুমিনুল ৮২, আল আমিন ৬৩, চাতুরঙ্গা ১৮, ধীমান ১৩, আসিফ রাতুল ১/৪৩, নাহিদুল ১/৩২, তাইজুল ৩/৪৭, আবু হায়দার রনি ২/৩২, পাওয়ান নেগি ২/৫৪। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ : ২৬৪/৮ (৪৮.৫ ওভারে), মিঠুন ১৭, সৌম্য ২৮, আসিফ রাতুল ২৩, পাওয়ান নেগি ১২৪, মোশাররফ রুবেল ৪১, আলাউদ্দিন বাবু ১২, কামরুল রাব্বী ১/৬৪, আল আমিন ১/২৫, চাতুরঙ্গা ৫/৪৬, সোহরাওয়ার্দি শুভ ১/৩৮।
ফল : লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ২ উইকেটে জয়ী। ম্যান অব দ্য ম্যাচ :  পাওয়ান নেগি (লিজেন্ডস)।
প্রাইম ব্যাংক-প্রাইম দোলেশ্বর
প্রাইম দোলেশ্বর : ১০০/৬ (৩৩.০ ওভারে), রাকিবুল ১৫, শচীন বেবি ১৭, নাসির ৩০*, সানজামুল ১৮, রুবেল ২/১৯, শুভাগতহোম ১/২৮, মুনির ১/১৫, নাজমুল ১/১৭।
প্রাইম ব্যাংক : ১২২/৪ (২৫.০ ওভারে), উন্মুখ চাঁদ ৪৩*, শুভাগতহোম ১৭, রুম্মান ২৮, তাইবুর পারভেজ ১৬*, ফরহাদ রেজা ১/২২, সানজামুল ২/২৫, নাসির ১/১৮।
ফল : প্রাইম ব্যাংক ৬ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : রুবেল (প্রাইম ব্যাংক)।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন