ঢাকা, মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৯ শাওয়াল ১৪৪১ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কোলাকূলি ও হাত মেলানো পরিহার সহ ১১ নির্দেশনা মেনে সিলেটে পড়তে হবে ঈদের জামাত

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২২ মে, ২০২০, ৪:১৯ পিএম

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ আদায়ে আরোপ করেছে সরকার কিছু বিধি নিষেধ। এছাড়া ঈদগাহর বদলে ঈদের নামাজ আদায় করতে বলা হয়েছে মসজিদেই। এই অবস্থায় ঈদ জামাতে নগরবাসীর সহযোগিতা চেয়েছে সিলেট মহনাগর পুলিশ (এসএমপি)। একইসাথে জামাতের জন্য ১১ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এসএমপির পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার জানানো হয়, জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত ও ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো নির্দেশাবলি অনুসরণ করে আদায় করতে হবে ঈদ জামাত। একইসাথে মেনে চলতে হবে নিম্নোক্ত নির্দেশনা। সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জেদান আল মুসা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে নির্দেশনাগুলো
১. ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে ঈদের নামাজের জামাত নিকটস্থ মসজিদে আদায় করতে হবে। প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামাতের আয়োজন করা।
২. ঈদের নামাজের জামাতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের পূর্বে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা পরিষ্কার করতে হবে। মুসল্লীরা নিজ দায়িত্বে জীবাণুমুক্ত করে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন।
৩. করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদে ওযুর স্থানে সাবান বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে।
৪. মসজিদের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান-পানি রাখতে হবে।
৫. প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসা থেকে ওযু করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।
৬. ঈদের নামাজের জামাতে আগত মুসল্লীকে অবশ্যই মাস্ক এবং নিজস্ব টুপি পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।
৭. ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে।
৮. এক কাতার অন্তর অন্তর আরেক কাতার করতে হবে।
৯. ঈদের নামাজের জামাতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না শিশু, বায়োবৃদ্ধ, যে কোন অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি ।
১০. সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিতকল্পে, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে অবশ্যই ।
১১. করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদে জামাত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো করতে হবে পরিহার। এছাড়া পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বিশেষ দোয়া করতে প্রত্যেক মসজিদের খতিব ও ইমামগণকে অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশ। স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়েও সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে তাদের।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন