ঢাকা, বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

চীনের থেকে আলাদা হলে হংকংয়ের ক্ষতি বেশি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ মে, ২০২০, ৪:৩৮ পিএম | আপডেট : ৪:৩৯ পিএম, ২৯ মে, ২০২০

হংকংয়ে জাতীয় সুরক্ষা আইন কার্যকরের পরিকল্পনার জন্য বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চলাকালীন গণতন্ত্রপন্থী একজন বিক্ষোভকারী ‘পাঁচটি দাবি, একটিও কম নয়’ এর প্রতীক হিসাবে তার হাত তুলেছেন –সংগৃহীত


হংকংয়ের স্বায়ত্বশাসনের অনন্য ধরণ ছিল চীনের জন্য এক বিশেষ উপহার। এই শহরটি বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশটির জন্য একটি চ্যানেল হয়ে উঠেছে। যাতে বেইজিং হংকংয়ের উপরে তার অর্থনীতি এবং মানুষের উপর নিয়ন্ত্রণ ত্যাগ না করেও মাঝারিভাবে আরও সমৃদ্ধ হতে পারে। তবে মূল ভূখণ্ডের ভবিষ্যতের সমৃদ্ধির জন্য এখন আর এটি প্রয়োজনীয় নয়। চীন প্রজাতন্ত্রের থেকে আলাদা হলে, যেমনটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তাব করেছে, তা হংকংয়ের জন্যই বেশি ক্ষতিকর হবে।

১৯৯৭ সালে ব্রিটেন এই অঞ্চলটি হস্তান্তর করার পরে হংকংকে চীন থেকে পৃথক হিসাবে বিবেচনা করার প্রায় সর্বজনীন চুক্তি চারটি প্রধান কার্য সম্পাদন করেছে। বাকি সবই কম প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠছে। প্রথমটি হচ্ছে, পণ্য বাণিজ্য। চীনের বন্দরগুলি এখন পর্যাপ্ত পরিমাণে বড় এবং ২০১৮ সালে মোট রফতানির মাত্র ১০ শতাংশ হংকংয়ের মাধ্যমে হয়েছে। বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকটের আগে এর ভাগ দ্বিগুণেরও বেশি ছিল।

তবে চীনের জন্য এশীয় আর্থিক কেন্দ্রের ভূমিকা হিসাবে হংকংয়ের গুরুত্ব রয়েছে। এটি এখনও গুরুত্বপূর্ণ, তবে চীন আজকাল এই জাতীয় প্রবাহের উপর কম নির্ভর করে। ২০০০ সালে বৈদেশিক বিনিয়োগ, স্থায়ী-সম্পদ বিনিয়োগের প্রায় ১৫ শতাংশের সমতুল্য ছিল। গত বছর এটি ছিল প্রায় ১ দশমিক ৫ শতাংশ। হংকংয়ের বিশেষ স্থিতি চীনের মুদ্রাকে আন্তর্জাতিকীকরণের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছিল। তবে প্রকল্পটি ব্যর্থ হয়েছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের তথ্যের ভিত্তিতে নেটওয়ার্ক অপারেটর সুইফট এবং বৈশ্বিক কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভগুলি থেকে বিশ্বব্যাপী অর্থ প্রদানের ক্ষেত্রে চীনা মৃদ্রার ব্যবহার ২ শতাংশেরও কম। সংস্থাগুলি হংকংকে মূলধন বাড়ানোর জায়গা হিসাবে ব্যবহার করেছে, তবে এখন এটি স্থানীয়ভাবেও উপলব্ধ।

‘এক দেশ, দুই ব্যবস্থা’র অধীনে সাবেক বৃটিশ ঔপনিবেশ হংকং উচ্চ মাত্রায় স্বায়ত্তশাসন ভোগ করে। অর্ধ শতাব্দীরও আগে এই ভূখন্ড ঔপনিবেশিক শাসন থেকে বেরিয়ে আসে। সেখানে যদি চীনের গৃহীত পদক্ষেপের জবাবে যুক্তরাষ্ট্র অবরোধ দেয় তাতে শুধু হংকংয়ের ক্ষতি হবে এমন নয়। ক্ষতি হবে যুক্তরাষ্ট্রেরও। হংকং সরকার বলেছে, ২০০৯ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে হংকংয়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ছাড়িয়ে গেছে ২৯৭০০ কোটি ডলার। এই শহরে অবস্থান করছে যুক্তরাষ্ট্রের ১৩০০ ফার্ম। এখানে যুক্তরাষ্ট্রই সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক অংশীদার। ফলে অবরোধ দেয়া হলে যুক্তরাষ্ট্রের এই বাণিজ্যিক স্বার্থ নষ্ট হবে।

রাজনৈতিকভাবে, হংকংয়ের স্বাধীনতার পক্ষে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান হল, তাইওয়ানকে একটি অস্থায়ী বিজ্ঞাপন হিসাবে পরিবেশন করা, স্বাধীনভাবে শাসিত রাজ্যটি চীন নিজেদের অন্তর্গত বলে দাবি করে। এমনকি সেখানেও বিনিয়োগ হ্রাস পাচ্ছে। চলতি মাসে পিউ সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, কেবলমাত্র ৩৬ শতাংশ তাইওয়ানিজ চীনের সাথে ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সম্পর্ককে সমর্থন করেঅ যেখানে, ৭৯ শতাংশ আমেরিকার সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে সমর্থন করে।

চীন থেকে স্বাধীন হলে হংকংয়ের কোন লাভই হবে না। বরং, এটি চীনের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়ার জন্য বিরোধীদের কাছে একটি দুর্বল লক্ষ্য হিসাবে পরিণত হয়েছে। এই শহরটি কেবল গুরুত্বপূর্ণ এই কারণে যে, এটির এমন কিছু অধিকার রয়েছে, যা চীন তার অন্যান্য শহরগুলিকে দেয় না। হংকং চীনের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ, তবে চীন এর উপরে নির্ভরশীর নয়। সূত্র: রয়টার্স।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন