ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

মহানগর

ঢাকার ২১ এলাকা করোনার হটস্পট

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ জুন, ২০২০, ১২:২৬ পিএম

রাজধানী ঢাকার ২১৬ এলাকায় শনাক্ত হয়েছে করোনা রোগী। এর মধ্যে ৯টি এলাকায় শনাক্ত হয়েছে দুই শতাধিক। একশ’র বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে ১২টি এলাকায়। সংক্রমণে ঠেকাতে সারা দেশকে তিন ধরনের জোনে ভাগ করার সিদ্ধান্ত কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করতে পারলে সুফল মিলবে বলে আশা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

টোলারবাগ, বাসাবো, ওয়ারি রাজারবাগ ছাড়িয়ে করোনার বড় ঢেউ এখন রাজধানীর মহাখালীতে। সেমাবার ৮৬তম দিনে এসে বলা হচ্ছে সারা দেশকে ঝুঁকি বিবেচনায় তিনটি জোনে ভাগ করা হবে। প্রশ্ন এই জোন কতটুকু কার্যকর হবে করোনার সামাজিক সংক্রমণ ঠেকাতে এই নিয়ে প্রশ্ন আছে।

ঢাকায় করোনা সংক্রমণ আলোচনায় আসে উত্তর টোলারবাগে পরপর দুটি মৃত্যুর ঘটনায়। লকডাউন করা হয় এলাকাটি। পর্যায়ক্রমে এখন তা ছড়িয়েছে পুরো ঢাকায়। দেশে করোনাভাইরাসের ভরকেন্দ্র রাজধানী ঢাকা।

ঢাকা মহানগরীর ২১৬টি এলাকায় করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি মহাখালীতে। ঘনবসতিপূর্ণ এলাকাটিতে এখন রোগীর সংখ্যা ৪০৮ জন।

ঢাকার ৯টি এলাকায় ২০০’র বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। যাত্রাবাড়িতে ৩৪০, মুগদায় ৩২৭, মোহাম্মদপুরে ৩১৩, মিরপুরে ৩৪৫, কাকরাইলে ২৯৯, মগবাজারে ২১৯, রাজারবাগে ২১৪, উত্তরায় ২৮৩ এবং তেজগাঁওয়ে ২০৫ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। ১০০’র বেশি রোগী আছে ১২টি এলাকায়। এর মধ্যে আছে ধানমন্ডি, লালবাগ, খিলগাঁও, মালিবাগ, গুলশান, বাড্ডা, বাবুবাজার, বংশাল, বাসাবো, গেন্ডারিয়া, রামপুরা এবং ওয়ারি।

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে টোলারবাগ মডেল অনুসরণের পরামর্শ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। তারা বলছেন, সংক্রমণের ঝুঁকি বিবেচনায় সারাদেশকে তিন ধরনের জোনে ভাগ করার যে সিদ্ধান্ত তা বাস্তবায়ন করতে পারলে সুফল পাওয়া যাবে। দ্রুত জোন ভাগ করে সবাইকে কঠোর স্বাস্থবিধির আওতায় নিয়ে আসার তাগিদ তাদের। আর স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, জনসংখ্যার অনুপাত এবং করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বিবেচনা করে জোন ভাগ করার কাজ চলছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন