ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

আমরা লিবিয়ানদের ভাড়াটে খুনী ও অভ্যুত্থানের মুখে ছেড়ে যাব না -এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ জুন, ২০২০, ১০:৩৩ এএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন যে, তার দেশ লিবিয়ার জনগণকে ভাড়াটে খুনীদের দয়ায় ও অভ্যুত্থানের মুখে কখনও ছেড়ে যাবে না। বৃহস্পতিবার আঙ্কারায় লিবিয়ার প্রধানমন্ত্রী ফয়েজ আল সররাজের সাথে বৈঠকের পরে একটি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।

এরদোগান বলেন, ‘অভ্যুত্থানের নেতা খলিফা হাফতারকে সমর্থন দিয়ে যারা লিবিয়াকে রক্ত ও অশ্রুতে নিমজ্জিত করেছিলেন, ইতিহাসের কাছে তারা দায়ী হয়ে থাকবে।’ অবৈধভাবে লিবিয়ার তেল বিক্রি থেকে হাফতারকে বিরত রাখতে এরদোগান পুনরায় আহ্বান জানিয়ে বলেন, লিবিয়ার জাতিসংঘ সমর্থিত ন্যাশনাল অ্যাকর্ড সরকারের (জিএনএ) সাথে তুরস্কের সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো সম্প্রসারণের বিষয়ে তিনি আল-সররাজের সাথে একমত হয়েছেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘উত্তর আফ্রিকার দেশটির সঙ্কটের সমাধান বৈধতা ও ন্যায়বিচারের ভিত্তিতে হতে হবে।’

এরদোগান সাংবাদিকদেরকে জানান, ‘হাফতারের মিলিশিয়াদের আক্রমণ সত্ত্বেও করোনাভাইরাস মহামারী ঠেকাতে জিএনএ প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বন করেছে। তিনি বিদ্রোহী ফিল্ড মার্শাল হাফতারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘যে ব্যক্তি লিবিয়ার ভবিষ্যতের জন্য অবিচ্ছিন্ন হুমকি সৃষ্টি করে, সে আলোচনার টেবিলে বসতে পারবে না।

প্রেসিডেন্ট এরদোগান উল্লেখ করেন যে, আল-সররাজ এমন সময়ে আঙ্কারা সফর করছেন, যখন তুরস্ক সফলভাবে কোভিড -১৯ এর মোকাবেলা করে যাচ্ছে। তার সরকার স্বাস্থ্য সঙ্কটের জন্য লিবিয়ার সাথে সংহতি জানিয়েছে এবং এপ্রিল ও মে মাসে ত্রিপোলিতে চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠিয়েছে।

তুরস্কের অগ্রাধিকার হ'ল, জাতিসংঘের সহায়তায় এবং লিবিয়ার জনগণের নেতৃত্বে একটি সমাধান দিয়ে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেশটিতে স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা করা। এরদোগানের মতে, এটি পুরো অঞ্চলকে উপকৃত করবে। তিনি আরও যোগ করেছেন, হাফতার লিবিয়ার রাজনৈতিক চুক্তি প্রত্যাখ্যান করে এবং নিজেকে লিবিয়ার নেতা হিসাবে ঘোষণা করে তার আসল চেহারাটি প্রদর্শন করেছে।

তেল রফতানি অব্যাহত রাখা এবং লিবিয়ার অর্থনৈতিক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিদেশী হস্তক্ষেপের অবসান ঘটাতে আল-সররাজের সাথে একমত হয়ে, এরদোগান দেশটিতে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলো তুলে নেয়ার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছেন। তিনি জানান, অবৈধভাবে লিবিয়ার তেল বিক্রি এবং আরও অস্ত্র ও ভাড়াটে যোদ্ধা সংগ্রহে হাফতারের প্রচেষ্টায় তুরস্ক সজাগ দৃষ্টি রেখেছে। সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
jack ali ৬ জুন, ২০২০, ১২:০৬ পিএম says : 0
May Allah destroy Hafter and his army from Libya and bring peace.
Total Reply(0)
Mubin ৬ জুন, ২০২০, ৪:২০ পিএম says : 0
মহামান্য এরদোগান!আল্লাহর উপর ভরসা করে আপনি এগিয়ে চলুন।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন