শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০ আশ্বিন ১৪২৮, ১৭ সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ভারতকে সন্ত্রাস বন্ধ ও কাশ্মীর ইস্যুতে ৫ আগস্ট ২০১৯ এর পূর্বের অবস্থায় ফিরার আহ্বান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২১, ১০:২৬ পিএম

পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ড. মুয়ীদ ইউসুফ শনিবার ভারতীয় সাংবাদিক করণ থাপারকে দেয়া দ্বিতীয় সাক্ষাত্কারে জোহর টাউন বিস্ফোরণে ভারতের আলোচনার প্রস্তাব নিয়ে এবং এতে ‘র’ লিংকের বিশদ বিবরণ তুলে ধরেছেন। ভারত কর্তৃক অবৈধভাবে অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরের স্থলভাগের শান্তিময় পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনার জন্য দৃঢ় ও সঠিক পদক্ষেপ হিসেবে ৫ আগস্ট ২০১৯ এর পূর্বের অবস্থায় ফিরে না আসলে এবং পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে পৃষ্ঠপোষকতার অপবাদ দেয়া বন্ধ করা না হলে আলোচনার কোনও অগ্রগতিই হতে পারে না। -কাশ্মীর মিডিয়া সাভিস (কেএমএস)

কাশ্মীরের বিষয়ে পাকিস্তানের অবস্থান তুলে ধরে ড. মুয়ীদ ইউসুফ বলেন, পাকিস্তানের সরকার এবং জনগণ কাশ্মীরের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকবে, যতক্ষণ না কাশ্মিরীরা ইউএনএসসি-এর রেজোলিউশনের অধীনে কাশ্মীরী জনগণ তাদের স্ব-সিদ্ধান্তের অধিকার ফিরে পাবে। ভারত থেকে আসা আলোচনার প্রস্তাবটির বিস্তারিত জবাব দিতে গিয়ে ড. ইউসুফ বলেন, পাকিস্তান ভারতকে স্পষ্টভাবে জানিয়েছিল যে, আইআইওজেকে জনসংখ্যার পরিবর্তন বন্ধ করতে হবে। কাশ্মীরি পরিচয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে এবং যে কোনও সংলাপ বা আলোচনা হওয়ার আগে কাশ্মীরিদেরকে তাদের কথা বলার অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে।

পাকিস্তানের এই জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতীয় সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষকতার বিবরণও তুলে ধরেন। তিনি বলেন, পাকিস্তানের অভ্যন্তরে সন্ত্রাসবাদে ভারতের জড়িত থাকার প্রমাণসহ বিশদ দলিলসমূহ উপস্থাপন করেছিল পাকিস্তান। তিনি বলেন, গত মাসে লাহোরের জোহর টাউন বিস্ফোরণে ভারতের জড়িত থাকার নির্ভরযোগ্য তথ্য দিয়েছিলাম। ব্যাংকিং লেনদেন, টেলিফোন রেকর্ডস এবং সাইবার হামলার প্রমাণগুলো এই হামলায় ভারতের সরাসরি জড়িত থাকার বিষয়টি প্রকাশ করেছিল। ড. ইউসুফ আরও বলেন, ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তাদের সন্ত্রাসবাদী কর্মকান্ডের মাধ্যমে পাকিস্তানের সিপিইসি এবং চীনা স্বার্থকে নস্যাৎ করছে।

তিনি বলেন, পাকিস্তান সর্বদা শান্তির পক্ষে ছিল এবং প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তাশখন্দে স্পষ্টভাবে বলেছেন যে, পাকিস্তান প্রতিবেশী হিসাবে ভারতের সাথে সভ্য সম্পর্ক রাখতে চেয়েছিল। তবে ভারত সরকারের চরম হিন্দুত্ববাদী আরএসএস এর কারণে তা বার বার হোঁচট খাচ্ছে। তিনি ওই সাংবাদিককে জিজ্ঞাসা করলেন, কেন ভারতের অভ্যন্তরে জনগণ মোদীকে হিটলারের সাথে তুলনা করছেন?

তিনি ভারতীয় সাংবাদিককে বলেন, সাম্প্রতিক পেগাসাস কেলেঙ্কারির অধীনে প্রকাশিত পাকিস্তানি ব্যক্তিদের উপর ভারতের রাষ্ট্রীয় মদদে করা গুপ্তচরবৃত্তির রিপোর্ট এবং মোদী সরকার এফএটিএফ প্রযুক্তিগত প্রক্রিয়াটিকে রাজনীতিকরণমূলক বিবৃতি এবং ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রকাশিত বিবৃতি সহ ভারতের দুর্বৃত্ত আচরণ নিয়ে পাকিস্তান গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। প্রায় সমস্ত প্রযুক্তিগত মানদণ্ড পূরণ করেও পাকিস্তান ধূসর তালিকায় থাকবে কেন, বলে তিনি প্রশ্ন করেন।

পাকিস্তান ও ভারতের এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ কতটা এমন প্রশ্নের জবাবে ড. ইউসুফ বলেন, পাকিস্তান আশা করেছিল যে ভারত সরকার অবৈধভাবে অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরের ব্যাপারে তাদের ভুল বুঝতে পারবে এবং অগ্রসর হওয়ার জন্য সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করে ৫ আগস্ট ২০১৯ এর আগের অবস্থানে ফিরে যাবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (3)
মোঃ আনোয়ার আলী ২৫ জুলাই, ২০২১, ৫:৫০ এএম says : 0
আল্লাহ পাক, কাশ্মীরীদেরকে স্বাধীনতার সুফল ভোগ করার তৌফিক দান করুক।
Total Reply(0)
habib ২৫ জুলাই, ২০২১, ১০:৩০ এএম says : 0
India is a great enemy of Muslim..OIC should realize it....
Total Reply(0)
মোঃ আনোয়ার আলী ২৫ জুলাই, ২০২১, ৬:৩৬ এএম says : 0
আল্লাহ পাক, কাশ্মীরীদেরকে স্বাধীনতার সুফল ভোগ করার তৌফিক দান করুক।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন