রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৮ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রের ল্যাটিন আমেরিকান বন্ধুরা ঝুঁকছে চীনের দিকে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৫২ এএম

যুদ্ধ ছাড়াই চীনের কাছে ল্যাটিন আমেরিকাকে হারাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটনে নিযুক্ত ইকুয়েডরের রাষ্ট্রদূত ইভন বাকি অ্যাক্সিওসকে বলেন, বাইডেন প্রশাসনের প্রাথমিক অবহেলার কারণে তারা হতাশা প্রকাশ করেছেন।
ইকুয়েডর একা নয়। চীন এই অঞ্চলে তার সম্পৃক্ততাকে আরও গভীর করেছে এবং তারা এখন এই অঞ্চলের বৃহত্তম অর্থনীতির অনেকের শীর্ষ বাণিজ্যিক অংশীদার। এটি ঐতিহাসিকভাবে যুক্তরাষ্ট্র দ্বারা প্রভাবিত একটি অঞ্চলে বেইজিংকে যথেষ্ট সুবিধা দেয় এবং ল্যাটিন আমেরিকাকে প্রভাবের জন্য বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় একটি প্রধান সীমানা করে তোলে। ওয়াশিংটনের কাছ থেকে বেশি মনোযোগ না পেলে, এমনকি মার্কিন-বান্ধব সরকারও এই সিদ্ধান্তে পৌঁছাবে যে, তারা অবহেলিত হচ্ছেন। রাষ্ট্রদূত ইভন বাকি তার অফিসে এক ঘণ্টার সাক্ষাৎকারে বলেন,

‘এবং চীন অপেক্ষা করছে, বলছে, আমরা এখানে আছি। আমরা আপনাকে টাকা দিচ্ছি। তারা অবশ্যই নিয়ন্ত্রণ চায়, কিন্তু তারা তা বলে না।’
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দুই দশক আগে দক্ষিণ আমেরিকার ১২ টি দেশের মধ্যে ৯টি দেশের শীর্ষ বাণিজ্যিক অংশীদার এবং মহাদেশের বাইরের কোন দেশ হিসাবে তাদের শীর্ষ অংশীদার ছিল। চীন এখন কলম্বিয়া, ইকুয়েডর এবং প্যারাগুয়ে ছাড়া সব ক্ষেত্রেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে গেছে এবং এটি শীঘ্রই সেই দেশগুলোর জন্যও সবচেয়ে বড় অংশীদার হতে পারে। ল্যাটিন আমেরিকানয় চীন মূলত কাঁচামাল আমদানি করছে এবং অবকাঠামো নির্মাণ করছে। সংস্কৃতি এবং পর্যটনের ক্ষেত্রে, এবং অঞ্চলের ক্রমবর্ধমান প্রযুক্তি কেন্দ্রগুলোর সাথে চুক্তির ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্কেএখনও অনেক গভীর। ইন্টার-আমেরিকান ডায়ালগের মার্গারেট মায়ার্স বলেন, ‘এটা এমন নয় যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই অঞ্চলের দেশগুলোর জন্য আর সমালোচনামূলক মিত্র নয়। এটা ঠিক যে চীন খুব বেশি উপস্থিত ... তবে সেসব সেক্টরে, যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নেই ‘

চীন স্বৈরাচারী ও ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোতে ব্যবসা করতে ইচ্ছুক যারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকে দূরে রয়েছে এবং অবকাঠামো বা ভ্যাকসিন সরবরাহের ক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছে। একই গতিশীলতার অনেকগুলো দেশ চীনকে আফ্রিকার একটি প্রধান শক্তি হতে সাহায্য করেছে। আবার কোন এজেন্ডা চালানোর পরিবর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রায়শই চীনের পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়া জানায়। সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রশাসনের চ‚ড়ান্ত দিনগুলোতে একটি ব্যতিক্রম হল, একটি অস্বাভাবিক চুক্তি, যার মধ্যে ইউএস ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ফাইন্যান্স কর্পোরেশন ইকুয়েডরের তেল এবং অবকাঠামোতে বিনিয়োগ করতে রাজি হয়েছিল। তবে শর্ত ছিল, যদি সেই তহবিলগুলো চীনের ঋণ পরিশোধ করতে ব্যবহৃত হয় এবং যদি ইকুয়েডর চীনের হুয়াওয়েকে তাদের ৫জি নেটওয়ার্কের বাইরে রাখে।

বাইডেন অনুরূপ চুক্তি করবেন কিনা তা স্পষ্ট নয় - অথবা এই অঞ্চলের অনেক দেশ চীনকে পাশ কাটিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে স্পষ্টভাবে পাশে থাকার জন্য প্রস্তুত হবে কিনা। উরুগুয়ের প্রেসিডেন্ট লুইস ল্যাকালে পাউ এই মাসের শুরুতে প্রাইম টাইম টিভিতে দেয়া সাক্ষাতকারে বলেছিলেন যে, তার দেশ বেইজিংয়ের সাথে মুক্ত বাণিজ্য নিয়ে আলোচনার চেষ্টা করবে। এই উদ্বেগ সত্তে¡ও যে, এটি ল্যাটিন আমেরিকার আঞ্চলিক মার্কোসুর বøককে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। এই সেন্টার-রাইট, প্রো-বিজনেস লিডার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে বাণিজ্য আলোচনার প্রস্তাবও দিয়েছেন কিন্তু সামান্য আগ্রহই আকর্ষণ করেছেন। এরিক ফার্নসওয়ার্থ এবং কার্লোস মাজাল ব্যারন-এ লিখেছেন, ‘মন্টিভিডিও বেইজিংয়ের চেয়ে ওয়াশিংটনের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলতে পছন্দ করবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত, সেই বিকল্পটি পাওয়া যায়নি। এবং উরুগুয়ে আমেরিকা জুড়ে অনান্য দেশ থেকে অনেক দূরে।’ এটি মার্কিন পর্যবেক্ষকদের অবাক করে দিতে পারে যে, মার্কিন-চীন উত্তেজনার আবহাওয়ায়, ল্যাকালে পাউ-এর মতো মার্কিন-বন্ধুত্বপূর্ণ প্রেসিডেন্ট চীনের সাথে একটি সম্ভাব্য চুক্তির সূচনা করার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক সুবিধা দেখতে পাবেন।

কিন্তু এই ঘোষণার পর থেকে, ‘মানুষ শুধু চীন নিয়েই কথা বলে,’ সান্তো বলেন, যিনি উরুগুয়ের বাসিন্দা কিন্তু চীনের শহর ফোসান সরকারের জন্য দুই বছর কাজ করেছেন। তিনি বলেন, ‘চীনের সাথে যুক্ত রাজনৈতিক সমস্যাগুলো এই অঞ্চলের দেশগুলোর জন্য উদ্বেগের বিষয় নয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রত্যেকটি ল্যাটিন আমেরিকান দেশই চীনের অর্থনৈতিক সুযোগের সম্ভাবনা দ্বারা প্রলুব্ধ হয়।’ সূত্র : অ্যাক্সিওস।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন