শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, ০৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

মহানগর

জাতীয় শিক্ষাক্রম-২০২০ বাতিলের দাবি করেছে ছাত্রফ্রন্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:০০ পিএম

জাতীয় শিক্ষাক্রম-২০২০ প্রত্যাখ্যান করে তা বাতিলের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রফ্রন্ট। আজ শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে আয়োজিত এক সমাবেশ থেকে এ দাবি জানান ছাত্রফ্রন্টের (মার্ক্সবাদী) নেতারা। এ সময় বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সভাপতি মাসুদ রানা, সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রাফেউজ্জামান ফরিদ, অর্থ সম্পাদক প্রগতি বর্মণ তমা প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, যারা শিক্ষা আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত, তাদের কোনো ধরনের মতামত না নিয়ে এ শিক্ষাক্রম অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আমরা দেখেছি, একের পর এক নীতি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কিন্তু এই নীতি নিয়ে মানুষের কোনো মতামত নেওয়া হচ্ছে না। শিক্ষা সংক্রান্ত কোনো বিষয়ে শিক্ষা নিয়ে যারা কাজ করেন, তাদের কোনো মতামত না নিয়েই নীতি চালু করা হচ্ছে এবং তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এই নীতি চালু করার ফলাফল কী, সে ফলাফল নিয়েও কোনো আলোচনা হয় না।

তারা আরও বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর একের পর এক নীতি চালু করেছে। তারা পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা চালু করেছিল, এখন আবার তারাই বলছে ২০২৩ সাল থেকে তা থাকবে না। কেন আপনারা চালু করলেন, আর কেন বাতিল করলেন সে মূল্যায়ন কি আপনারা করেছেন? ২০০৯ সালে যখন এ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছিল আমরা বলেছিলাম, এই পরীক্ষা শিক্ষার্থীদের উপর অতিরিক্ত বোঝা চাপিয়ে দেবে, শিক্ষার মান বাড়বে না। তখন তারা শিক্ষার মান বাড়ার স্লোগান দিয়েছিল।

মাধ্যমিক স্তরে বিভাগ উঠিয়ে দেওয়ার সমালোচনা করে বক্তারা বলেন, এর মধ্য দিয়ে মৌলিক যে বিজ্ঞান শিক্ষা, সে বিজ্ঞান শিক্ষার গুরুত্ব কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই শিক্ষাক্রম দিয়ে তারা যে উদ্দেশ্য সফল করতে চায়, সেটি হলো একদম টেকনিক্যালি এক্সপার্ট মানুষ তৈরি করা। তথাকথিত কারিগরি বিপ্লবের যে কথা আমরা শুনছি, সে প্রস্তাবনার নিরিখে মানবিকতা, মূল্যবোধ বিবর্জিত মানুষ তৈরি করাই এই প্রস্তাবনার মূল লক্ষ্য।

সমাবেশ থেকে চারটি দাবি জানানো হয়। সেগুলো হলো : শিখনকালীন মূল্যায়নের নামে শিক্ষকদের হাতে কোনো মার্কস রাখা যাবে না, তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা বাতিল না করে পিইসি-জেএসসি বাতিল করা, পরপর তিনটি পাবলিক পরীক্ষা না নেওয়া, বিজ্ঞান শিক্ষাকে গুরুত্বহীন করে মাধ্যমিক স্তরে বিভাগ উঠানো যাবে না।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন