সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ৩০ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

প্রবাস জীবন

নিউইয়র্কের পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উদযাপন: ইসলামের সৌন্দর্যকে নিজের জীবনে ধারণ করতে হবে

যুক্তরাষ্ট্র সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০২১, ৯:০০ পিএম | আপডেট : ৬:২২ পিএম, ২৩ অক্টোবর, ২০২১

নিউইয়র্কের ব্রঙ্কসে ধর্মীয় উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী। গত ১৭ অক্টোবর রোববার সন্ধ্যে ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ব্রঙ্কসের সেইন্ট হেলেনা’স রোমান ক্যাথেলিক চার্চ হলে ব্রঙ্কস ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল মিলাদুন্নবী উদযাপন কমিটির আয়োজনে তৃতীয়বারের মত অনুষ্ঠিত হয় এ মাহফিল। বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ)-এর পূণ্যময় জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা, দোয়া, মিলাদ মাহফিল এবং তবারক বিতরণের মধ্যে দিয়ে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মাওলানা আবুল কাশেম মোহাম্মদ ইয়াহইয়ার সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব হাফিজ মাওলানা ওয়াহি আহমেদ চৌধুরীর পরিচালনায় মাহফিলে তাৎপর্যপূর্ণ ওয়াজ পেশ করেন প্রধান অতিথি বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল ইসলাহর সভাপতি, শামসুল উলামা আল্লামা ফুলতলী (রা:) এর সন্তান বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী। মাহফিলে নবীজী (সা:) এর জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনায় আরো অংশ নেন বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার মাওলানা আব্দুল হাকিম আজাদী, মুফতি মাওলানা মইনুল ইসলাম, ড. শেখ রাবিহ ওসমান, প্রফেসর মুখলেসুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে নবীজী (সাঃ) এর জীবন ও কর্মের ওপর রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথি আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী। শুরুতে প্রতিযোগিরা পবিত্র কোরআন থেকে তেলওয়াত করেন। কেরাত পেশ করেন হাফিজ ওমর ফারুক ও আবদুল আসিফ। নাত পেশ করেন এটর্ণী মঈন চৌধুরী ও মাহমুদ নূর।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহানবী (সঃ)-এর বর্ণাঢ্য জীবনের বিভিন্ন দিক ও আদর্শের উপর আলোকপাত করে আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেন, রাসূল (সা.) ছিলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব। মহান আল্লাহ বিশ্বজগতের শান্তির দূত হিসেবে সমগ্র বিশ্ববাসীর রহমত স্বরূপ প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে এ পৃথিবীতে প্রেরণ করেন। তিনি প্রচার করেন শান্তির ধর্ম ইসলাম। তাঁর আগমনের এই স্মৃতিকে ধারণ করে প্রতি বছর আমরা পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উদযাপন করি।

আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেন, বিশ্ববাসীকে মুক্তি ও শান্তির পথে আহ্বান জানান মহানবী (সঃ)। প্রতিষ্ঠা করেন মানুষের মর্যাদা ও অধিকার। মহানবীর (সঃ)-এর আদর্শ আজকের বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি। মহানবীর আদর্শ অনুসরনের মাধ্যমে ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে সমাজের সকল স্তরেই শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব।

প্রধান অতিথি আরও বলেন, মুসলমানদের বিশেষ করে আমাদের নতুন প্রজন্মকে হালাল-হারামের ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে। এমনকি সন্দেভাজন বিষয় থেকে দূরে থাকতে হবে। ইসলামের সৌন্দর্যকে নিজের জীবনে ধারণ করতে হবে।

বক্তারা মহানবীর (সঃ) আদর্শ অনুসরনের আহবান জানিয়ে বলেন, এক শ্রেণীর জ্ঞানপাপী সর্বশ্রেষ্ঠ রাসূল (সা.) কে সাধারণ মানুষের সাথে তুলনা করেন। অথচ রাসূল (সা.) সাধারণ মানুষ মনে করলে ঈমানই থাকবে না। বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় বিশ্ব নবীর আদর্শ অনুসরনের কোন বিকল্প নেই।

মাহফিলে মুসলিম উম্মাহ ও বিশ্ব মানবতার শান্তি কামনা করে বিশেষ দোয়া-মুনাজাত পরিচালনা করেন আল্লামা হুসামুদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী ও মাওলানা আব্দুল হাকিম আজাদী। করোনায় শহীদদের রুহের মাগফিরাত এবং আক্রান্তদের দ্রুত আরোগ্য কামনায় দোয়া করা হয়।

ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত রচনা প্রতিযোগিতায় এ গ্রুপ থেকে ১ম স্থান অধিকার করে সালামাহ চৌধুরী, বি গ্রুপ থেকে ১ম হয়েছে মোহাম্মদ মোস্তফা এবং সি গ্রুপ থেকে ১ম হয়েছে আবিদ আহমেদ।

এ গ্রুপ থেকে ২য় হয়েছে নাফিজা হাকিম, বি গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে তাসফিয়া ইয়াহইয়া এবং সি গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় হয়েছে হামি হাসান।


এ গ্রুপ থেকে তৃতীয় হয়েছে তাসনিম ইয়াহইয়া, বি গ্রুপ থেকে তৃতীয় হয়েছে সাকিবুল চৌধুরী এবং সি গ্রুপ থেকে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে আজহার হোসেন।

অনুষ্ঠান সহযোগিতায় ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল চৌধুরী, রাজনিিতক আবদুর রহিম বাদশা, উদযাপন কমিটির কোষাধ্যক্ষ এ ইসলাম মামুন, মমতাজ উদ্দিন প্রমুখ।

উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মাওলানা আবুল কাশেম মোহাম্মদ ইয়াহইয়া এবং সদস্য সচিব হাফিজ মাওলানা ওয়াহি আহমেদ চৌধুরী অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার জন্য সকলকে বিশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন