বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বৈশ্বিক তাপমাত্রা কমিয়ে আনতে কপ-২৬ সম্মেলন শেষ সুযোগ : অলোক শর্মা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ নভেম্বর, ২০২১, ৩:৫৮ পিএম

জাতিসংঘের জলবায়ু সম্মেলন কপ-২৬ রোববার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো শহরে অনুষ্ঠিত হয়েছে, যেখানে বিশ্ব নেতারা একত্রিত হয়েছেন। এবারের শীর্ষ সম্মেলনের সভাপতি, ব্রিটিশ মন্ত্রী অলোক শর্মা বলেছেন, এই শতাব্দীর শেষ নাগাদ বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি হার এক-পয়েন্ট-পাঁচ ডিগ্রিতে বা তার নীচে সীমাবদ্ধ রাখতে হলে এখনি পদক্ষেপ নিতে হবে। ব্রিটিশ মন্ত্রী অলোক শর্মা বলছেন, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি কমিয়ে আনতে না পারলে পুরো পৃথিবী যেমন বিপর্যয়ের মুখে পড়বে, তেমনি সমুদ্র সীমা বেড়ে অনেক দেশ পানির নিচে তলিয়ে যাবে। –বিবিসি বাংলা

তিনি বলেন, 'ছয় বছর আগে প্যারিসে আমরা একটি যৌথ লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলাম,' ২০১৫ সালে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বৈশ্বিক উষ্ণতা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনার চুক্তি হয়েছিল। সেখানে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনার চেষ্টার কথা বলা হয়েছিল। ''এক দশমিক পাঁচ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় নামিয়ে আনতে হলে কপ-২৬ হচ্ছে শেষ সুযোগ''। তিনি হুঁশিয়ারি করে বলেন, এই পরিকল্পনা যদি সফল না হয় তাহলে উষ্ণ তাপমাত্রায় পুরো পৃথিবী যেমন বিপর্যয়ের মুখে পড়বে, তেমনি সমুদ্র সীমা বেড়ে অনেক দেশ পানির নিচে তলিয়ে যাবে।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বের তাপমাত্রা যে প্রতিনিয়ত বেড়ে চলছে সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিশ্ব নেতাদের এবারের জলবায়ু সম্মেলনে নানান প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে। একত্রিশে অক্টোবর থেকে ১২ই নভেম্বর পর্যন্ত এই সম্মেলন চলবে। সম্মেলনে দুইশর বেশি দেশের কাছে জানতে চাওয়া হবে, কীভাবে ২০৩০ সালের মধ্যে তারা কার্বন নিঃসরণের মাত্রা কমিয়ে আনতে চান। এই সম্মেলনে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার নানা দিক নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। দু'হাজার পনের সালের সম্মেলনে বৈশ্বিক তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে নামিয়ে আনার ব্যাপারে একমত হয়েছিলেন বিশ্ব নেতারা। সেই সঙ্গে লক্ষ্যমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনার চেষ্টা করা হবে।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, এখন সঠিক পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হলে ক্ষতির শিকার হবে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম । এর আগে ইতালির রোমে জি টুয়েন্টি শীর্ষ সম্মেলনে চূড়ান্ত আলোচনার আগে, ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও ড্রাঘি বলেছিলেন, বিশ্ব নেতাদের এখনই কাজ শুরু করতে হবে। না হলে পরে তাদের চরম মূল্য দিতে হবে। তিনি একে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। সিংহাসনের ব্রিটিশ উত্তরাধিকারী, প্রিন্স চার্লস এই সম্মেলনকে "শেষ ও চূড়ান্ত সুযোগ" হিসাবে বর্ণনা করেছেন। এই সুযোগ কাজে লাগাতে না পারলে ভয়াবহ বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন তিনি। স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো শহরে দুই সপ্তাহের এই সম্মেলনে ২৫ হাজারের বেশি মানুষ অংশ নিয়েছেন।

সম্মেলন থেকে প্রায় দুইশর বেশি দেশকে অনুরোধ করা হবে যেন তারা কার্বন নিঃসরণে আরও উচ্চাকাঙ্ক্ষী লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেন। এবারের সম্মেলনে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার বৃদ্ধি, কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাতিল করা, যতটা সম্ভব কম গাছ কাটা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে যত বেশি সম্ভব মানুষকে রক্ষার বিষয়ে ঘোষণা আসতে পারে। বিশ্বের সবচেয়ে কার্বন নিঃসরণকারী দেশ চীন এবং যুক্তরাষ্ট্র কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমন কমানোর লক্ষ্য পূরণের জন্য লড়াই করে যাচ্ছে। এই জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে দরিদ্র দেশগুলো। তাদের একটি জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে সাহায্য করার জন্য দরিদ্র দেশগুলোকে গ্রিন টেকনোলজি বা পরিবেশ বান্ধব প্রযুক্তি দেয়ার প্রতিশ্রুতি করেছিল ধনী দেশগুলো। কিন্তু এ জন্য যে অর্থ প্রয়োজন ছিল, এই ধনী দেশগুলো তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
jack ali ১ নভেম্বর, ২০২১, ৬:০০ পিএম says : 0
আল্লাহ কোরআনে বলেছেন যে আমি মানুষ সৃষ্টি করেছি কষ্ট করার জন্য আর আমরা তার উল্টো কাজ করছি এমন ভাবে ভোগ করা আরম্ভ করেছি আর এই ভোগের জন্য আজকে সারা পৃথিবী ধ্বংসের মুখে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন