বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

মধ্যপ্রাচ্যে নতুন যুগের সূচনা

তুরস্ক-আমিরাত সম্প্রীতি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

ভাঙা সম্পর্ক মেরামতে তুরস্ক ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) সাম্প্রতিক প্রচেষ্টাকে মধ্যপ্রাচ্য এবং উপসাগরীয় অঞ্চলে রূপ নেয়া নতুন বাস্তবতার সর্বশেষ প্রতিফলন হিসাবে দেখা যেতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, নতুন স্থিতাবস্থার উদ্ভব হওয়ার সাথে সাথে উত্তেজনা এবং দ্ব›দ্ব বাড়ানোর পরিবর্তে সমস্ত আঞ্চলিক শক্তি চায় সহযোগিতার মাধ্যমে তাদের স্বার্থ এবং যুক্তিসঙ্গত লাভকে সর্বাধিক করতে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেপ এরদোগান গত সপ্তাহে আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন। কারণ তুরস্ক এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত তাদের সম্পর্ক মেরামত করতে এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতা বাড়াতে চায়। ক্রাউন প্রিন্সের এই সফর, যাকে আমিরাতের প্রকৃত নেতা এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্র নীতির পেছনের শক্তি হিসেবে দেখা হয়, এটি ছিল ২০১২ সালের পর থেকে তুরস্কে তার প্রথম সরকারি সফর এবং সম্পর্ক তলানিতে আসার পর থেকে একজন আমিরাতি কর্মকর্তার সর্বোচ্চ পর্যায়ের সফর। তুর্কি কর্মকর্তারা ক্রাউন প্রিন্সের সফরকে ‘একটি নতুন যুগের সূচনা’ হিসাবে বর্ণনা করেছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের মিডিয়া বলেছে যে, এই সফর তুরস্ক এবং আরব দেশগুলোর মধ্যে সম্পর্ককে নতুন যুগে নিয়ে যাবে।

কয়েক বছর ধরে আঞ্চলিক প্রতিদ্ব›িদ্বতার পরে মধ্যপ্রাচ্য এবং উপসাগরীয় শক্তিগুলোর মধ্যে উত্তেজনা কমানোর একটি প্রবণতা দেখা যাচ্ছে, যা বিশেষ করে ২০১১ সালে আরব অভ্যুত্থানের পরে নতুন মাত্রায় পৌঁছেছে। এর ফলে উঠতি শক্তির শূন্যতা আঞ্চলিক নেতাদের তাদের অবস্থানের পুনর্ম‚ল্যায়ন করতে বাধ্য করেছে। তদনুসারে, অনেক দেশ বিপর্যস্ত সম্পর্ক সংশোধন করতে এবং ভবিষ্যতের সহযোগিতা নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নিচ্ছে। সাম্প্রতিক তুরস্ক-সংযুক্ত আরব আমিরাতের সম্পর্ক থেকে একটি প্রশ্ন উঠেছে যে, এটিকে এই আঞ্চলিক প্রবণতার আরেকটি উদাহরণ হিসাবে দেখা যায় কিনা। এস্কিহির ওসমানগাজি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাবিদ এবং সেন্টার ফর মিডল ইস্টার্ন স্টাডিজ (ওআরএসএএম) এর বিশেষজ্ঞ মুস্তাফা ইয়েটিম বলেন, আরব অভ্যুত্থানের পরে উদ্ভূত নতুন আঞ্চলিক বাস্তবতা, এই অঞ্চলে এবং ‘ছোট’ উপসাগরে তার সামরিক ব্যস্ততা সীমিত করার মার্কিন সিদ্ধান্ত। দেশগুলোর নিরাপত্তা উদ্বেগ সাম্প্রতিক উপসাগর ভিত্তিক স্বাভাবিককরণ প্রক্রিয়ার প্রধান অনুঘটক ছিল।

নিসান্তাসি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষাবিদ নুরসিন গুনিও নিশ্চিত করেছেন যে, তুরস্ক এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে সাম্প্রতিক সম্পর্ককে এই অঞ্চলে বিস্তৃত প্রবণতার একটি অংশ হিসাবে দেখা যেতে পারে, তবে এটিই একমাত্র কারণ নয়, তিনি বলেছিলেন। আরেকটি কারণ হল, কাতারের উপর সংযুক্ত আরব আমিরাত সহ আঞ্চলিক শক্তি দ্বারা আরোপিত অবরোধ তুলে নেয়া। অবরোধের অবসানের অর্থ এই নয় যে, উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে সমস্ত সমস্যা সমাধান করা হয়েছে, তবে এটি একটি উন্নতি, গুনি বলেন, যা ইতিবাচকভাবে তুরস্ক-ইউএই সম্পর্ককে প্রভাবিত করে। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রশাসনের পরিবর্তনের দিকেও ইঙ্গিত করেছেন যা এই অঞ্চলের গতিশীলতার উপর প্রভাব ফেলছে।

সাম্প্রতিক সফরের সময়, তুরস্ক এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত বাণিজ্য, জ্বালানি এবং পরিবেশ সহ বহু ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। আমিরাত তুরস্কে বিনিয়োগের জন্য ১০ বিলিয়ন ডলার তহবিলও বরাদ্দ করেছে। এরদোগান বলেছেন, সফরের সময় সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাথে করা চুক্তিগুলো দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের নতুন যুগের সূচনা করবে। গুনি এই নতুন প্রবণতার নিরাপত্তা মাত্রার দিকেও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। লিবিয়া, ককেশাস এবং পূর্ব ভূমধ্যসাগর সহ বিভিন্ন অঞ্চলে তুরস্কের ভূ-রাজনৈতিক সাফল্য এবং এর দ্রুত বিকাশমান প্রতিরক্ষা শিল্পের সাথে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোকে আঙ্কারার সাথে আরও ইতিবাচক সম্পর্ক অনুসরণ করতে অনুপ্রাণিত করেছে।

তুরস্কও বছরের পর বছর উত্তেজনার পর, অন্যান্য আঞ্চলিক শক্তির সাথে তীব্র ক‚টনীতির মাধ্যমে তার সম্পর্ক মেরামতের প্রচেষ্টায় নিযুক্ত রয়েছে। এরদোগান পুনর্ব্যক্ত করেছিলেন যে তুরস্ক মিশর এবং উপসাগরীয় দেশগুলোর সাথে সর্বাধিক সহযোগিতার আশা করে। তুরস্ক সউদী আরবের সাথে সম্পর্ক উন্নত করার চেষ্টা করবে, এরদোগান আরও বলেন, মিশরের সাথে সম্পর্কও মন্ত্রী পর্যায়ে চলমান রয়েছে কারণ আঙ্কারার দৃষ্টি আঞ্চলিক নেতাদের সাথে বিচ্ছিন্ন সম্পর্ক সংশোধন করছে। কায়রোর সাথে সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে তুরস্কের পাবলিক ব্রডকাস্টার টিআরটি-তে টেলিভিশন ভাষণে এরদোগান বলেন, ‘এছাড়াও বিভিন্ন উন্নয়ন হতে পারে।’ তিনি উল্লেখ করেন, ‘আমাদের এবং উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতার একটি উল্লেখযোগ্য সম্ভাবনা রয়েছে। আমাদের অর্থনীতি একে অপরের পরিপূরক। আমরা যৌথ বিনিয়োগের সুযোগ হিসাবে পারস্পরিক সুবিধার উপর ভিত্তি করে নতুন সহযোগিতা প্রকল্পগুলোকে দেখি।’

এই বিষয়ে, গুনি সমঝোতার অর্থনৈতিক সম্ভাবনা তুলে ধরেন। তিনি ব্যাখ্যা করেন যে, আঞ্চলিক নেতারা অনেক ক্ষেত্রে উভয় পক্ষের লাভের ভিত্তিতে সহযোগিতা করতে পারে। তিনি বলেন, এই সুযোগগুলো এই অঞ্চলে দ্রুত পরিবর্তনের কারণে নতুন জোটের দিকে নিয়ে যেতে পারে। তদনুসারে, আঞ্চলিক নেতারা কঠোর আদর্শিক নীতির পরিবর্তে তাদের স্বার্থের ভিত্তিতে নতুন জোট এবং অংশীদারিত্ব পছন্দ করে। তিনি যোগ করেন, যখন পারস্পরিক লাভ এবং সুযোগ থাকে, তখন পরিস্থিতির পরিবর্তন অন্যান্য দেশের অবস্থানকেও প্রভাবিত করতে পারে।

গুনি বলেন, ‘এই দেশগুলো তুরস্ককে ধারণ করার চেষ্টা করেছিল এবং একটি তুরস্ক বিরোধী জোট গঠন করা হয়েছিল। কিন্তু, এটি অনমনীয় আদর্শিক ভিত্তির উপর ভিত্তি করে সৃষ্ট জোট ছিল না। সমস্ত দেশ তাদের নিজস্ব স্বার্থে কাজ করে। দলগুলো তাদের স্বার্থের ক্ষেত্রে বৈচিত্র্য আনার চেষ্টা করে।’ তিনি উল্লেখ করেন, তুরস্ক বারবার ব্যক্ত করেছে যে, আন্তর্জাতিক আইন ও নীতি লঙ্ঘন করে তার অধিকার ও স্বার্থে আঘাত না করা পর্যন্ত তারা ইতিবাচক পদক্ষেপ নিতে এবং পারস্পরিক লাভের মাধ্যমে সকল দেশের সাথে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত। সূত্র : ডেইলি সাবাহ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
টুটুল ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১, ৩:২৭ এএম says : 0
এটা মুসলীম বিশ্বের জন্য খুবই ভালো খবর
Total Reply(0)
Mr Zakir hossain ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১, ৬:৪৫ এএম says : 0
Very good
Total Reply(0)
Eyasin Arafat ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:৪১ পিএম says : 0
মন থেকে দোয়া রইল তুরস্কের জন্য, আল্লাহ্ যেন তুর্কিকে হেফাজত করেন আমিন
Total Reply(0)
Khandker Rashid ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:৪২ পিএম says : 0
In shaa Allah Turkey will capture whole Europe.
Total Reply(0)
ইলিয়াস ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:৪২ পিএম says : 0
সকল মুসলমানরা ঐক্যবদ্ধ হলে মধ্য প্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে
Total Reply(0)
Sahab Uddin ১৪ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:৪৪ পিএম says : 0
প্রতিটি মুসলিম দেশ গুলোর উচিত এরদোয়ানের সংঘ দেয়া। এক হওয়া।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন