বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৪ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

আফ্রিদির মাথায় বর্ষসেরার মুকুট

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

২০২১ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে নিউজিল্যান্ড। কিন্তু আইসিসির পুরস্কারপ্রাপ্তির তালিকায় জয়জয়কার পাকিস্তানের। টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডের বর্ষসেরা ক্রিকেটার হয়েছেন পাকিস্তানের মোহাম্মদ রিজওয়ান ও বাবর। তবে আইসিসির মূল পুরস্কার তো বর্ষসেরার স্যার গারফিল্ড সোবার্স ট্রফি। আর টেস্টে রান বন্যা বইয়ে দেওয়া জো রুট, টি-টোয়েন্টিতে স্বপ্নের মতো বছর কাটানো রিজওয়ান ও নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে পেছনে ফেলে ২০২১ সালে আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার জিতেছেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। পাকিস্তানের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে এই সম্মাননা পেলেন বাঁহাতি এই পেসার। মেয়েদের বর্ষসেরা ক্রিকেটার হয়েছেন ভারতের স্মৃতি মান্দানা। ২০২১ সালে ২২টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে তার রান ৮৫৫। বর্ষসেরা আম্পায়ারের পুরস্কার পেয়েছেন মারায়াস এরাসমান।
পাকিস্তানকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে তোলা আফ্রিদি ৬ ম্যাচে ৭ উইকেট পেয়েছেন। আর সব মিলিয়ে বছরে ২১ ম্যাচে ২৩ উইকেট পেয়েছেন। টেস্ট ক্রিকেটে তার পারফরম্যান্স ছিল চোখধাঁধানো। বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডে খুব বাজে পারফরম্যান্সের সুবাদে সমালোচনার শিকার হওয়া শাহিন বছর শেষ করেছেন ৪৭ উইকেট নিয়ে। ১৭.০৬- এর মতো ঈর্ষণীয় গড়ে নেওয়া ৪৭ উইকেট পেয়েছেন মাত্র ৯ ম্যাচ খেলেই। ২০২১ সালে ওয়ানডে নিয়ে ব্যস্ততা ছিল খুব কম দলের। শাহিন আফ্রিদি ৬ ম্যাচ খেলে পেয়েছিলেন ৮ উইকেট।
২১ বছর বয়সেই আইসিসির বর্ষসেরা ক্রিকেটার হয়েছেন শাহিন আফ্রিদি। এত কম বয়সে এই অর্জন আর কারও নেই। সাফল্যের রহস্য কি? আইসিসিকে আফ্রিদি বলেছেন, ‘পাকিস্তানের হয়ে ভালো করতে চেয়েছি। ২০২১ সালে আমাদের দল খুব ভালো করেছে। আমরা ভালো কিছু ম্যাচ খেলেছি। পাকিস্তানের হয়ে সব সময়ই ভালো করতে চেষ্টা করি এবং এ চেষ্টা চালিয়ে যাব।’ বর্ষসেরা হয়ে তৃপ্ত আফ্রিদি, তবে এমন পারফরম্যান্স নিয়মিতই দেখাতে চান দীর্ঘদেহী এই পেসার, ‘দলে একে অপরকে সবাই সমর্থন দিই। আমরা খুব একতাবদ্ধ এবং সতীর্থদের ভালো করতে দেখলে খুব খুশি হই। আমার জন্য দারুণ এক বছর ছিল এবং আশা করি, ২০২২ সালেও এমন ভালো পারফরম্যান্স দেখবেন আপনারা।’
আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটার হওয়ার লড়াইয়ে সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলেন সাকিব আল হাসান। তবে শেষ পর্যন্ত স্বীকৃতিটা পেলেন না তিনি। বছর জুড়ে ধারাবাহিক রান করায় পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজমকে বর্ষসেরা পুরুষ ওয়ানডে ক্রিকেটার হিসেবে নির্বাচিত করেছে আইসিসি। ২০২১ সালের বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটার হওয়ার লড়াইয়ে সাকিব-বাবরের পাশাপাশি ছিলেন আয়ারল্যান্ডের পল স্টার্লিং ও দক্ষিণ আফ্রিকার ইয়ানেমান মালান। গতকাল আইসিসি তাদের মধ্যে থেকে সেরা হিসেবে বেছে নেয় বাবরকে। বর্ষসেরা নারী ওয়ানডে ক্রিকেটার হয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার লিজলি লি।
গত বছর ৬ ম্যাচ খেলে ৬৭.৫০ গড়ে ৪০৫ রান করেন বাবর। তার ব্যাট থেকে আসে ২ সেঞ্চুরি। বছরে মাত্র ৬ ম্যাচ খেললে পাকিস্তানের দুই সিরিজ জয়ে রাখেন ভূমিকা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ জয়ে ২২৮ রান করেন বাবর। ওই সিরিজে ২৭৪ রান তাড়ায় পাকিস্তান জিতে বাবরের সেঞ্চুরিতেই। শেষ ওয়ানডেতে তার ৮২ বলে ৯৪ রানের ইনিংসে ভর করে ৩২০ রান তাড়া করে জেতে পাকিস্তান। ইংল্যান্ডে গিয়ে পাকিস্তান ওয়ানডে সিরিজ হারে ৩-০ ব্যবধানে। সেই সিরিজেও দলের বাকিদের রান খরায় উজ্জ্বল ছিলেন বাবর। ৩ ম্যাচে তার ব্যাট থেকে আসে ১৭৭ রান। দলের বাকি কেউ আর ১০০ রানও করতে পারেননি।
সেরার স্বীকৃতি পেয়ে পাকিস্তান অধিনায়ক ধন্যবাদ জানিয়েছেন সবাইকে, ‘প্রথমেই আমি সমর্থকদের ধন্যবাদ জানাই আমাকে সমর্থন করার জন্য। এরপর আইসিসি, পিসিবিকেও ধন্যবাদ দিব। বিশেষ ধন্যবাদ পাকিস্তান দলকে। তাদের সমর্থন ছাড়া আমার এই অর্জন সম্ভব হতো না। আমি আবার বাবা-মাকেও ধন্যবাদ দিব।’ বছর জুড়ে সব ইনিংসের মধ্যে সেরা হিসেবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বার্মিংহামে করা সেঞ্চুরি বেছে নিয়েছেন বাবর, ‘এই বছরে আমার সেরা ইনিংস ইংল্যান্ডের বিপক্ষে করা ১৫৮ রান, যেটা আমার সর্বোচ্চ ইনিংসও। ওইদিন শুরুতে কিছুটা সংগ্রাম করেছিলাম, পরে সামলে নিয়ে আত্মবিশ্বাস পাই। দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে সেখানে জেতাও বড় ঘটনা ছিল।’
এদিকে, গত বছর টেস্ট ক্রিকেটে খুব একটা ভালো সময় যায়নি ইংল্যান্ডের। তবে দলের হতশ্রী দশার মাঝেও অবিশ্বাস্য ধারাবাহিক ছিলেন অধিনায়ক জো রুট। সেই ধারাবাহিকতারই পুরস্কার পেয়েছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে তাকে নির্বাচন করেছে আইসিসি। ২০২১ সালে ১৫ ম্যাচে ৬ সেঞ্চুরিতে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৭০৮ রান করেন রুট। এক পঞ্জিকা বর্ষে ১৭০০ রানের বেশি করা ইতিহাসের মাত্র তৃতীয় ব্যাটসম্যান তিনি। এক বছরে সর্বোচ্চ রান করায় তার উপরে আছেন কেবল পাকিস্তানের মোহাম্মদ ইউসূফ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্যার ভিভ রিচার্ডস।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন