ঢাকা বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮ আশ্বিন ১৪২৭, ০৫ সফর ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

দ্বিতীয় পর্বে উড়ন্ত সূচনা আরামবাগের

প্রকাশের সময় : ২ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস রিপোর্টার : ঘরোয়া ফুটবলের মর্যাদাপূর্ণ আসর জেবি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (জেবি বিপিএল)’র দ্বিতীয় পর্বে উড়ন্ত সূচনা করেছে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ। গতকাল বিকালে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে এই পর্বের প্রথম ম্যাচে আরামবাগ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে ২-০ গোলে হারিয়ে চমক দেখাল। বিজয়ী দলের হয়ে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার থিয়াগো টাইসন ও স্থানীয় মিডফিল্ডার মোঃ আব্দুল্লাহ একটি কাে গোল করেন। লিগের প্রথম পর্বে দু’দলের লড়াইটি ১-১ গোলে অমীমাংসিতভাবে শেষ হয়েছিল। এই জয়ের ফলে আরামবাগ ১২ ম্যাচ শেষে ১৬ পয়েন্ট পেলেও তালিকার ষষ্ঠ স্থানেই রয়ে গেল। হারলেও সমান ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে আগের অবস্থানেই (চতুর্থ) থাকলো শেখ জামাল।
জেবি বিপিএলের দ্বিতীয়পর্বে স্টেডিয়ামে দর্শক টানতে বিভিন্ন রকম উদ্যোগ গ্রহণ করেছে লিগের পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান। তারা ফ্রি টিকিটে দর্শকদের খেলা দেখার পাশাপাশি ওই টিকিটের নম্বর থেকে র‌্যাফেল ড্রয়ের মাধ্যমে মটর সাইকেল, এলইডি টিভির মতো অসংখ্য আকর্ষণীয় পুরস্কার দেয়ার ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু তারপরও আরামবাগ-শেখ জামাল ম্যাচে উল্লেখ করার মতো দর্শক সমাগম ঘটেনি।
প্রথম পর্বে আরামবাগের বিপক্ষে পয়েন্ট খোয়ানো শেখ জামালের প্রত্যাশা ছিল দ্বিতীয় পর্বে ঠিকই ঘুরে দাঁড়াবে তারা। কিন্তু ওয়েডসন ফিরে যাওয়ায় আর এমেকা ডালিংটনের কার্ড সমস্যা থাকায় বিদেশি নির্ভর শেখ জামালের কাল একমাত্র ভরসা ছিলেন ল্যান্ডিং ডার্বোয়ে। তবে দলে নতুন যোগ হওয়া গাম্বিয়ান মালিক ম্যান্ডি এবং নাইজেরিয়ান মাইক অতোজারেরি নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হন এদিন। ফলে বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিল আরামবাগই। কিন্তু তারপরও গোলের প্রথম সুযোগটা পায় শেখ জামালই। ১৯ মিনিটে আরামবাগ ডি-বক্সের প্রায় পনের গজ দূর থেকে ফ্রি কিক নিয়েছিলেন জামালের গামবিয়ান মিডফিল্ডার ল্যান্ডিং ডার্বোয়ে। কিন্তু তার শট অল্পের জন্য জালে জড়ায়নি। পরের মিনিটেই ম্যাচের সব থেকে সহজ সুযোগ হাতছাড়া করে আরামবাগ। এসময় মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে জামাল রক্ষণভাগে ঢুকে আড়াআড়ি বল দিয়েছিলেন ফরোয়ার্ড সাজিদুর রহমান সাজিদ। উদ্দেশ্য ছিল ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার থিয়াগো টাইসন। পোস্টের নিচে জামাল গোলরক্ষক সুজন হোসেন একা থাকলেও টাইসন বল মারেন বাইরে। ২১ মিনিটেই জামালের গাম্বিয়ান মিডফিল্ডার ল্যান্ডিং ডার্বোয়ে পাল্টা আক্রমণে গিয়ে শট নেন। কিন্তু তার শট ক্রসবারের সামান্য উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। নিয়মিতই পাল্টা আক্রমণে ছিলো আরামবাগও। ফলে ম্যাচের ৪১ মিনিটে তারা এগিয়ে যায়। এসময় রবিউল হাসানের কর্নার ফিস্ট করেছিলেন জামাল গোলরক্ষক সুজন হোসেন। ক্লিয়ার হয়নি বল, জামালের একজন ডিফেন্ডার ভলি শটে বল বিপদমুক্ত করতে গিয়ে দেখেন থিয়াগো টাইসনের বুকে লেগে বল আশ্রয় নেয় জালে (১-০)। এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় আরামবাগ।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে গোল শোধে মরিয়া হয়ে ওঠে শেখ জামাল। ৪৮ মিনিটে জামাল ফরোয়ার্ড সারওয়ার জামান নিপু একা পেয়ে যান আরামবাগ গোলরক্ষক মিতুল হাসানকে। তবে তার শট ঝাঁপিয়ে পড়ে বিপদমুক্ত করেন মিতুল। সমতা আনা দূরের কথা, উল্টো দ্বিতীয় গোল হজম করে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচের ৫৯ মিনিটে আরামবাগের ক্যামেরুনের মিডফিল্ডার ইয়োকো সামনিকের থ্রু পাসে বল পেয়ে মিডফিল্ডার আবদুল্লাহ প্লেসিং শটে গোল করে ব্যবধান বাড়ান (২-০)। ৭২ মিনিটে বক্সেও ভেতর থেকে আবদুল্লাহ যে বাঁকানো ফ্রি-কিক করেছিলেন তা বারে না লাগলে তিন গোলেই এগিয়ে যেত আরামবাগ। নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে ল্যান্ডিং ডারবোকে বক্সের মাঝে আরামবাগ ডিফেন্ডার বাদশা মিয়া ফাউল করলে পেনাল্টি পায় জামাল। কিন্তু মাইক অটোজারেরির স্পট কিক আটকে দিয়ে দলকে গোল হজমের হাত থেকে রক্ষা করেন আরামবাগ গোলরক্ষক ও অধিনায়ক মিতুল হাসান। ফলে এক গোল শোধ দেয়া আর হয় না শেখ জামালের। শেষ পর্যন্ত ২-০ ব্যবধারের হারেই মাঠ ছাড়ে তারা। এদিকে একই মাঠে সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে উত্তর বারিধারা ক্লাবের বিপক্ষে ৩-০ গোলে হেরেছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। লিগের প্রথম পর্বে এই বারিধার কাছেই ১-০ গোলে হেরেছিলো তারা। এই জয়ের ফলে ১২ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার এগারতম স্থানে উঠে এলো বারিধারা। সমান ম্যাচে ৮ পয়েন্ট পেয়ে শেখ রাসেলের জায়গা হলো সবার শেষে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন