শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯, ০১ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

মারিউপোলে নিরঙ্কুশ বিজয়ে লক্ষ্য পূরণ হলো রাশিয়ার

বন্দী যোদ্ধাদের বিনিময় করবে না রাশিয়া ইউক্রেনের সাথে এখন কোনো বিন্যাসে আলোচনা চলছে না : রাশিয়া ষ ইউক্রেনের যুদ্ধে আইএস’র যোদ্ধাদের নিয়োগ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০২২, ১২:০৬ এএম

মারিউপোলের ইস্পাত কারখানায় অবস্থান নেয়া ইউক্রেনীয় সেনারা অবশেষে আত্মসমর্পণ করেছে। এর মাধ্যমে ইউক্রেনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর শহরটির উপর নিরঙ্কুশ নিয়ন্ত্রণ পেল রাশিয়া। এটি ইউক্রেনে অভিযান শুরুর পর রাশিয়ার জন্য এখন অবধি সবচেয়ে অর্জন। এদিকে, অ্যাজোভস্টাল স্টিলওয়ার্কস থেকে আটক সেনাদের আপাতত মুক্তি দিচ্ছে না রাশিয়া। ইউক্রেন দাবি করেছিল, আটক যোদ্ধাদের বন্দী বিনিময়ের মাধ্যমে কিয়েভের হাতে তুলে দেবে রাশিয়া। কিন্তু রাশিয়া সেই সম্ভাবনা নাকচ বরেছে।

আজভ সাগরের উপর অবস্থিত মারিউপোলে রাশিয়ার অভিযানের আগে ৪ লাখেরও বেশি মানুষ বসবাস করতেন। এটি দখল করা রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের প্রচারের কেন্দ্রবিন্দু ছিল। কারণ তিনি ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রণ থেকে রাশিয়ান ভাষাভাষীদের ‘মুক্ত’ করার চেষ্টা করছেন। পুরো যুদ্ধের সময় ধরে শহরটি রাশিয়ার অবরোধের মধ্যে ছিল। পুতিন গত মাসে মারিউপোলকে ‘মুক্ত’ ঘোষণা করেছিলেন এবং বিশেষজ্ঞরা তখন বলেছিলেন, স্টিল প্ল্যান্টের হোল্ডআউট ছাড়াও, শহরটি ইতিমধ্যেই রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ছিল। কিন্তু এই বাহিনীর আত্মসমর্পণ এখনও রাশিয়াকে একটি বিজয় প্রদান করে, বিশেষ করে ক্রেমলিন যখন ইউক্রেনের পূর্ব এবং দক্ষিণে অঞ্চলকে একীভূত করতে চায়।

ইউক্রেন, বিশেষত ২০১৪ সালেন পরে, মারিউপোলকে রাশিয়ার আক্রমণের বিরুদ্ধে প্রয়োজন হতে পারে এমন যে কোনও ধরণের প্রতিরক্ষার চাবিকাঠি হিসাবে দেখেছিল। ইন্সটিটিউট ফর দ্য স্টাডি অফ ওয়ার এর প্রধান রাশিয়ার বিশ্লেষক মেসন ক্লার্ক বলেছেন, ‘ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী গত আট বছর ধরে এটিকে রক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিল।’ অবরোধ শেষ হওয়ার সাথে সাথে এটি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, ইউক্রেনীয় সামরিক বাহিনী শহরের প্রতিরক্ষায় প্রচুর সম্পদ বিনিয়োগ করেছে, যার কারণে এটি কয়েক সপ্তাহের রাশিয়ান বোমাবর্ষণ সহ্য করতে সক্ষম করেছে। রাশিয়া বলেছে যে তারা ডনবাস এবং দক্ষিণ ইউক্রেনের ‘সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ’ চায় এবং মারিউপোল রাশিয়াকে পূর্ব থেকে ক্রিমিয়ান উপদ্বীপ পর্যন্ত ইউক্রেনের এই অংশটি তৈরি করতে সহায়তা করে। ইউক্রেনের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলীয় বন্দরনগরী মারিউপোলের অবস্থান মানচিত্রের খুব অল্প অংশজুড়ে হলেও রাশিয়ার ইউক্রেন অভিযানে আজভ সাগর তীরবর্তী এ বাণিজ্য কেন্দ্রটির গুরুত্ব অপরিসীম।

এটি ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে রুশপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ন্ত্রণে থাকা এলাকাগুলোর সঙ্গে রাশিয়ার অধিগ্রহণ করা ক্রাইমিয়াকে সংযোগকারী স্থল পথের ওপর অবস্থিত হওয়ায় সামরিক কৌশলগতভাবে শহরটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মারিউপোলের নিয়ন্ত্রণ পাওয়ায় স্থলপথে ক্রাইমিয়া যেতে রাশিয়াকে আর কোনো ধরনের বাধার মুখেই পড়তে হবে না। কৃষ্ণসাগরের উপদ্বীপটিতে থাকা রুশ সেনারাও এখন ডনবাস বা ওডেসার দিকে অভিযানে যুক্ত হতে পারবে। এর মাধ্যমে ইউক্রেনের কৃষ্ণসাগর উপকূলরেখার ৮০ শতাংশ রাশিয়ার হস্তগত হয়েছে।

মারিউপোলের বন্দরটি মধ্যপ্রাচ্য ও অন্যত্র ইস্পাত, কয়লা ও গম রপ্তানির গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র হওয়ায় এর নিয়ন্ত্রণ নেয়ায় রাশিয়া বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হবে; বিপদে পড়বে ইউক্রেন। ইউক্রেনের মিলিশিয়া ইউনিট আজভ ব্রিগেডের সদরদপ্তর হওয়ায় এই শহরের নিয়ন্ত্রণ নেয়া অভিযানের শুরু থেকেই রাশিয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। মস্কো ইউক্রেইনকে ‘নাৎসিমুক্ত’ করার যে ঘোষণা দেয়, তা আজভ ও ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর কট্টর ডানপন্থি অংশকে লক্ষ্য করেই দেয়া বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।

বন্দী যোদ্ধাদের ইউক্রেনের সাথে বিনিময় করবে না রাশিয়া : অ্যাজোভস্টাল স্টিলওয়ার্কস থেকে বন্দী করা সেনারা ইউক্রেনের ‘এলিট ফোর্সের’ অংশ। রাশিয়া তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ এনেছে। তারা মনে করে, রাশিয়ার ঘাড়ে দোষ চাপানোর জন্য এ সেনারা কিয়েভের নির্দেশে স্থানীয়দের হত্যায় জড়িত ছিল। যার কারণে তাদেরকে নিয়ে তদন্ত করতে চায় রুশ কর্তৃপক্ষ। এর ফলে উদ্বেগে পড়েছে ইউক্রেনের সরকার।

ইউক্রেনের দাবি, এ সপ্তাহের শুরুতে মস্কো আজভ রেজিমেন্টের শত শত সদস্যকে বিনিময় করতে সম্মত হয়েছিল। যদিও রাশিয়ার সংসদ এখন ঘোষণা করেছে যে, তারা ‘নাৎসি যুদ্ধাপরাধীদের বিনিময় রোধ করার’ একটি প্রস্তাবে ভোট দেবে - কিছু সদস্য আজভ সৈন্যদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার আহ্বান জানিয়েছেন। ইউক্রেনের ডেপুটি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হান্না মালিয়ার হুমকিগুলিকে ‘অভ্যন্তরীণ প্রচারণা’ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন, যোগ করেছেন যে ‘একটি বিনিময় প্রক্রিয়া হবে’ কারণ কিয়েভ ৮০ দিনেরও বেশি সময় পরে স্টিলওয়ার্কগুলি পরিত্যাগ করেছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা এই পদক্ষেপকে ‘আন্ডারহ্যান্ড’ বলে নিন্দা করেছেন এবং দাবি করেছেন যে, এটি ৬০০ সৈন্যকে মুক্ত করার ইউক্রেনের প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করতে পারে - যাদের মধ্যে কিছু এখনও মারিউপোলের প্ল্যান্টে রয়েছে।

সোমবার অন্তত ২৫০ জন আজভ যোদ্ধাকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েছেন। অজানা সংখ্যক ইউক্রেনীয় সৈন্য বহনকারী সাতটি বাসও রাতে প্ল্যান্ট ছেড়ে গেছে। তবে তারা সবাই রুশ-অধিকৃত ইউক্রেনীয় ভূখণ্ডের অভ্যন্তরে রয়ে গেছে। রাশিয়ার পার্লামেন্টের চেয়ারম্যান ভ্যাচেসøাভ ভোলোদিন জোর দিয়েছিলেন যে, আজভ সদস্যদের বন্দী বিনিময় চুক্তি থেকে বাদ দেয়া উচিত। তিনি আরও বলেন, ‘তারা যুদ্ধাপরাধী এবং তাদের বিচারের আওতায় আনার জন্য আমাদের সবকিছু করতে হবে।’

রাশিয়ান পার্লামেন্টের ওয়েবসাইটে একটি পোস্ট অনুসারে, তিনি প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা কমিটিকে সেই প্রস্তাবের জন্য খসড়া আইন প্রস্তুত করার নির্দেশ দিয়েছেন। সহকর্মী এমপি লিওনিড সøুটস্কি, ইউক্রেনের সাথে স্থগিত শান্তি আলোচনায় একজন রাশিয়ান আলোচক, সরিয়ে নেয়া সৈন্যদের ‘মানুষের আকারে প্রাণী’ হিসাবে চিহ্নিত করেছেন এবং তাদের বিচার ও মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আহ্বান জানিয়েছেন। ‘তারা মানবতার বিরুদ্ধে যে ভয়ঙ্কর অপরাধ করেছে এবং আমাদের বন্দীদের বিরুদ্ধে ক্রমাগত সংঘটিত হচ্ছে তার পরে বেঁচে থাকার যোগ্য নয়,’ রাজনীতিবিদ যোগ করেছেন। সোমবার গভীর রাতে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে, রাশিয়ান তদন্তকারীরা ইউক্রেনীয় যোদ্ধাদের শনাক্ত করতে এবং ‘বেসামরিকদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধে তাদের সম্পৃক্ততা পরীক্ষা করার’ জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

চেচনিয়ার প্রধান রমজান কাদিরভও গতকাল বলেছেন যে, ইউক্রেনের যুদ্ধবন্দীদের সাথে বন্দী রুশ সেনাদের বিনিময় করা যেতে পারে তবে আজভ ব্যাটালিয়নের কট্টরপন্থা অনুসারীদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘সামরিক চাকুরিজীবীদের বিনিময় করা যেতে পারে কিন্তু সেই কট্টরপন্থীদের কোনোভাবেই বিনিময় করা উচিত নয়,’ তিনি সাংবাদিকদের বলেন। ‘আইন দ্বারা নির্ধারিত হিসাবে তাদের শাস্তি হওয়া উচিত।’ তবে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন গ্যারান্টি দিয়েছেন যে আত্মসমর্পণকারী যোদ্ধাদের সাথে ‘আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী’ আচরণ করা হবে।

ইউক্রেনের সাথে এখন কোন বিন্যাসে আলোচনা চলছে না : রাশিয়ান-ইউক্রেন আলোচনা এখন একটি অচলাবস্থার মধ্যে রয়েছে এবং কোন বিন্যাসে পরিচালিত হচ্ছে না। রাশিয়ান আলোচক এবং বিশিষ্ট আইন প্রণেতা লিওনিড সøুটস্কি মঙ্গলবার তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে বলেছেন। ‘আমি নিশ্চিত যে (ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির) জেলেনস্কির ওয়াশিংটনের কিউরেটররা আলোচনায় অচলাবস্থার জন্য গুরুত্ব সহকারে অবদান রেখেছেন, যেটি ইউক্রেনের অনুরোধে ২৮ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়েছিল এবং এখন কোনো বিন্যাসে পরিচালিত হচ্ছে না,’ বলেছেন সøুটস্কি, যিনি রাষ্ট্রীয় ডুমা (নিম্ন কক্ষ) পররাষ্ট্র বিষয়ক কমিটির সভাপতিত্ব করছেন।

ইউক্রেনের যুদ্ধে আইএস’র যোদ্ধাদের নিয়োগ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সক্রিয়ভাবে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (রাশিয়ায় নিষিদ্ধ) যোদ্ধাদের ভাড়াটে হিসাবে ইউক্রেনের যুদ্ধে নিয়োগের চেষ্টা করছে। রাশিয়ার বিদেশী গোয়েন্দা পরিষেবা এসভিআর-এর প্রেস ব্যুরো প্রধান সের্গেই ইভানভ মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছেন।

ইভানভ বলেন, ‘বিদেশী গোয়েন্দা সংস্থার সূত্র অনুসারে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সক্রিয়ভাবে রাশিয়ায় নিষিদ্ধ ইসলামিক স্টেট গোষ্ঠী সহ আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠনের সদস্যদেরকে ভাড়াটে হিসাবে ইউক্রেনের পক্ষে অংশগ্রহণের জন্য আকৃষ্ট করছে।’ তিনি জানান, ২০২২ সালের এপ্রিলে সিরিয়ার কুর্দি নিয়ন্ত্রিত কারাগার থেকে ২০-২৫ বছর বয়সী প্রায় ৬০ জন ইসলামিক স্টেট জঙ্গিকে মুক্তি দেয়ার ক্ষেত্রে মার্কিন গোপন পরিষেবাগুলো ভূমিকা পালন করেছিল। জঙ্গিদের তখন সিরিয়ায় মার্কিন সামরিক ঘাঁটি আল-তানফের এলাকায়, জর্ডান এবং ইরাকের সীমান্তের কাছে, যুদ্ধ প্রশিক্ষণ এবং শেষ পর্যন্ত ইউক্রেনে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল।

এসভিআর-এর সূত্র অনুসারে, পূর্বোক্ত সামরিক ঘাঁটি এবং এর পরিবেশগুলো দীর্ঘদিন ধরে একটি সন্ত্রাসী কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, যেখানে ৫০০ পর্যন্ত ইসলামিক স্টেট জঙ্গি এবং ওয়াশিংটনের অনুগত অন্যান্য যোদ্ধারা একই সাথে পুনরায় প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। ইভানভ জোর দিয়ে বলেছিলেন যে, দক্ষিণ ককেশাস- এবং মধ্য এশিয়ায় জন্ম নেয়া আদিবাসীদের অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। মুখপাত্র বলেন, ‘তাদের বিশেষ গোষ্ঠীগুলোকে বেশিরভাগই সিরিয়ায় এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার বাহিনীর বিরুদ্ধে নাশকতার কাজ চালানোর দায়িত্ব দেয়া হয়।’ আল-তানফ-এ প্রশিক্ষণের কোর্সে, তিনি জোর বলেছিলেন, উপলব্ধ ধরনের অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল সিস্টেম, রিকনেসান্স এবং অ্যাটাক ড্রোন এমকিউ-১সি এবং ফরোয়ার্ড কমিউনিকেশন এবং পর্যবেক্ষণের উপায়গুলোর ব্যবহারের নির্দেশনা অন্তর্ভুক্ত করে।

ইভানভ বলেন, ‘উপরের তথ্যগুলি ইঙ্গিত করে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার ভূ-রাজনৈতিক লক্ষ্যগুলির অনুসরণে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলির পৃষ্ঠপোষকতা সহ কোনও উপায়ই ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকে না।’ তিনি বলেন, ‘ইউরোপীয় মিত্রদের নিরাপত্তা এবং মার্কিন নাগরিকদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে থাকলেও বাইডেন প্রশাসন এর প্রভাবের দিকে খেয়াল রাখে না।’ সূত্র : তাস, দ্য গার্ডিয়ান, ভিওএক্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
আনিছ ১৯ মে, ২০২২, ১:৪১ এএম says : 0
ইউক্রেনও রাশিয়ার যুদ্ধে শেষে রাশিয়ার জয় হবে
Total Reply(0)
আকিব ১৯ মে, ২০২২, ১:৪৩ এএম says : 0
রাশিয়া একটা সময় বিশ্বের পরাশক্তি হবে
Total Reply(0)
আহমদ ১৯ মে, ২০২২, ১:৫৩ এএম says : 0
ইউক্রেন রাশিয়ার সাথে যুদ্ধ করে জয়ী হবে এমনটা ভাবা মুর্খতার মতো। কারণ ইউক্রেনের কাছে রাশিয়ার সাথে পাল্লা দিয়ে যুদ্ধে লড়াই করা এমন কোনো কিছুই নেই। তারা এ রাশিয়ার সাথে যুদ্ধে লেগে ভুল করেছে
Total Reply(1)
Mohiuddin Ahmed ১৯ মে, ২০২২, ৮:৩৯ এএম says : 0
Vai you are right
আলিফ ১৯ মে, ২০২২, ১:৫৪ এএম says : 0
সুন্দর নিউজ লেখেছেন ভাই
Total Reply(0)
Jafor iqbal ১৯ মে, ২০২২, ১০:৪৮ এএম says : 0
Bhai jugantor ki ucraina agent
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps