মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

দক্ষিণ ইউক্রেনে অর্থনৈতিক নিয়ন্ত্রণ শক্ত করেছে মস্কো

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রধান শহর অবরোধে যাচ্ছে রাশিয়ান বাহিনী রুশ অভিযানে ৫০ হাজার ইউক্রেন সেনা নিহত হয়েছে এলপিআর বাহিনী সপ্তাহান্তে লিসিচানস্ক মুক্তির আশা করছে যুক্তরাজ্য ফ্রান্

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০২২, ১২:০৩ এএম

দেখা যাচ্ছে যে, ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর বার্দিয়ানস্কের একটি ফাউন্ড্রির প্রধান আলেক্সি আন্দ্রুসেঙ্কোর জন্য সামান্য পরিবর্তন হয়েছে, যিনি মস্কো এই শহরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকে তার সমস্ত কর্মচারীকে ছাঁটাই করতে পেরে খুশি।
আন্দ্রুসেঙ্কো এবং তার ৫০ বা তার বেশি কর্মচারী আজভ সাগরের তীরে বন্দর শহরের উপকণ্ঠে ধূসর বিল্ডিংয়ে প্রতিদিন সকালে কাজ চালিয়ে যেতেন। কিন্তু কারখানার পণ্য যা আগে ইউক্রেনীয় বা আন্তর্জাতিক ইস্পাত গ্রুপের কাছে বিক্রি করা হত এখন রাশিয়া এবং ক্রেমলিন মিত্র বেলারুশের মধ্যে সীমাবদ্ধ হবে।
রাশিয়া ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সৈন্য পাঠিয়ে পশ্চিমাপন্থী দেশটির দক্ষিণে অঞ্চলগুলো দখল করেছে এবং মস্কো এখন তার অর্থনৈতিক কর্তৃত্ব জোরদারের চেষ্টা করেছে।
রাশিয়ান সামরিক বাহিনীর আয়োজিত একটি প্রেস পরিদর্শনের সময় এজেন্স ফ্রান্স-প্রেস (এএফপি)কে আন্দ্রুসেঙ্কো বলেছেন, ‘আমাদের অন্য কোন সরবরাহ চেইন নেই’। তিনি তার কাঁচামালের ক্রমহ্রাসমান মজুদ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন, যা পূর্বে আজভ সাগর উপকূলে রাশিয়ার দখলে থাকা আরেকটি প্রধান ইউক্রেনীয় শহর প্রতিবেশী মারিউপোল থেকে আসতো।
আন্দ্রুসেঙ্কো বলেছেন যে, তিনি ১০ হাজারেরও বেশি শ্রমিকের বড় কারখানা যা ২০১৪ সাল থেকে পূর্ব ইউক্রেনের লুহানস্ক অঞ্চলে রাশিয়াপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে সেই আলচেভস্ক স্টিলওয়ার্কসের সাথে কাজ করতে ‘আগ্রহী’। রাশিয়া ইউক্রেনে সৈন্য পাঠানোর আগে এসব চুক্তি কখনোই সম্ভব হত না।
আন্দ্রুসেঙ্কো বলেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সঠিক সরবরাহ শৃঙ্খল তৈরি করা এবং কাজ করতে সক্ষম হওয়া’।
পোর্ট ‘শতভাগ প্রস্তুত’ : মস্কোর সামরিক অভিযানের প্রথম সপ্তাহ থেকে খেরসন এবং জাপোরিঝার দক্ষিণ ইউক্রেনীয় অঞ্চলগুলো মূলত রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং এখন রাশিয়ার অর্থনীতিতে একীভূত হচ্ছে। বার্দিয়ানস্কের প্রধান অর্থনৈতিক সম্পদ হল এর বন্দর, যা মারিউপোলের বিপরীতে, বেশিরভাগই অক্ষত রয়েছে।
মার্চের শেষের দিকে ইউক্রেনীয় বাহিনীকে দায়ী করা একটি আক্রমণ বার্দিয়ানস্কের পানিসীমায় একটি রাশিয়ান যুদ্ধজাহাজ ডুবিয়ে দেয়, তবে আজ বন্দরটি শস্য জাহাজের জন্য ‘প্রায় শতভাগ প্রস্তুত’ বলে জানিয়েছেন মস্কো-প্রতিষ্ঠিত বার্দিয়ানস্কের ফ্ল্যাগশিপ আলেকজান্ডার সোলেনকো।
ইউক্রেন রাশিয়া এবং তার মিত্রদের বিরুদ্ধে তার গম চুরির অভিযোগ করেছে, যা ইউক্রেনের বন্দরগুলোতে অবরুদ্ধ শস্য রপ্তানির কারণে বিশ্বব্যাপী খাদ্য ঘাটতিতে অবদান রেখেছে।
সোলেনকোর মতে, শস্য শিগগিরই বন্দর থেকে পাঠানো হবে, কারণ নতুন ফসলের জন্য সাইলোগুলো মুক্ত করতে হবে।
সোলেনকো বলেন, ‘আমাদের তুরস্কের সাথে চুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে। রাশিয়া একটি কৃষিপ্রধান দেশ, এটির নিজস্ব যথেষ্ট শস্য রয়েছে তাই এটি অন্যত্র ব্যবসা করা আরো লাভজনক হবে’।
তবে স্থানীয় অর্থনীতিতে মস্কোর সবচেয়ে স্পষ্ট প্রভাব হল গত মাস থেকে রাশিয়ার জাতীয় মুদ্রার প্রবর্তন। ‘এখন আপনি রুবেল এবং ইউক্রেনের মুদ্রা রিভনা উভয় ক্ষেত্রেই সবকিছু কিনতে পারবেন’, বলেছেন রাশিয়ানপন্থী কর্মকর্তা। তার মতে, বার্ডিস্ক রাশিয়া থেকে প্রায় ৯০ মিলিয়ন রুবল (১.৭ মিলিয়ন ডলার) পেয়েছে, কিন্তু রাষ্ট্রীয় কর্মচারীদের এখনও রিভনায় অর্থ প্রদান করা হয় এবং এটিএম থেকে নগদ রুবল তোলা অসম্ভব।
রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ‘পুনরায় শুরু’ : ১ মার্চ রাশিয়ান নিয়ন্ত্রণে আসা বার্দিয়ানস্কের প্রায় ১০০ কিলোমিটার (৬০ মাইল) পশ্চিমে প্রতিবেশী মেলিটোপোলও রাশিয়ান রুবল ব্যবহার করে যা সরবরাহ করা হয় কৃষ্ণ সাগর তীরবর্তী উপদ্বীপ ক্রিমিয়া থেকে যেটি ২০১৪ সালে মস্কোর নিয়ন্ত্রণে আসে।
মেলিটোপোলের রাশিয়াপন্থী মেয়র গালিনা ড্যানিলচেঙ্কো বলেছেন, ‘এটি একটি দ্বি-মুদ্রা অঞ্চল। ক্রিমিয়ার খোলা রাস্তার কারণে রুবল বিতরণ করা হয়েছে। রাশিয়ার সাথে বাণিজ্যিক সম্পর্ক ২০১৪ এর পরে বাধাগ্রস্ত হলেও এখন ফের শুরু হচ্ছে’। ‘লোকেরা রুবেলকে গ্রহণ করতে পেরে খুশি... আমি কোন সমস্যা দেখছি না’, তিনি যোগ করেছেন’।
বারডিস্ক ফাউন্ড্রিতে ফিরে ৪১ বছর বয়সী কর্মী সের্গেই গ্রিগোরিয়েভ বলেন যে, তিনি কেবল তার বেতন পাওয়ার আশা করেন। ‘নগদে, আমার কার্ডে নয়, কারণ আপনি এটি থেকে তুলতে পারবেন না। রিভনা বা রুবেলে আমি পরোয়া করি না’।
রুশ অভিযানে ৫০ হাজার ইউক্রেন সেনা নিহত হয়েছে : ডোনেটস্ক পিপলস রিপাবলিক (ডিপিআর)-এর প্রথম উপ-তথ্যমন্ত্রী ড্যানিয়েল বেজসোনভ গতকাল বলেছেন, রাশিয়ার বিশেষ অভিযান শুরুর পর থেকে কমপক্ষে ৫০ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে।
তিনি চ্যানেল ওয়ানকে বলেন, ‘ইউক্রেন ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে, তার বেশিরভাগ যুদ্ধে প্রস্তুত এবং অভিজ্ঞ সৈন্যরা হয় নিহত বা তাদের বন্দি করা হয়েছে’। বেজসোনভ যোগ করেছেন, ‘ইন্টারনেটে প্রাপ্ত তথ্য, এমনকি অফিসিয়াল রিপোর্টের ভিত্তিতে আমার পর্যবেক্ষণ, তাদের পুরো ফ্রন্টলাইনে ৫০ হাজার সৈন্য নিহত হয়েছে’।
তিনি যোগ করেন, ‘এবং যদি আমরা আহতদের গণনা করি, তাদের সংখ্যা তিন থেকে চার গুণ বেশি অর্থাৎ প্রায় ১ লাখ বা এমনকি দেড় লাখ ছাড়িয়ে যাবে’।
ডিপিআর কর্মকর্তার মতে, যারা হতাহত সৈন্যদের বদলে আসে তারা বেশিরভাগই আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা ইউনিটের সদস্য যাদের মনোবল কম। বেজসোনভ উল্লেখ করেছেন, ‘তাদের সক্ষম বাহিনী আছে এবং যতদূর আমি জানি, তারা বেলারুশিয়ান সীমান্ত থেকে ডনবাসে তাদের পুনরায় মোতায়েন করার চেষ্টা করছে। তবে, এটি একটি পিআর স্টান্ট ছাড়া কিছুই নয়’।
এলপিআর বাহিনী সপ্তাহান্তে লিসিচানস্ক মুক্তের আশা করছে : এলপিআর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগী ভিটালি কিসেলেভ গতকাল বলেছেন, রুশ সৈন্য এবং লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর)-এর বাহিনী লিসিচানস্কে প্রবেশ করেছে এবং এ সপ্তাহের শেষ নাগাদ ইউক্রেনীয় ইউনিটগুলোর কাছ থেকে এটিকে মুক্ত করার পরিকল্পনা করেছে।
‘আমাদের সৈন্যরা লিসিচানস্ককে ঘিরে ফেলেছে। পুরোপুরি না হলেও ইতোমধ্যেই আবাসিক কোয়ার্টার এবং শিল্প অঞ্চলে প্রবেশ করেছে। শহরটি বড় এবং আমাদের সপ্তাহের শেষ পর্যন্ত লড়াই করতে হবে।
রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ এর আগে বলেছিলেন যে, রাশিয়ান বাহিনী লিসিচানস্কের কাছে রাইট সেক্টর (রাশিয়ায় নিষিদ্ধ) নাৎসি ইউনিটসহ ২৭টি অঞ্চলে ইউক্রেনের সৈন্য ও অস্ত্রগুলোকে আঘাত করেছে।
ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রধান শহর অবরোধে যাচ্ছে রাশিয়ান বাহিনী : ইউক্রেনের কর্মকর্তারা বলেছেন, দক্ষিণ থেকে পূর্ব ইউক্রেনের শহর ঘেরাওয়ের চেষ্টায় গতকাল লিসিচানস্কে আক্রমণ বাড়িয়েছে রুশ বাহিনী। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর কয়েক সপ্তাহ চেষ্টায় সপ্তাহান্তে সেভেরোডোনেৎস্ক দখল হলেও ডনবাসের লুহানস্ক অঞ্চলের শেষ শহরটি এখনও ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি আরো সমর্থনের জন্য ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে গতকাল জি৭ শীর্ষ সম্মেলনে ভাষণে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং অন্যান্য বিশ্বনেতাদের সাহায্য কামনা করে চাপ দেন।
জেলেনস্কি রোববার রাতে প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি ভাষণে বলেন, তাদের আধুনিক, সম্পূর্ণ কার্যকর একটি শক্তিশালী বিমান প্রতিরক্ষা দরকার ‘যা এই ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারে’।
তিনি যোগ করেছেন, ‘আমরা আমাদের অংশীদারদের সাথে প্রতিদিন এ বিষয়ে কথা বলি। ইতোমধ্যেই কিছু চুক্তি রয়েছে এবং অংশীদাররা যদি সত্যিই অংশীদার হয়, পর্যবেক্ষক নয়, তবে দ্রুত এগিয়ে যেতে হবে’।
লুহানস্ক অঞ্চলের গভর্নর সের্হি হাইদাই গতকাল এক টেলিগ্রাম পোস্টে বলেছেন, রুশ বাহিনী লিসিচানস্কের একটি বাস স্টেশন, দুটি গির্জা এবং অন্যান্য ভবনগুলোতে গুলি চালিয়েছে। তিনি পরবর্তী পোস্টে বলেন, ‘উচ্ছেদ করা দিন দিন আরো কঠিন হয়ে উঠছে’।
রুশ-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা দাবি করেছে যে, রুশ সৈন্যরা ‘পাঁচটি দিক থেকে লিসিচানস্কে প্রবেশ করেছে এবং ইউক্রেনের রক্ষকদের বিচ্ছিন্ন করছে’ যদিও ইউক্রেনের কর্মকর্তারা তাদের আপডেটে এটি উল্লেখ করেননি।
হাইদাই বলেন যে, রাশিয়ান বাহিনী ‘দক্ষিণ থেকে শহরটি অবরোধ করার চেষ্টা করছে, সেখানে যা কিছু আছে তা ধ্বংস করছে’, তবে তিনি যোগ করেছেন যে, ইউক্রেনীয় সেনারা লিসিচানস্ককে রক্ষা করছে।
যুক্তরাজ্য ফ্রান্স ও যুক্তরাষ্ট্রের ১২০ ভাড়াটে সৈন্য লিসিচানস্কে লড়াই করছে : যুক্তরাজ্য, লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক এলপিআর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহযোগী ভিটালি কিসেলেভ রোববার বলেছেন যে, ফ্রান্স, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং পোল্যান্ডের ১২০ জনেরও বেশি ভাড়াটে সৈন্য লিসিচানস্কে রয়েছে। এখানেই লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) মিলিশিয়ারা অভিযান চালাচ্ছে। ‘তারা লিসিচানস্ককে ছোট দলে সলিদার এবং ক্রামতোর্স্কে পালানোর চেষ্টা করছে, আর ভাড়াটেরা এখনও পালিয়ে যাচ্ছে - পাভলোগ্রাদের দিকে। তিনি তাসকে বলেছেন, লিসিচানস্কের স্থানীয়দের কাছ থেকে আসা প্রাথমিক তথ্য অনুসারে লিসিচানস্কে বেসরকারী সামরিক কোম্পানি পোলস-এ ৩৭ জন ব্রিটিশ, ২১ জন ফরাসি, ৬৪ আমেরিকান রয়েছে।
কিসেলেভের মতে, প্রায় ১২ হাজার ইউক্রেনীয় সৈন্য লিসিচানস্কের কাছে কেন্দ্রীভূত রয়েছে।
রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ এর আগে বলেছিলেন যে, রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র সৈন্য এবং বিমান লিসিচানস্কের পশ্চিম শহরতলিতে চারটি যুদ্ধাস্ত্র ডিপোতে আঘাত করেছে। তিনি আরো বলেন, রুশ ও এলপিআর বাহিনী দক্ষিণ দিক থেকে লিসিচানস্ককে অবরুদ্ধ করেছে।
লিসিচানস্কে আটকা জেলেনস্কি অফিসের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা : ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির অফিসের বেশ কয়েকজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা বর্তমানে লিসিচানস্কে রয়েছেন। তাদের আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) এর পিপলস মিলিশিয়ার মুখপাত্র।
‘অনেক বিদেশী ভাড়াটের পাশাপাশি লিসিচানস্কে প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির অফিসের বেশ কয়েকজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা রয়েছেন। তাদের শহর থেকে পালাতে না দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে’, তিনি বলেন। সূত্র : তাস, দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন