বুধবার, ১০ আগস্ট ২০২২, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯, ১১ মুহাররম ১৪৪৪

সাহিত্য

বাঙালির আত্মমর্যাদার প্রতীক

আসিফ আলতাফ | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০২২, ১২:০৮ এএম

বাংলাদেশে এখন সাজ সাজ রব। দেশ জুড়ে উৎসবের আমেজ। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে বাঁধ ভাঙা উচ্ছ্বাসে ভাসছে দেশ। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে দেশে এত বড় কর্মযজ্ঞ আর দ্বিতীয়টি হয়নি। কোনো স্থাপনার উদ্বোধন নিয়ে এত বড় উৎসবও হয়নি। এ-সেতুকে ঘিরে আমাদের আবেগ সীমাহীন। কারন, এ-সেতু বাংলাদেশকে নিয়ে গেছে অন্যরকম উচ্চতায়। হাজোরো বাধা-বিঘ্ন অতিক্রম করে স্বপ্নের পদ্ম সেতু বাস্তবে ধরা দিয়েছে। এ-সেতেুর মাধ্যমে বিশে^র দরবারে বাংলাদেশ আবারও প্রমাণ করেছে বাঙালির। বাংলাদেশেকে চোখ রাঙিয়ে, ষড়যন্ত্র করে ‘দাবায়ে’ রাখা যায় না। বাংলাদেশ অতীতেও কারো কাছে মাথা নত করেনি, ভবিষ্যতেও করবে না। বআমাদের আছে অদম্য সাহস, আটুট মনোবল আর সীমাহীন ধৈর্য। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে-আদর্শ আমাদের মাঝে রেখে গিয়েছেন, সেই আদর্শ অনুসরণ করে স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন বাঙালি জাতির গর্ব, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রাধনমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্ব, অদম্য সাহস আর মেধা বাঙালি জাতিকে মর্যাদাপূর্ণ জাতিতে পরিণত করেছে। বাংলাদেশ আজ বিশে^র বিস্ময়। কবি নজরুলের বাণী যেন পিতার মতো শেখ হাসিনাও অন্তরে লালন করেন- ‘বল বীর, উন্নত মম শির’।
২৫ জুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন স্বপ্নের পদ্মা সেতু। সেতুর উদ্বেধানকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সর্বস্তরের মানুষ রওনা হচ্ছে উদ্বোধন স্থলে। কেউ বাসে করে, কেউ পায়ে হেঁেট, কেউ বা অন্যান্য যান বাহনে। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মাহেন্দ্রক্ষণের সাক্ষী হয়ে থাকতে চান সবাই। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের ক্ষণ ঠাঁই পাবে ইতিহাসে। এই সুযোগ হাত ছাড়া করতে চান না কেউ। শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশে^র বিভিন্ন সুবিধাভোগী দেশও এ-সেতুর উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে আনন্দ উচ্ছ্বাসে ভাসছে।
পদ্মা সেতু এখন কেবল একটি সেতু নয়, এটি সারা বিশে^ বাঙালির অহংবোধের প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। বিস্ময়ের উদ্রেক করছে বিশ^বাসীর। বাংলাদেশের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশে নিজস্ব অর্থায়নে বিশে^র অন্যতম বৃহৎ সেতুটি নির্মান করে ফেললো, ভাবা যায়! কী করে সম্ভব হলো।
পদ্মা সেতু যাতে নির্মিত না হতে পারে, বাংলাদেশ যেন উন্নয়নের মহাসড়ক থেকে ছিটকে পড়ে- দেশি-বিদেশি চক্রান্ত সে-ব্যাপারে কম হয়নি। একটি খোড়া অজুহাত তুলে, দুর্নীতির কল্পিত কাহিনি বলে পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয় বিশ^ব্যাংক। সাফ জানিয়ে দেয়, পদ্মা সেতুতে তারা কোনো ঋণ সহায়তা দেবে না। সারা বিশ^ সে-দিন মনে করে ছিলো, মনে করেছিলো এ দেশের সাধারণ মানুষও, পদ্মা সেতু বোধ হয় আর আলোর মুখ দেখবে না। কিন্তু একজন মানুষের দৃঢ়তা, সাহস, মেধা আর বুদ্ধিমত্তার কারনে, উল্টে যায় পাশার চাল, ব্যর্থ হয় দেশি-বিদেশি চক্রান্ত। আর তিনি হলে সাহসী মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা। বিশ^ ব্যাংক পদ্মা সেতুর ঋণ সহায়তা ফিরিয়ে নিলে আমাদের প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করলেন- দেশীয় অর্থায়নেই নির্মিত হবে পদ্মা সেতু। সে-দিন বিশ^বাসি মনে করেছিল, শেখ হাসিনা শুধু কথার কথা বলেছেন। বাংলাদেশের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশের পক্ষে নিজস্ব অর্থায়নে এত বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। কিন্তু তারা জানে না, বঙ্গবন্ধু যেমন শুধু কথার কথা বলেতেন না, তেমনি তার সুযোগ্য কন্যাও। প্রধানমন্ত্রী ষড়যন্ত্র আর মিথ্যা প্রচারণা ভন্ডুল করে, শত্রুর মুখে ছাই দিয়ে নিজস্ব অর্থায়নেই নির্মাণ করলেন পদ্মা সেতু। আর এ-কারণে পদ্মা সেতু এখন আর একটি সেতু নয়, সারা বিশে^র কাছে উন্নয়নের একটি মাইল ফলক।
সেতু নির্মাণের ক্ষেত্রে অর্থের চেয়ে বড় বিষয় ছিলো মনোবল। দেশি-বিদেশি কুচক্রি মহল তাই প্রথমেই চেয়েছিলো বঙ্গবন্ধু কন্যার মনোবল ভেঙে দিতে। আনলো দুর্নীতির অভিযোগ। কিন্তু তারা জানে না, শেখ হাসিনার মনোবল ভেঙ্গে দেয়া অত সহজ নয়। কারণ তিনি শুধু প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশের প্রতি তাঁর দায়িত্ব পালন করেন না, জননীর মতোও আগলে রাখেন তাঁর পিতার নেতৃত্বে অর্জিত বাংলাদেশকে। দেশের প্রতি রয়েছে তার গভীর ভালোবাসা। তাঁর দেশপ্রেম প্রশ্নাতীত। এ-কারণেই তিনি দেশের জন্য যা করেন, তা ভালোবেসেই করেন।
দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ দীর্ঘ বছর ধরে দাবি করে আসছিল পদ্মা নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণের। পদ্মা নদীর উপর একটি সেতু না থাকায় দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ মূলত ছিলো ‘নিজভুমে পরবাসি’। রাজধানীর ঢাকার সাথে এ-সব জেলার এক প্রকার যোগযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। নৌপথ ছিলো যোগাযোগের একমাত্র ভরসা । কিন্তু নৌপথে যাতায়াত মন্থর আর ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় এ-পথ দ্বারা উন্নয়ন সাধন করা সম্ভব হয়নি। দ্রুত পচনশীল কৃষিপণ্য উৎপাদেনের পর দ্রুত বিপননের সৃুযোগ না থাকায় কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হতো। ফলে আধুনিক কৃষি ব্যবস্থার দ্বারা অধিক ফসল ফলানোর চিন্তাও তরা করেনি। রাজধানীসহ অন্যান্য জেলার সাথে সড়ক যোগযোগ না থাকায় দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় আশানরূপভাবে গড়ে ওঠেনি ভারি ও মাঝারি শিল্প-কলকারখানা। ফলে প্রবল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও কৃষি এবং শিল্প বিকাশের ক্ষেত্রে এক ধরণের বন্ধাত্ব দেখা দেয়। পরিবেশ উন্নয়নও থমকে যায় । নতুন কর্মসংস্থান না থাকায় বেড়ে যায় বেকতারত্ব। বৃহত্তর বরিশাল জেলাও রাজধানি ঢাকাসহ অন্যান্য জেলা থেকে বিচ্ছন্ন থাকে। এ-কারেণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির চাকা আশানরূপভাবে ঘোরোনি। ২০৪১ সালের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে যে উন্নত দেশের কাতারে দাঁড় করানোর স্বপ্ন দেখছেন সেই স্বপ্নের রিলে রেসকে অবিশ^াস্যভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবে পদ্ম সেতু । এ-কথা আর কেউ না জানলেও প্রধানমন্ত্রী জানতেন। আর এ-কারণেই তিনি পদ্মা সেতু নির্মানের অর্থিক ঝুঁকি নিয়েছেন। দেশ বিদেশের প্রকৌশলী ও হাজার হাজার শ্রমিক তাদের শ্রম ও মেধার সর্বোত্তম ব্যবহারের মাধ্যমে নির্মাণ করেছেন পদ্ম সেতু।
একটি বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাড়তি ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। পদ্মা সেতুর নামের ক্ষেত্রে তিনি নদীকে প্রাধান্য দিয়েছেন। অনেকেই প্রস্তাব করেছিলেন পদ্মাসেতুর নাম ‘শেখ হাসিনা সেতু’ রাখা হোকে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী এ প্রস্তাব নাকচ করে যে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন, তার জন্য তিনি চিরদিন এদশের মানুষের কাছেই নয়, বিশ^বাসীর কাছে স্মরনীয় হয়ে থাকবেন। তাঁর এ-সিদ্ধান্ত নিসন্দেহে তাঁর মর্যাদা বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন