মঙ্গলবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১১ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আশা করলে পরিণতি গতবারের মতোই

ভার্চুয়ালি ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সেতুমন্ত্রী

মনোহরদী (নরসিংদী) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পাকিস্তান প্রীতি দলকে এখন আর জনগণ চায় না। তারা স্বাধীনতার শত্রু, গণতন্ত্রের শত্রু। কাজেই বিএনপির দিন এখন ফুড়িয়ে গেছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার এখন আর এ দেশে আসবে না। সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আশা করলে আপনাদের পরিণতি হবে গতবারের মতোই। বাংলাদেশ এগিয়ে যাক, সেটা বিএনপি-জামায়াত চায় না। তারা সব সময় ষড়যন্ত্র করে। তারা দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা বাধাগ্রস্ত করতে চায়। কিন্তু আওয়ামী লীগ জনগণের দল বলে কোনো ষড়যন্ত্র করে ঠিক থাকতে পারেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলেই উন্নয়ন হচ্ছে। উন্নয়নের যাত্রা অব্যাহত রাখতে হলে সরকারের ধারাবাহিকতা থাকা প্রয়োজন।

নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষে গতকাল নরসিংদী মোসলেহ উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়াম মাঠে আয়োজিত অনুষ্ঠানে রাজধানীর বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালিযুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সেতুমন্ত্রী বলেন, দুুর্নীতির কারণে বিএনপি, জনবিচ্ছিন্ন দলে পরিণত হয়েছে। পক্ষান্তরে আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী একটি রাজনৈতিক দল।

তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচনের জন্য অযোগ্য হয়ে পড়েছে। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান দু’জনই দণ্ডপ্রাপ্ত। আইন অনুযায়ী দু’জনের একজনও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবে না। ফলে জনবিচ্ছিন্ন বিএনপি ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে ষড়যন্ত্র করে চলেছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ প্রতিপক্ষের সব ধরনের ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করবে।

ওবায়দুল কাদের দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধতার প্রতিক। ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ থেকে আগামী নির্বাচনের জন্য কাজ করে যেতে হবে। তিনি বলেন, দল করলে দলের নিয়ম মেনে চলতে হবে, অনিয়ম করে দলের মনোনয়ন দেয়ার দিন শেষ। আওয়ামী লীগ বা শেখ হাসিনা চিরদিনের জন্য কাউকে নেতৃত্ব ইজারা দেয়নি।
সেতুমন্ত্রী বলেন, ত্যাগী নেতারা আওয়ামী লীগের আস্থার ঠিকানা। দুঃসময়ের কর্মীরাই দলের আসল বন্ধু। ত্যাগী নেতাদের আর কোণঠাসা করে রাখা যাবে না। তাদের স্থান দিতে হবে। প্রায় সাড়ে ৭ বছর পর অনুষ্ঠিত হওয়া নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি সভাপতি জিএম তালেব হোসেন ও পীরজাদা মোহাম্মদ আলীকে সাধারণ সম্পাদক করে নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নবগঠিত কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেন।

এর আগে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত থেকে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিএম তালেব হোসেনর সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থেকে দলকে সাংগঠনিকভাবে মজবুত করতে দিকনির্দেশনা মূলক বক্তব্য রাখেন।

এছাড়াও সম্মেলন স্থলে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলী সদস্য এডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য, সাবেক মন্ত্রী রাজি উদ্দিন আহম্মেদ রাজু এমপি, শিল্পমন্ত্রী এডভোকেট নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এমপি, আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক এড. নজিবুল্লাহ হিরু, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসেন, মহিলাবিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এভ. মৃণাল কান্তি দাস এমপি।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন নাহার চাপা, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. সিদ্দিকুর রহমান, শ্রম জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমান সিরাজ, কার্যনির্বাহী সম্পাদক ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, এডভোকেট এবি এম রিয়াজুল কবীর কাউসার, এডভোকেট সানজিদা খানম, সৈয়দ আবদুল আউয়াল শামীম, নরসিংদী জেলা আ.লীগের সাবেক সভাপতি, নরসিংদী-১ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মো. নজরুল ইসলাম হিরু বীরপ্রতিক, নরসিংদী-২ (পলাশ) আসনের সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ প্রমুখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন