বৃহস্পতিবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৩ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

গ্রিড বিপর্যয়ে চরম দুর্ভোগ

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ অক্টোবর, ২০২২, ১০:০৪ এএম

পাঁচ বছরের বেশি সময় পর জাতীয় গ্রিডে আবার বড় ধরনের বিপর্যয় দেখল দেশ। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় গ্রিডের একটি সঞ্চালন লাইনে বিভ্রাট দেখা দেওয়ায় ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহসহ দেশের প্রায় ৬০ শতাংশ এলাকা কয়েক ঘণ্টার জন্য বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। এতে মানুষের ভোগান্তির পাশাপাশি কল-কারখানায় উৎপাদন ও অফিস-আদালতে কাজকর্ম বিঘ্নিত হয়। হাসপাতালগুলোতে সেবা ব্যাহত হয়। জেনারেটর চালাতে জ্বালানি তেল কিনতে পেট্রলপাম্পগুলোতে ভিড় করে মানুষ।

বিপর্যয়ের শুরু : গতকাল দুপুর ২টার কিছু সময় পর এ বিপর্যয় দেখা দেয় বলে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশের (পিজিসিবি) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

পিজিসিবির এক কর্মকর্তা একটি গণমাধ্যমকে বলেছেন, যমুনা সেতুর পূর্ব পাশের ন্যাশনাল গ্রিডে দুপুর ২টা ৫ মিনিটে বিপর্যয় হয়েছে। ফলে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটসহ দেশের বড় একটি এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়নি। একটা পর্যায়ে সারা দেশের প্রায় ৬০ শতাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ ছিল না।
পিজিসিবির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ ইয়াকুব ইলাহী চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমরা একেবারে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি, ঘোড়াশালে গ্রিড বা বিদ্যুৎ সরবরাহের কোনো একটি লাইন ট্রিপ করেছে। সেই লাইনটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে অন্য লাইন ওভারলোড হয়ে সেটা ট্রিপ করেছে। এর ফলে পূর্বাঞ্চলের গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বল্পতা দেখা দেয়।’

দেশের বিভিন্ন স্থানে থাকা বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো থেকে জাতীয় গ্রিডের মাধ্যমেই সারা দেশে বিদ্যুৎ সঞ্চালন করা হয়ে থাকে।
ইয়াকুব ইলাহী চৌধুরী বলেন, ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও ময়মনসিংহের বড় এলাকা এ বিপর্যয়ের কবলে পড়েছে, পাশাপাশি উত্তরাঞ্চলের কিছু এলাকায় আংশিক বিদ্যুৎ চলে যায় বলে জানান নির্বাহী পরিচালক। তিনি বলেন, ‘এক এলাকায় সমস্যা হলে সেটা অন্য এলাকাকেও আক্রান্ত করে।’
এক মাস আগেই জাতীয় গ্রিডের আরেকটি সঞ্চালন লাইনের বিভ্রাটে বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল বিভাগসহ দেশের বিস্তীর্ণ এলাকা।
বারবার কেন সমস্যা হচ্ছে এ প্রশ্ন করা হলে ইয়াকুব ইলাহী চৌধুরী একটি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘কারিগরি ত্রুটির কারণেই এমনটি হয়েছে বলে আমরা মনে করি। ওভারলোডের কারণে সমস্যা হয়নি। তবে আরও কোনো কারণ আছে কি না, তা বুঝতে সময় প্রয়োজন।’
জ্বালানি এবং বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, জাতীয় গ্রিডে কী কারণে এ বিপর্যয়, তা জানার জন্য দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে বিদ্যুৎ ছিল না গতকাল দুপুর ২টা থেকে। চট্টগ্রামও আড়াইটার পর থেকে বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে।
বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধান প্রকৌশলী রেজাউল করিম বলেন, ‘আমরা যেটা জানতে পেরেছি ন্যাশনাল গ্রিডের ইস্টার্ন জোনে বিপর্যয় হয়েছে। তবে সমস্যা ঠিক কোথায়, সেটা আমরা এখনো জানতে পারিনি।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাজ্জাদুল ইসলাম বলেন, ‘সমস্যাটা আমাদের এখানে না। তবে গ্রিড ফেইল করেছে।’
বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, সংরক্ষণের সুযোগ না থাকায় উৎপাদিত বিদ্যুৎ সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় গ্রিডের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়। কোনো কারণে কোনো কেন্দ্র বা সঞ্চালন লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হলে পুরো সিস্টেমে সরবরাহের ঘাটতি তৈরি হয়। এমন পরিস্থিতিতে কিছু এলাকা বিদ্যুৎহীন রেখে অথবা অন্য কোনো গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ এনে ‘লোড’ সমন্বয়ের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তা করা না গেলে, অর্থাৎ লোড সমন্বয় না হলে অন্য কেন্দ্রগুলোর ওপর চাপ বাড়ে। এভাবে অতিরিক্ত চাপ তৈরি হলে বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা হিসেবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে জেনারেটর বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আর নতুন করে কোনো কেন্দ্র বন্ধ হলে সরবরাহে ঘাটতি আরও বাড়ে এবং একইভাবে অন্যান্য বিদ্যুৎকেন্দ্রও বন্ধ হওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়। বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো চালু করতেও কিছুটা বিদ্যুৎ লাগে।

আট ঘণ্টা পর স্বাভাবিক হতে শুরু করে : জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের প্রায় আট ঘণ্টা পর রাজধানী ঢাকাসহ দেশের পূর্বাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হওয়া শুরু করে। গতকাল রাতে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দুপুর আড়াইটায় আশুগঞ্জ-সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি সঞ্চালন লাইন চালুর মাধ্যমে ক্রমান্বয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, ময়মনসিংহ অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হয়। রাত ৯টায় সিস্টেম জেনারেশন ৮ হাজার ৪৩১ মেগাওয়াট এবং পরে জেনারেশন বাড়িয়ে সতর্কতার সঙ্গে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করার কাজ চলে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, জাতীয় গ্রিডের পূর্বাঞ্চলের বড় বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র (ঘোড়াশাল, আশুগঞ্জ, মেঘনাঘাট, হরিপুর, সিদ্ধিরগঞ্জ) চালু করে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা হয়। রাত ৯টা ৪০ মিনিটে ঢাকায় ২ হাজার ৩০০ মেগাওয়াটের বিপরীতে ১ হাজার ৭৫০ মেগাওয়াট সরবরাহ করা হয়। অনাকাক্সিক্ষত এ বিদ্যুৎ বিভ্রাটের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গতকাল দুপুর ২টা ৪ মিনিটে জাতীয় গ্রিডের পূর্বাঞ্চলে (ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা ও ময়মনসিংহ) অনাকাক্সিক্ষতভাবে বিদ্যুৎ বিভ্রাট হয়েছে। অতি দ্রুততর সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে বিদ্যুৎ বিভাগ ও সংশ্লিষ্টরা কাজ করছেন। এ সময় দেশের উত্তর অঞ্চল (রাজশাহী, রংপুর) ও দক্ষিণ অঞ্চলের (খুলনা, বরিশাল) বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক ছিল।

এদিকে গতকাল রাত ৯টার দিকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ নিজের ভেরিফায়েড ফেইসবুক পেজে লিখেছেন, ঢাকার মিরপুর, মগবাজার, মাদারটেক, রামপুরা, গুলশান, উলন, বসুন্ধরা, ধানমন্ডি, আফতাবনগর, বনশ্রী, ধানমন্ডি (আংশিক), আদাবর, শেরেবাংলা নগর, তেজগাঁও, মিন্টো রোড, মতিঝিল, শ্যামপুর, পাগলা, পোস্তগোলাসহ বেশ কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ সচল হয়েছে।
এর দুই ঘণ্টা আগে এক ফেইসবুক পোস্টে ঢাকা, গাজীপুর, চট্টগ্রাম, সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও সিদ্ধিরগঞ্জের আংশিক এলাকায় সরবরাহ চালু হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

ভোগান্তি, পেট্রলপাম্পে ভিড় : বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণে রাজধানীর সড়কগুলোতে বাতি জলেনি। ফলে রিকশাচালক ও পথচারীদের অন্ধকারে যাতায়াত করতে হয়। দোকানপাট, হোটেলে মোমবাতি জ¦ালিয়ে বেচাকেনা করতে দেখা যায়। বিদ্যুৎ না থাকার কারণে হাসপাতালে রোগীদের সেবা বিঘ্নিত হয়। ইন্টারনেট, ব্যাংকের এটিএম বুথও বন্ধ থাকে। বাসাবাড়িতে পানি সংকটে পড়ে মানুষ। মোমবাতি কেনার জন্য দোকানে ছোটে মানুষ।
বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণে বিকেল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার পেট্রলপাম্পগুলোতে ডিজেল কিনতে মানুষ ভিড় করে।
আমাদের উত্তরা (ঢাকা) প্রতিনিধি জানান, ওই এলাকার অধিকাংশ পেট্রলপাম্পে জেনারেটরের তেল কিনতে লম্বা ভিড় করেন অফিস-আদালতসহ বাসাবাড়ির লোকজন। আবদুল্লাহপুর, আজমপুর, এক নম্বর সেক্টরের পেট্রলপাম্পগুলোতে ভিড় দেখা যায়।

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, রাত ৮টার দিকে নগরীসহ বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু হতে থাকে। তবে প্রায় ছয় ঘণ্টা বিদ্যুৎ না থাকায় নানা ভোগান্তিতে পড়ে লোকজন; বিশেষ করে বাসাবাড়ি, কল-কারখানা, হাসপাতালে বিদ্যুৎ না থাকায় চরম বেকায়দায় পড়ে মানুষ।
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি জানান, দুপুর ২টার পর থেকে হঠাৎ করে পুরো জেলা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। পরে জানা যায়, বিভাগের চার জেলার কোথাও বিদ্যুৎ নেই। এতে বাসাবাড়িতে পানির সংকটসহ নানা জনদুর্ভোগ দেখা দেয়। বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে কিছু কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ আসতে শুরু করে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন