শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০২৪, ১১ শ্রাবন ১৪৩১, ১৯ মুহাররম ১৪৪৬ হিজরী

সারা বাংলার খবর

গাজীপুরে জামায়াত শিবিরের ২০ নেতা কর্মী গ্রেফতারঃ ককটেল উগ্রপন্থী বই উদ্ধার

গাজীপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০১ পিএম

গাজীপুরে গ্রেফতারকৃত জামাত-শিবিরের ২০ নেতা কর্মী


গাজীপুরে ককটেল, লাঠিসোটা উগ্রপন্থি বই ও চাঁদা আদায়ের রশিদসহ জামায়াত শিবিরের ২০ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত সোমবার দুপুরে মহানগরের বাসন থানাধীন ভোগড়া এলাকার রিয়াদ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক এর সামনে থেকে তাদের কে গ্রেফতার করা হয়।

আটকৃতদের কাছ থেকে ১৪টি বাঁশের লাঠি, ২৫টি ইটের টুকরা, অবিষ্ফোরিত লাল স্কচটেপ মোড়ানো ৫টি ককটেল, ১৫ টুকরা গাড়ীর ভাঙ্গা কাচের অংশ, ছাত্র শিবিরের একটি ব্যানার, ৫ টুকরা বিষ্ফোরিত ককটেলের অংশ বিশেষ, ৪টি ব্যক্তিগত রির্পোট বই, ১৪টি বাংলাদেশ জামায়েত ইসলাম ও ছাত্র শিবিরের লেখা বই ও ৪টি চাঁদা আদায়ের রশিদ উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, গাজীপুর মহানগরীর বাসন থানা ছাত্রশিবিরের সভাপতি মোঃ মেহেদী হাসান(২৬), আমিরুল ইসলাম আফনান, মোঃ জায়েদ(১৯), মোঃ মেহেদী হাসান(১৯), মোঃ মোবাশ্বির ইমাম(১৯), মোঃ রাজু খান( ১৮), মোঃ মুজাহীদ হাসান(১৮), মোঃ খালেদ বীন হোসাইন(১৯), মেহেদী হাসান(১৯), মোঃ জিন্নাহ(১৯), মোঃ জোবায়ের হোসেন(১৮), রাইসুল ইসলাম(১৯), মোঃ সাদেকুল ইসলাম(১৮), মোঃ আতাউল্লাহ আফনান(১৮) মোঃ ইয়াসিন আরাফাত(১৮), মোঃ তাওহীদ(১৬), মোঃ রকিব(১৬), মোঃ নাঈম(১৬), মোঃ আলী আজগর(১৬) ও মোঃ মজিবুর রহমান(২৫)। পুলিশ জানায় গ্রেফতারকৃরা গাজীপুরের স্থানীয় একটি মাদরাসার ছাত্র। প্রত্যেকেই গাজীপুর, ফেনীসহ দেশের বিভিন্ন জেলার বাসিন্দা।

গাজীপুর মেট্রোপলিট পুলিশের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল মঙ্গলবার এ তথ্য
জানানো হয়। এতে উল্লেখ করা হয়েছে যে,
সম্প্রতি বাংলাদেশ জামায়েত ইসলামের কেন্দ্রীয় আমিরসহ ছাত্র শিবিরের নেতাকর্মীদের গ্রেফতারকে কেন্দ্র করে, গাজীপুরের বাসন থানাধীন ভোগড়া মহাসড়কে গাড়ি ভাংচুর ও ককটেল ফাটিয়ে জনমনে আতংক সৃষ্টিকালে জিএমপি'র বাসন থানা পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করে। এসময় পলাতক একজনকে আটককৃত সহকর্মীদের তথ্য অনুযায়ী একই এলাকার নলজানী গ্রেটওয়ারল সিটির ভাড়া বাসা থেকে আটক করে ককটেল, লাঠিসোটা, উগ্রপন্থি বই, ব্যানার ও চাঁদা আদায়ের রশিদ উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সনের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩)/২৫-D ধারায় এবং ১৯০৮ সনের বিস্ফোরক দ্রব্য আইন ৩/৪/৬ মামলা রুজু করা হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন