রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৪ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

উচ্ছৃঙ্খলরা ছাত্ররাজনীতির গৌরব নষ্ট করছে : হাইকোর্ট

ইবি ছাত্রীকে পাশবিক নির্যাতন পাঁচ ছাত্রলীগ নেত্রী বহিষ্কার প্রভোস্টকে অপসারণের নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ মার্চ, ২০২৩, ১২:০০ এএম

ক্যাম্পাস রাজনীতির নামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, কিছু শিক্ষার্থী ছাত্র রাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস নষ্ট করছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে রাজনৈতিক দলের নাম ব্যবহার করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নির্যাতন করছে। এগুলো বন্ধ হওয়া দরকার। সব বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগিং বন্ধে কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে হবে। কোনো শিক্ষার্থী প্রথমবর্ষে ভর্তির সময় ওই শিক্ষার্থী এবং তার অভিভাবকের কাছ থেকে অঙ্গীকার নিতে হবে র‌্যাগিংয়ের মতো কাজে যেন জড়িত না হয়। র‌্যাগিংয়ের মতো কাজে সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাকে বহিষ্কার করা হবে এবং শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক ছাত্রী ফুলপরী রাতভর মারধর ও শারীরিক নির্যাতন করে ভিডিও ধারণের ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আদেশ প্রদানকালে গতকাল বুধবার বিচারপতি জে বি এম হাসান এবং বিচারপতি রাজিক আল জলিলের ডিভিশন বেঞ্চ এসব কথা বলেন।

পরে আদালত ইবি’র ছাত্রীকে রাতভর মারধর ও শারীরিক নির্যাতন করে ভিডিও ধারণের ঘটনায় জড়িত পাঁচ ছাত্রীকে সাময়িক বহিষ্কারের নির্দেশ । একইসঙ্গে দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. শামসুল আলমকে অবিলম্বে সরিয়ে দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

পাঁচ শিক্ষার্থী হলেন, ইবি ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরী অন্তরা, ছাত্রলীগ কর্মী ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের তাবাসসুম ইসলাম, আইন বিভাগের একই শিক্ষাবর্ষের ইসরাত জাহান মীম, ফাইন আর্টস বিভাগের হালিমা খাতুন উর্মী ও ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের মোয়াবিয়া। অন্তরা ছাড়া সবাই ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ।

এর আগে গত মঙ্গলবার হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন জমা পড়ে আদালতে। প্রতিবেদনের ওপর শুনানি শেষে গতকাল দেয়া হয় এ রায়। রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেন, উশৃখলরা ছাত্ররাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস নষ্ট করছে। কিছু শিক্ষার্থীর উশৃঙ্খল আচরণে ও শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় দেশের ছাত্ররাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে । একই কারণে দলের (ছাত্রসংগঠন) ভাবমূর্তিও ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে উল্লেখ করেন আদালত। পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্ররাজনীতির নামে কিংবা রাজনৈতিক প্রশ্রয়ে কিছু উশৃঙ্খল শিক্ষার্থী নবাগতদের র‌্যাগিংয়ের নামে অমানবিক নির্যাতনের ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন।

আদেশের বিষয়ে রিটকারী অ্যাডভোকেট গাজী মো: মুহসীন আদালতের বরাত দিয়ে সাংবাদিকদের জানান, আদালত সুষ্পষ্ট অবজারভেশন (পর্যবেক্ষণ) দিয়ে বলেছেন, ছাত্ররাজনীতির একটি গৌরবোজ্জ্বল অতীত আছে, ইতিহাস আছে। সেই ইতিহাসকে ব্যবহার করে রাজনীতিকে কলঙ্কিত করছে। এটি ছাত্ররাজনীতির জন্যও খারাপ। শিক্ষার্থীদের জন্যও খারাপ।

আদালত বলেন, বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে দেখা যাচ্ছে, সম্প্রতি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে, নির্দিষ্টভাবে বললে আবাসিক হল ও হোস্টেলে কিছু উশৃঙ্খল শিক্ষার্থী তাদের রাজনৈতিক পরিচয়ের অপব্যবহার করে অপ্রত্যাশিত ঘটনায় জড়িয়ে পড়ছেন। এসব শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভেতরে ঢুকে সাধারণ শিক্ষার্থী বিশেষ করে নবাগতদের নির্যাতন করেন। এ ধরণের অবাধ্য ছাত্ররা শিক্ষার মানসম্মত পরিবেশ বাধাগ্রস্ত করেন। এমনকি তাদের দলীয় শৃঙ্খলাও ভঙ্গ করেন। এর মাধ্যমে তারা দলের পাশাপাশি ছাত্র রাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল ভাবমূর্তি ভূলুণ্ঠিত করছেন।

আদালত একপর্যায়ে এটিও বলেন, বিচার তো আমরা করছি না। বিচার করবে বিশ্ববিদ্যালয়, তারা রিপোর্ট (তদন্ত প্রতিবেদন) পুঙ্খানুপুঙ্খ দেখে সিদ্ধান্ত দেবেন। আমরা উদ্বিগ্ন অন্য সব শিক্ষার্থী ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়ে। অনেক সময় রাজনৈতিক আশ্রয়ের অপব্যবহার করে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করার ঘটনাও ঘটছে। ছাত্ররাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস নষ্ট করা হচ্ছে। এভাবে চললে ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করো- এমন কথাও উঠতে পারে। তবে ছাত্ররাজনীতির যে প্রয়োজন, সেটি ইতিহাস থেকে দেখেছি। কিন্তু এটাকে নষ্ট করার জন্য, ক্ষুন্ন করার জন্য, অনেকে না বুঝে করেন, অনেকে বুঝেও করেন। এটা থেকে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

এদিন, শুনানি শেষে ২টি তদন্ত প্রতিবেদন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে সিলগালা করে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে জড়িত শিক্ষার্থী, অবহেলা করা হল প্রশাসনসহ অন্যদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও বিধি অনুসারে ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসা পর্যন্ত ছাত্রলীগ নেত্রী অন্তরাসহ পাঁচ ছাত্রীকে সব ধরণের শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ ও ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থান করতে বলা হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন