ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

মেসির জোড়া গোলে বার্সার জয়

প্রকাশের সময় : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : অবশেষে ৮ ম্যাচের গোলখরা কাটল লিওনেল মেসির! ফুটবল জাদুকরের বিস্ময় জাগানিয়া এই গোলখরা ছিল আর্সেনাল গোলরক্ষক পিয়েতর চেকের বিপক্ষে। পরশু চ্যাম্পিয়ন্স লিগের হাইভোল্টেজ ম্যাচে জোড়া গোল করে সেই খরা কাটালেন লিও মেসি। বার্সেলোনাও  ম্যাচ জিতল ২-০ গোলে। অ্যাওয়ে ম্যাচে দুই গোল করায় শেষ আটের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল বার্সেলোনা। নক আউট পর্বের পরের ম্যাচ ন্যু ক্যাম্পে হওয়ায় চ্যাম্পিয়নদের জন্য শেষ আট অনেকটাই নিশ্চিত বলা যায়।
আর্সেনাল কোচও কোয়ার্টার ফাইনালের আশা অনেকটাই ছেড়ে দিয়েছেন। সেটা বোঝা গেল তাঁর কথাতেই। কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছানোর ‘৯৫ শতাংশ কাজ বার্সা সেরে রেখেছে’ বলে মনে করেন তিনি। তা সত্ত্বেও ‘আমরা সেখানে (ন্যু ক্যাম্পে) খেলতে যাব, যদিও সেখানে আমাদের কোন সুযোগ নেই’ বলেই গানার কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গার।
কৌশলটা ভালোই এঁটেছিলেন আর্সেন ওয়েঙ্গার। পুরোপুরি রক্ষণাত্মক, আর ক্ষণে ক্ষণে প্রতিপক্ষের রক্ষণে ঝটিকা আক্রমণ। প্রথমার্ধে এই কৌশল কাজেও লেগেছিল কিন্তু স্ট্রাইকারদের ব্যর্থতায় গোল পাননি এই যা। তাদের ব্যর্থ করার কাজটা বেশ ভালোভাবেই সেরেছেন সফরকারী রক্ষণভাগ। কখনো আক্রমণ ভেস্তে দেন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হাভিয়ের মাচেরানো আবার কখোনো গোলমুখে অপ্রতিরোধ্য বাধ তৈরী করেন গোল রক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগেন। সুযোগ পেয়েছিলেন মেসি-নেইমাররাও কিন্তু তা গোলে পরিণত হয়নি। বার্সার জোড়া গোলের সেই মহেন্দ্রক্ষণ আসে শেষ ২০ মিনিটে। আর ঠিক এর অপেক্ষতেই নাকি ছিলেন মেসিরা। বাঁ প্রান্তে লুইস সুয়ারেজ থেকে নেইমার, বল নিয়ে ডি বক্সের দিকে ব্রাজিলিয়ান তারকার স্বভাব সুলভ টান। এরপর নিজেই শট নিতে পারতেন গোলে। তাবে অবশ্য জায়গা কম পেতেন। তাই ডিফেন্স গলে তিনি বল পাঠালেন মেসির কাছে। সহজেই সেটা জালে পাঠালেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। এরপর ৮৩তম মিনিটে  একেবারে অযথাই বক্সের ভেতর মেসিকে ফাউল করেন ম্যাথিউ ফ্লামিনি। রেফারি ছিলেন খুব কাছেই, মুহুর্তেই বাঁশিতে ফু দিয়ে দিলেন পেনাল্টির নির্দেশ। তা থেকে দ্বিতীয় গোলটিও করেন মেসি। ব্যবধান গড়ার জন্য শেষ সময়কে বেঁছে নেওয়া প্রসঙ্গে মেসি বলেনÑ ‘আর্সেনাল আমাদের কাজটা কঠিন করে দিয়েছিল কারন তাদের অনেক ভালো খেলোয়াড় রয়েছে। কিন্তু আমরা জানতাম দ্বিতীয়ার্ধে তারা গতি হারাবে, এমনভাবে তাল ধরে রাখা খুব কঠিন।’ এছাড়া পাঁচ বারের বিশ্বসেরাকে কথা বলতে হল চেকের প্রতিরোধ ভাঙার প্রসঙ্গেওÑ ‘ভাগ্যক্রমে আজ সেটা (চেকের বিপক্ষে গোল)  হয়েছে।’ দ্বিতীয়ার্ধে নেইমার সুযোগ নষ্ট না করলে ও সুয়ারেজের শট বারে লেগে প্রতিহত না হলে ব্যবধান আরো বড় নিয়েই ফিরতে পারত কাতালানরা। গোলপাননি বটে কিন্তু ‘এমএসএন’ তারকার বাকি দু’জনের ঝলক এদিন ভালোমতই দেখেছে এমিরেটস স্টেডিয়াম। শিষ্যদের খেলায় মুগ্ধ কোচ লুইস এনরিকেওÑ ‘যা দেখলাম তাতে আমি খুশি।’ তিনি আরো যোগ করেনÑ ‘আমরা এমন একটা দল যাদের খেলাটা  প্রতিপক্ষের চেয়ে ভিন্ন।’ ম্যাচের ফল নীর্ধারক দ্বিতীয়ার্ধ নিয়ে কাতালান গুরু আরো বলেনÑ ‘ফুটবল যারা বোঝে তারা জানে প্রথমার্ধটা এমনই হতে হয় এবং দ্বিতীয়ার্ধে আমরা যা দেখিয়েছি সেটাও। তারা যখন দুর্বল হয়ে পড়বে আপনি জানবেন তখন অনেক বেশি সুযোগ তৈরী হবে।’
তুরিনোর জুভেন্টাস স্টেডিয়ামে বায়ার্ন মিউনিখের গল্পটাও হতে পারত একইরকম। কিন্তু দুই গোলে পিছিয়ে পড়েও দুর্দান্তভাবে ম্যাচটি ড্র করেছে জুভেন্টাস। শেষ আটের সুযোগটাও তাই টিকে রইল ইতিালিয়ান চ্যাম্পিয়নদের। প্রথমার্ধের শেষ দিকে সফরকারীদের প্রথম গোল এনে দেন টমাস মুলার। আর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দলকে আরো এগিয়ে নেন অরিয়েন রোবেন। সব প্রতিযোগিতা মিলে ৯ ম্যাচ পর গোল খেল জুভেন্টাস। ৬৩তম মিনিটে ক্যারিয়ারে প্রথম ইউরোপ সেরার আসরে খেলতে নামা আর্জেন্টাইন তরুন স্ট্রাইকার পাওলো দিবালার গোলে ব্যবধান কমায় স্বাগতিকরা। সেই হিসাবে এটিই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম গোল দিবালার। এরপরই যেন আত্মবিশ্বাস ফিরে পায় জুভরা। আলভারো মেরাতার হেড পাস থেকে সমতা গড়েন স্টেফানো স্তরারো।
এক নজরে ফল
আর্সেনাল ২-০ বার্সেলোনা
জুভেন্টাস ২-২ বায়ার্ন মিউনিখ

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন