ঢাকা, রোববার , ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১০ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

শারজাহ শাসক পুত্রের রহস্যজনক মৃত্যু লন্ডনে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ জুলাই, ২০১৯, ৭:৫৫ পিএম

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহের শাসকের পুত্র শেখ খালিদ বিন সুলতান আল কাসিমী লন্ডনে রহস্যজনকভাবে মৃত্যুবরণ করেছে। লন্ডন কর্তৃপক্ষ মৃত্যুর কারণ ব্যাখ্যা করেনি। সোমবার লন্ডনে আকস্মিকভাবে মারা যায়, বুধবার আমিরাতে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। দেশব্যাপী ৩ দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে।

শারজাহ শাসকের ৩৯ বছর বয়সী পুত্র একজন ফ্যাশন ডিজাইনার হিসেবে নিজের ক্যারিয়ার গড়েছিলেন। লন্ডনের ফ্যাশন সপ্তাহে তাকে তার লেবেলে দেখা গিয়েছিল।

১৯৭২ সাল থেকে তার পিতা শেখ সুলতান বিন মোহাম্মদ আল কাসিমী শরজাহ শাসন করেছেন। মঙ্গলবার তিনি তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে পোস্ট দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন এবং বলেছিলেন তার পুত্র ‘আল্লাহ্‌র যত্নে’ থাকবেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট ও আবুধাবির শাসক শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান শেখ সুলতান ও তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

এক বিবৃতিতে, ফ্যাশন লেবেল কাসিমি বলেন, শেখ ‘অপ্রত্যাশিতভাবে’ মারা গেছেন কিন্তু বাড়তি কোনো তথ্য প্রদান করেননি। নাইটসব্রিজের একটি আবাসিক বাসভবনে আকস্মিক মৃত্যুর একটি প্রতিবেদন পেয়েছে বলে লন্ডন পুলিশ জানায়।

মঙ্গলবার একটি পোস্টমার্টেম পরীক্ষা হলেও কোনো আলামত প্রমাণিত হয়নি এবং পুলিশ আরও পরীক্ষার ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছে।

কাসিমী বলেন, শেখ খালিদ সামাজিক-রাজনৈতিক বিষয়গুলোতে তার দৃঢ় ও সংবেদনশীল কাজের জন্য প্রশংসিত হয়েছেন, বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্য ও পশ্চিমের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল প্রশংসনীয়।

ফ্যাশন লেবেল অনুযায়ী, তিনি লন্ডনের সেন্ট্রাল সেন্ট মার্টিন্সে ফ্যাশন ডিজাইনে অধ্যয়ন করেছিলেন এবং ২০০৮ সালে তার প্রথম সংগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। শেখ খালিদ শারজাহ-এর শহুরে পরিকল্পনা কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ছিলেন, যা আমিরাতের অবকাঠামো প্রকল্পের তত্ত্বাবধানে কাজ করে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে তার একজন বন্ধু বলেন, ‘শেখ খালিদ আর্কিটেকচারাল অ্যাসোসিয়েশনে পড়াশোনা করেছেন এবং তিনি খুব প্রতিভাবান, অবিশ্বাস্যভাবে স্মার্ট এবং মানবাধিকার নিয়ে খুবই সচেতন ছিলেন। তিনি জীবনকে ভালোবাসতেন, বহির্গমনে খুবই আগ্রহী ছিলেন। খুব সদয় এবং উদার ব্যক্তি ছিলেন।’

ফ্যাশন ফটোগ্রাফার মারিয়ানো ভিভানকো, যিনি তাকে ‘মাই এঞ্জেল’ বলে ডাকতেন, সে সহ সোশ্যাল মিডিয়ার অনেকেই তার মৃত্যুতে বিষণ্ণ হবার অনুভূতি শেয়ার করেছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত প্যাট্রিক মুডি শারজাহের রাজপরিবারের প্রতি ‘গভীর সমবেদনা’ প্রকাশ করেছেন। কাশিম পরিবার দেশটির ছয় শাসক পরিবারের একটি যারা শারজাহ এবং রাস আল খাইমাহ সাম্রাজ্য শাসন করে থাকেন। সূত্র: বিবিসি।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন