ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬, ১৭ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

বিনামূল্যে ডেঙ্গুর চিকিৎসা দেয়ার দাবি বিএনপির

এখনো ওষুধ না আসায় হতাশ স্থায়ী কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০১৯, ৮:৫৮ পিএম | আপডেট : ৮:৫৮ পিএম, ১৭ আগস্ট, ২০১৯

ডেঙ্গু রোগের ওষুধ এতোদিনেও না আসায় হতাশা প্রকাশ করেছে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। তারা ডেঙ্গু রোগীদেরকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। শনিবার (১৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই দাবি জানানো হয়। সন্ধ্যায় স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে বলেন, ডেঙ্গু পরিস্থিতি আগের চেয়ে আরো ভয়াবহ। সবাই বলছেন যে, আগামী মাসটা নাকী আরো খারাপ যাবে, অবস্থা আরো বাড়বে। দুর্ভাগ্যের বিষয়টা হচ্ছে যে, এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু ওষুধ এসে পৌঁছেনি। তিনি বলেন, আমরা গত সভা থেকে সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকারকে অনুরোধ করেছিলাম যে, এটার প্রতিরোধে জরুরীভিত্তিতে ব্যবস্থা নিতে। সেটা সরকার করেনি, আপাতকালীন একটা ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছিলাম সেটা নেয়া হয়নি। তার ফলে যারা ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে যাচ্ছেন তারা সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছে না। আমরা দাবি জানাচ্ছি সম্পূর্ণ বিনা খরচে চিকিৎসা দেয়ার।

কোরবানীর চামড়া নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের সিন্ডিকেটের তৎপরতা এবং সরকারে ব্যর্থতার কঠোর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, চামড়া শিল্প ধবংসের করে দেয়ার জন্য এসব কাজ করেছে। স্থায়ী কমিটির বৈঠকের সরকারের ব্যর্থতা ও উদাসীনতার জন্যে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। আমরা অবিলম্বে এই শিল্পকে রক্ষার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিতে আমরা সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

ব্রাহ্মণবাড়ীয়াতে দলের ভ্ইাস চেয়ারম্যান হারুন আল রশিদের বাড়ি ভেঙে দেয়া ও একজন বিচারপতির গ্রামের বাড়ীতে হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, এসব ঘটনা প্রমাণ করে দেশে আইনশৃঙ্খলা বলতে দেশে কিছু নেই। এভাবেই এখন পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি।

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির বিষয়টি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরার সিদ্ধান্ত: বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য ও তার মুক্তির বিষয়ে আন্তর্জাতিকভাবে পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিএনপি মহাসচিব বলেন, যেসব গণতান্ত্রিক দেশ আছে তাদেরকে অবহিত করবো এবং যে অন্যায়ভাবে দেশনেত্রীকে আটক করে রাখা হয়েছে সে বিষয়টা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে আসার জন্য যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। তিনি বলেন, ঈদের আগে দলের চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের যে বিষয়টা এসেছিলো হাইকোর্টে সেখানে একটা নেতিবাচক আদেশ হওয়ার পর থেকে আমাদের যে ধারণাটা আরো দৃঢ় হয়েছে যে, এখন বিচার ব্যবস্থা এটা আর স্বাধীনভাবে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে পারছে না। সরকার বিচার ব্যবস্থাকে নিয়ন্ত্রণ করছে। সেক্ষেত্রে আইনিভাবে এটা কিছুটা অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে যে, এখানে আমরা ন্যায় বিচার পাবো কিনা। সেকারনে আমরা দেশনেত্রীর মুক্তির আন্দোলন সেই আন্দোলনকে বেগবান করার জন্য আমাদের বিভাগীয় পর্যায়ের সমাবেশের কর্মসূচি অব্যাহত রাখবো। যেহেতু আগস্ট মাসে সরকার কোনো কর্মসূচি নিতে দেয় না সে কারণে আমরা আমাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ১ সেপ্টেম্বর থেকে এই কর্মসূচি আবার শুরু করবো।

তিনি জানান, বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনে জেলা-মহানগর-উপজেলা পর্যায়ে র‌্যালী, সভা-সমাবেশ-আলোচনাসভা অনুষ্ঠানে সিদ্ধান্ত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে হয়েছে। ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে আমরা র‌্যালী ও পরদিন আলোচনা সভা করব। এরপরেই বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভাগীয় সমাবেশগুলো আমরা সমাপ্ত করবো। আগামী ২৪ আগস্ট হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে দলের পক্ষ থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যদের সংবর্ধনার আয়োজন করা হবে বলে জানান তিনি।

দুই ঘণ্টার এই বৈঠকে মহাসচিব ছাড়া ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন। লন্ডন থেকে স্কাইপিতে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্ত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন