ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

ধর্ম দর্শন

সুফিবাদ কী ও কেন

এ এন এম এ মোমিন | প্রকাশের সময় : ১০ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

স্রষ্টাতে পূর্ণ আত্মসমর্পণ এবং তাঁর সৃষ্টিজগতের জন্য ভালবাসাও অনুরূপ। সুফিবাদ বা তাসাওউফ বা ত্বরিকত ইসলামের প্রাণ। শরিয়ত ইসলামের দেহ বা দেহাবরণ, অনুষ্ঠান, অনুশাসন, আরাধনা ও উপাসনা।
ইসলামের বিশ্বব্যাপী জয় ও জনপ্রিয়তার বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সুফিবাদের ভূমিকা অত্যুজ্জল। এর প্রকৃত দাবীদার মহান সুফিগণ, দরবেশগণ, আল্লাহ্র মহান ওলীগণ। কেননা ইসলাম ধর্মের বিকাশে নানা প্রতিকূল অবস্থায় ভীষণ ও ভয়াবহ, বীভৎসপরিবেশে মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে ইসলামের যে প্রথম প্রচার ও প্রসার তা সুফিগণেরই অবদান এবং জীবন মরণ দুর্জয় সাধনায় আল্লাহ প্রাপ্তির মহা উদ্দেশ্যে নিশীথ রাতের নির্জন ইবাদতে তাদের যেমন সীমা-পরিসীমা ছিল না, ইসলাম প্রচারেও তেমনই সাধনাতেও কোন ক্লান্তি ছিলনা। এক্ষেত্রেও তারা ছিলেন মৃত্যুঞ্জয়ী সাধক, ন্যায়ের সৈনিক-মুজাহিদ ও সফলকাম সিদ্ধ পুরুষ। আবার অন্যদিকে ভৌগোলিক সীমারেখা পেরিয়ে সুফিকুল যেখানেই মানবতা লাঞ্ছিত হয়েছে, মানবতার পতন ঘটেছে, সেখানেই মানুষ মাত্রকেই ভাই বলে তাদের হয়েছেন জীবনমরণ পণ করে। সত্য ও সুন্দরের পথে সংসারের কঠিন মাটিতে পবিত্র কোরআনের আলোকবর্তিকা হাতে নিয়ে জাতি- ধর্ম- বর্ণ নির্বিশেষে আবালবৃদ্ধ বণিতার মাঝে প্রেম-প্রীতি ভালবাসা ও মনুষত্বের অনির্বাণ মশাল জ্বালিয়ে দেন এই মহান সুফিসাধকগণ। যা ইসলামের ইতিহাসে চির অনির্বাণ। এখানেই তারা মহাপুরুষ। এক ও অদ্বিতীয় আল্লাহর আহ্বানে এবং নির্মল মনুষ্যত্বের জয়গানে পবিত্র কোরআন তাদের শ্রম সাধনা এবং মানমর্যাদার স¦ীকৃতি দিল। এরূপ স্বীকৃতি মানব সমাজের কোন ধর্মের কোন গোষ্ঠীর ভাগ্যেই আর জোটেনি। বিশ্ববাসীর কাছে কোরআনের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে ইসলামের নির্ভেজাল প্রচার ও নিরঙ্কুশ প্রসারেও এর মুল বাণী ও তা অমিত প্রাণশক্তিকে জাগ্রত করতে, দুর্গত মানবতার উদ্ধারকল্পে, আপসহীন চিত্তে মনুষ্যত্বের পতাকা উত্তোলন করতে বিশ্বমানবতা আপন করতে সকল প্রকার সামাজিক ও সাম্প্রদায়িক বৈষম্য পরিত্যাগ করে জীবনের সকল ক্ষেত্রে সবাইকে ভাইবোন বলে হাতে হাত রেখে বিশ্বভ্রাতৃবন্ধন স্থাপন করতে লা-শরীক এক আল্লাহ প্রেমে তাঁর প্রশংসা ও আশ্রয় পেতে জীর্ণমানবতার ময়দানে মরণের মুখোমুখি দাঁড়িয়েও অখন্ড মানব সমাজের চির অবহেলিত,গভীর বেদনাহত মানুষগুলির বুকে সাম্য ও ভ্রাতৃত্বের প্রতিষ্ঠায় সুফি সমাজের যে নিরন্তর উল্লেখযোগ্য অবদান, যে চিরস্মরণীয় লোমহর্ষক কাহিনী ও কথা, যে মৃত্যুহীন জীবনগাথা ইসলামের সারা চৌহদ্দী ও সর্বকালীন ইতিহাসে তা অপেক্ষা অধিক গুরুতর ও উল্লেখযোগ্য আর কিছু নাই। ইসলামের মহান সুফিকুল আজও সারা বিশ্বের মহাবিস্ময়। মানুষের চারিত্রিক, মানবিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক মূল্যায়ন তাদের বাণীর ভা-ার আজও অব্যয় ও অক্ষয়।
সুফি শব্দের উৎপত্তি
সুফি শব্দের উৎপত্তি নিয়ে নানা মুনির নানা মত রয়েছে । প্রতিটি মতের পিছনে কিছু না কিছু দলিল রয়েছে । আমরা এখানে কয়েকটি উল্লেখ করছি। (১) সাউফ অর্থ পশম (২) সাফা অর্থ পবিত্র (৩) সফ অর্থ সারি, লাইন বা শ্রেণী (৪) সুফিয়া (ঝড়ঢ়যরধ) অর্থ জ্ঞান।
১। সুফি শব্দের উৎপত্তি সাউফ বা পশম হতে । এক শ্রেণীর বুদ্ধিজীবীর ধারণা অধিকাংশ সুফি তাঁদের দারিদ্র্যবশত পশম পরিধান করতেন তাই তাদের মতে সুফি শব্দটি “সাউফ” হতে উদ্ভুত।
২। সাফা শব্দ হতেও সুফি শব্দের উৎপত্তি হয়েছে মর্মে অনেকে মনে করেন, কেননা সাফা শব্দের অর্থ সাফ তথা পবিত্রতা বা পবিত্রতা লাভ করা । সুফিগণের প্রধান উদ্দেশ্যই হলো আল্লাহকে লাভ করা এবং আল্লাহকে লাভ করার প্রথম ও প্রধান কাজই হলো আপন সত্তাকে বা অন্তরাত্মাকে পবিত্র করা। তাই সাফা শব্দ হতে সুফি শব্দটি উৎপত্তি হয়েছে মর্মে মনে করা হয়।
৩। সফ শব্দ হতেও সুফি শব্দটি উদ্ভুত হয়েছে বলে যারা মনে করেন, তারা বলেন মহানবী (দঃ) এর সাথে একদল মানুষ সদাই নবীজীর (দঃ) জন্য প্রস্তুুত থাকতেন , তাঁরা মসজিদে নববীতেই থাকতেন , তারা ঘর- সংসার করেন নি, তাঁরা ছিলেন রাসূলে নিবেদিত প্রাণ, এদের বলা হতো আসহাবে সুফফা। সুফিগণ এঁেদর ভক্ত বা অনুসারী হিসেবে নিজেদের বিবেচনা করতেন বিধায় সুফী শব্দটি সফ শব্দ হতে উদ্ভুত হয়েছে বলে ধারণা করা হয়।
৪। সুফিয়া বা সুইউফ এটি গ্রীক শব্দ এর অর্থ প্রভুর বা ঈশ্বরের জ্ঞান । সুফিগন সব সময় স্রষ্টার সাধনায় মগ্ন থাকতেন, তাঁকে জানতে চাইতেন, তাঁর মহিমা বুঝতে চাইতেন , তাঁর আদি রহস্য উৎঘাটন করতেন, প্রসঙ্গত বলা যায় যে, এই ঝড়ঢ়যরধ শব্দের সাথে চযরষড়ং শব্দটি অর্থ প্রেম যোগ করে চযরষড়ং+ঝড়ঢ়যরধ= চযরষড়ংড়ঢ়যবৎ শব্দটি তৈরী করা হয়েছে যার অর্থ জ্ঞান প্রেম বা জ্ঞানপ্রেমী । মহাত্মা প্ল্যাটো (৪২৮/৪২৭-৩৪৮/৩৪৭ খৃঃ পূঃ) গ্রীক দার্শনিক/রাজা চযরষড়ংড়ঢ়যবৎ করহম এর যে বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করেছেন তাতে তিনি যে একজন ঐশ্বরিক জ্ঞান সম্পন্ন রাজা হবেন তাই বর্ণনা করেছেন। তাই আমরা ধারণা করতে পারি প্রকৃতপক্ষে গ্রীক ভাষার চযরষড়ংড়ঢ়যবৎ শব্দটির অর্থ হলো ঐশ্বরিক জ্ঞানে জ্ঞানী। কিন্তু পরবর্তীত ইংরেজ চিন্তাবিদগণ এই শব্দ আংশিক পরিবর্তন করে চযরষড়ংড়ঢ়যবৎ অর্থ জ্ঞানের অনান্য সকল শাখাকে এই শব্দের অর্থ হিসাবে নির্বাচন করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় আধুনিক শিক্ষার ব্যবস্থার সর্বোচ্চ ডিগ্রী হিসাবে উড়পঃড়ৎ ড়ভ চযরষড়ংড়ঢ়যবৎ নির্ধারণ করা হয়েছে। অবশ্য বাঙালি চিন্তানায়কগণ এই শব্দের বাংলা অর্থ হিসেবে দার্শনিক শব্দটি নির্ধারণ করে এর মধ্যে অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে দেখে প্রকৃত সত্য জানার আগ্রহকে বুঝিয়েছেন। অথবা জ্ঞান চক্ষু দিয়ে প্রকৃত সত্যকে যিনি দেখেন তিনিই দার্শনিক। (চলবে)

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন