ঢাকা, মঙ্গলবার , ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৭ কার্তিক ১৪২৬, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

খেলাধুলা

১১ দফা দাবির পক্ষে আছি, থাকব

আমি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ অক্টোবর, ২০১৯, ১২:০১ এএম

গত দু’দিন থেকে উত্তপ্ত ক্রিকেটপাড়া। সাকিব-মুশফিকদের ১১ দফা দাবি জানানো, এমনকি না আদায়ে ধর্মঘটে যাওয়া এ নিয়ে উত্তাল মিরপুর। কিন্তু একজনের উপস্থিতি খুব করে চাইছিল ক্রিকেটারতো বটেই সংবাদমাধ্যমগুলোও। বেলা গাড়িয়ে রাত এলেও সেই মাশরাফী বিন মুর্ত্তজার খোঁজ মিলছিলো না কোনো ভাবেই। অবশেষে প্রেক্ষাপটে এলেন ওয়ানডে অধিনায়ক, জানালেন নিজের অবস্থান। সাকিবের সংবাদ সম্মেলনের রাতেই নিজের অফিশিয়াল ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়ে দেশসেরা অধিনায়ক লিখলেন, ‘আমি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, ‘১১ দফা দাবির পক্ষে আছি, থাকব।’

গতপরশু দুপুরে মিরপুর একাডেমি মাঠে ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাফি ঘোষণার সময় মাশরাফির অনুপস্থিতি জন্ম দিয়েছিল অনেক প্রশ্নের। নিজেদের দাবির কথা জানানোর পর প্রশ্নোত্তর পর্বের খুব বেশি সুযোগ ছিল না সংবাদ সম্মেলনে, মাশরাফির না থাকার প্রসঙ্গ তাই তখন উত্থাপনের সুযোগ ছিল না। তবে গত বিশ্বকাপের পর থেকে মিরপুর স্টেডিয়ামে তাকে দেখা গেছে কদাচিৎ। আগামী মে মাসের আগ পর্যন্ত সূচিতে বাংলাদেশের ওয়ানডে ম্যাচ নেই বলে মাশরাফিও দীর্ঘদিন নেই ক্রিকেটের সংস্পর্শে। তারপরও ক্রিকেটারদের এমন পদক্ষেপের দিনে তার না থাকা অবাক করেছিল অনেককেই।

রাত সাড়ে ১১টার একটু পর নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পাতায় নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন মাশরাফি, ‘অনেকেই প্রশ্ন করছেন যে, দেশের ক্রিকেটের এমন একটি দিনে আমি কেন উপস্থিত ছিলাম না। আমার মনে হয়, প্রশ্নটি আমাকে না করে, ওদেরকে করাই শ্রেয়। এই উদ্যোগ সম্পর্কে আমি একদমই অবগত ছিলাম না। নিশ্চয়ই বেশ কিছু দিন ধরেই এটি নিয়ে ওদের আলোচনা ছিল, প্রক্রিয়া চলছিল। কিন্তু এ সম্পর্কে আমার কোনো ধারণাই ছিল না। সংবাদ সম্মেলন দেখে আমি ওদের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে পেরেছি। মিডিয়ায় ওদের খবর দেখার পর থেকে হাজারবার আমার মাথায় এই প্রশ্ন এসেছে, যে কেন আমাকে জানানো হলো না। অনেকে আমার কাছে জানতেও চেয়েছেন। কিন্তু আমি নিজেও জানি না, কেন জানানো হয়নি।’

ক্রিকেটারদের বেতন-ভাতা বাড়ানোসহ আরও নানা দাবিতে আগে বেশ কবারই বিসিবির সঙ্গে কথা বলা বা দেন দরবারে অগ্রণী ছিলেন মাশরাফি। সেটি মনে করিয়ে দিয়ে বর্তমান দাবির সঙ্গে একাত্মতা জানালেন, প্রত্যয় জানালেন পাশে থাকার, ‘ক্রিকেটারদের নানা দাবির সঙ্গে আমি আগেও একাত্ম ছিলাম, এখনও আছি। আজকের পদক্ষেপ সম্পর্কে আগে থেকে জানতে পারলে অবশ্যই আমি থাকতাম। তবে আমার উপস্থিত থাকা কিংবা না থাকার চেয়ে, ১১ দফা দাবি বাস্তবায়িত হওয়াই বড় কথা। সবকটি দাবিই ন্যায্য, ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের মঙ্গলের জন্য জরুরি। আমি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, ১১ দফা দাবির পক্ষে আছি, থাকব।’

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (11)
Jamil ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২০ এএম says : 0
Shakib is setting himself as the new leader of Bangladesh cricket probably that's why he did not want Mash there as he will sure get most of the attention.
Total Reply(0)
Rudhro ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২১ এএম says : 0
এগুলার বেতন ভাতা কমিয়ে দেওয়া হোক আরো...এতো টাকা কামাই খেলা থেকে ,আবার একটা ম্যাচ জিতলেই সরকার থেকে ফ্ল্যাট ,বাড়ি, গাড়ী পুরস্কার তো আছেই,,, তবু এদের মন ভরে না...অথচ খেলাতে এক একটা এখনো শিক্ষানবিশ , ম্যাচের পর ম্যাচ হেরে বলে আমরা এখনো শিখছি,, বিশ বছর ধরে শিখেই যাচ্ছে,, সেদিনের আফগানিস্তানের সাথেও দেশের মাটিতে হোয়াট-ওয়াস হয় ,,,আবার বলে তাদের সুযোগ সুবিধা বাড়াতে হবে...বিসিবির উচিত পারফরম্যান্সের উপর ভিক্তি করে বেতন নির্ধারণ করা এবং এদের বেতন কোনোভাবেই ১ লাখের উপর দেওয়া উচিত না.... আমরা হাজার হাজার ছেলে অনার্স-মাস্টার্স শেষ করে ১০-১৫ হাজার টাকা বেতনের চাকরি পাই না,,, আর এরা কিছু ম্যাচ খেলে ফালতু পারফরম্যান্স করেও লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করে, তাও নাকি কম হচ্ছে এদের।.সবগুলাই লোভী,, এদের সবাইকে বহিস্কার করা হোক, দরকার হলে কয়েক বছরের জন্য ক্রিকেট থেকে আমরা নির্বাসনে যাই তাও ভালো,,, এমনিতে ম্যাচের পর ম্যাচ হার দেখতে দেখতে আমরাও বিষণ ক্লান্ত।পারফরম্যান্সের বালাই নেই, শুধু খাই খাই স্বভাব।অল্প টাকাই কিংবা অল্প সুযোগ সুবিধাই যারা খেলবে শুধু তাদেরকেই বিসিবির চুক্তিবদ্ধ করা উচিত।বাকিদের আজীবনের জন্য বহিস্কার করুন।
Total Reply(0)
M HASAN FUAD ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২১ এএম says : 0
রাজনীতিবিদদের ঘরের মানুষই বিশ্বাস করে না। উনারা কি ভাবে করবেন?
Total Reply(0)
Madhusudan Roy ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২১ এএম says : 0
Now a days You are a politician than a player. So may be that is the reason you did not get listen from the players.
Total Reply(0)
মেহেদী ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২২ এএম says : 0
মাশরাফি তো আর খেলে না, তাই ওকে জানানোর প্রয়োজন বোধ করেনি খেলোয়াড়রা।
Total Reply(0)
Md Siyam Akanda ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২২ এএম says : 0
ক্রিকেটের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চলছে। এখানে পলিটিক্স গ্রাস করেছে। তাদের দাবি দাবা এবং বাংলাদেশের সকল ক্রীড়া অঙ্গন পরিপূর্ণ পরিকল্পনা অনুযায়ী সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখনই সময়।
Total Reply(0)
Mansoor Ahmed ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২৩ এএম says : 0
If you are in cricket, you definitely would have known. Since you are no more in cricket, they thought what is the use of informing you. By the way, are you still enjoying salaries and other benefits as a national team cricketer? If so, it is illegal. Because you are also enjoying similar things as an MP.
Total Reply(0)
S Alam ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২৩ এএম says : 0
এম পি হয়ে যাওয়ার পর আপনি তো সাধারণ মানুষের কাতারের ইচ্ছা করলেই থাকতে পারবেন না। দাবীগুলা আপনার মুখ থেকেই আসা উচিত ছিলো। কিন্তু..... আপনার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল খেলা ছাড়ার আগে রাজনীতিতে যাওয়া। বিশ্বকাপে দেশ ভুগছে সেই জন্য, এখন আপনার হাত থেকে নেতৃত্ব চলে যাচ্ছে৷ আপনি হয়ে গেছেন না ঘরকা না ঘাটকা। তাও ক্যাপ্টেন ম্যাসকে চাই, এম পি মাশরাফীকে না।
Total Reply(0)
Anisur Rahman ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:২৩ এএম says : 0
মাশরাফি যেদিন থেকে এমপি হয়েছেন সেদিন থেকে তিনিও সরকারের একটা অংশ হয়েগেছেন। তাই হয়ত সাধারন খেলোয়াড়রা কোন সরকারী/বোর্ড কর্মকর্তাদের সাথে আগে যোগাযোগ করেননি! যেমনটা আকরাম খান তামিমের পরিবারের সদস্য হয়েও জানতে পারেননি! এটা শুধু সরকারের কাছে ক্রিকেটারদের দাবী। অতএব এ বিষয়ে মাশরাফির কষ্ট পাওয়ার কিছু নেই। এ আন্দোলনে তাকে শুধুই একজন সংসদ সদস্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছে। দয়াকরে এটাকে নিয়ে কেউ রাজনীতি করবেন না (জাতীয় সার্থে)।
Total Reply(0)
sm mozibur bin kalam ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ৮:০৭ এএম says : 0
মাশরাফি এখন রাজনীতি করে তাই তাকে পুরোপুরি বিশ্বাস করা ঠিক হবেনা।পাশে থাকলে ভালো না থাকলেও চলবে।
Total Reply(0)
নাসির উদ্দিন নাসু ২৩ অক্টোবর, ২০১৯, ২:৫৪ পিএম says : 0
দেশের দিক বিবেচনা করে ক্রিকেট বোড ও খেলোয়াদের আলোচনায় এগিয়ে আসতে হবে। কারণ ক্রিকেটে বাংলাদেশের জনগনের আবেগ লুকি আছে।
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন