ঢাকা, বুধবার , ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

তুরস্কের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে বাগদাদির স্ত্রী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ নভেম্বর, ২০১৯, ৩:১৭ পিএম

মার্কিন অভিযানে নিহত আইএস নেতা আবু বকর আল বাগদাদির স্ত্রীর কাছ থেকে জঙ্গি সংগঠনটির ‘অভ্যন্তরীণ কার্যকলাপ’ সম্পর্কে বহু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছে তুরস্ক। গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, ধৃত ওই মহিলা নিজেকে রানিয়া মেহমুদ বলে পরিচয় দিয়েছিলেন। তার প্রকৃত নাম আসমা ফাওজ়ি মহম্মদ আল-কুবায়সি। তিনি বাগদাদির ‘প্রথমা স্ত্রী’ বলে জানা গিয়েছে।

তুরস্ক জানিয়েছে, সিরিয়া সীমান্তে হাতায় প্রদেশ থেকে ২০১৮ সালের ২ জুন গ্রেফতার করা হয় ওই মহিলাকে। তার সঙ্গে আরও ১০ জনকে আটক করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে ছিলেন বাগদাদির মেয়েও। তিনি নিজেকে লীলা জ়াবির বলে পরিচয় দিয়েছেন। তুরস্কের এক সরকারি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাগদাদি হত্যার পরে তার ডিএনএ পরীক্ষা করে পারিবারিক যোগসূত্র নিয়ে নিশ্চিত হওয়া গিয়েছে। ওই কর্মকর্তা জানান, ‘আমরা ওর (স্ত্রী) পরিচয় খুব তাড়াতাড়িই জানতে পেরেছি। এই মুহূর্তে নিহত বাগদাদি ও আইএসের গতিবিধির বিষয়ে প্রচুর তথ্য তার থেকে জানা যাচ্ছে।’

বুধবারই প্রথম বাগদাদির স্ত্রীকে আটক করার খবর জানান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান। আঙ্কারা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যেই আইএস সম্পর্কে যা জানি তা ঠিক কী না নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে। পাশাপাশি আমরা নতুন অনেক তথ্য পাচ্ছি। যে সূত্র ধরে আইএসের সঙ্গে যুক্ত আরও অনেককে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।’ সোমবার উত্তর সিরিয়ার আজ়াজ় শহরের কাছে বাগদাদির বড় বোন রেশমিয়া আওয়াদকে গ্রেফতারের কথা জানিয়েছিল তুরস্ক। গ্রেফতার হন তার স্বামী, পাঁচ ছেলেমেয়েও। আইএস নেতার পরিবারের ঘনিষ্ট সদস্যদের গ্রেফতার তুরস্কের সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানের ক্ষেত্রে বড় সাফল্য হিসেবে দেখছে এরদোগান সরকার।

এ দিকে, সিরিয়ায় তুরস্কের সাম্প্রতিক অভিযান নিয়ে গত কাল এরদোগানের সঙ্গে ফোনে কথা হয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। আগামী ১৩ তারিখ ওয়াশিংটনে তাদের বৈঠকে বসার কথা। গত মাসে মার্কিন প্রতিনিধি সভায় ঘোষণা করা হয়, ১৯১৫-১৬ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়ে আর্মেনীয়দের উপরে ‘গণহত্যা’ চালিয়েছিল অটোমান তুর্কিরা। যাতে প্রাণ হারান ১৫ লাখ মানুষ। এই ঘোষণায় প্রবল ক্ষুব্ধ হয় তুরস্ক। যার জেরে ট্রাম্পের সঙ্গে এরদোগানের বৈঠক বাতিল হয়ে যাবে বলে জল্পনাও শোনা গিয়েছিল। যা উড়িয়ে দিয়ে বুধবারই ফোনে কথা হয় দুই রাষ্ট্রনেতার।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
jack ali ৮ নভেম্বর, ২০১৯, ৭:৪৮ পিএম says : 0
Edrogan is fighting against muslim====not the Kafir????????
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন