ঢাকা শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭, ০৮ সফর ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সিনহা হত্যা পুলিশের প্রতি অনাস্থা আরও বাড়িয়েছে: সাখাওয়াত হোসেন

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৪ আগস্ট, ২০২০, ১:০৯ পিএম

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানের হত্যাকাণ্ডে পুলিশের প্রতি অনাস্থা আরও বাড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসর) এম সাখাওয়াত হোসেন।

তিনি বলেছেন, সিনহা এমন অন্যায় করেনি, যে কারণে তাকে গুলি করতে হলো! সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা হত্যাকাণ্ড নিয়ে এক গণমাধ্যমের কাছে এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন সাখাওয়াত হোসেন। তিনি বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে। তদন্তের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। কিন্তু মিডিয়াতে যেভাবে এই হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি ওঠে এসেছে, তা সত্যিই অবাক করেছে। একটি পুলিশ ফাঁড়ির কাছে ঘটনা। ফাঁড়িতে বহু পুলিশ থাকেন। আর নিহত সিনহারা ছিলেন, মাত্র দু’জন’।

তিনি বলেন, ‘অন্যায় করলে তাকে গ্রেফতার করা যেত। এভাবে গুলি করে হত্যা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড কিনা তা বলার সময় আসেনি, কিন্তু এর দায় পুলিশ সদস্যরা এড়াতে পারে না। আমি নিশ্চিত স্বরাষ্টমন্ত্রী এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে সিরিয়াস হবেন। উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আশা করছি সঠিক তথ্য বেরিয়ে আসবে’।

কোনো ষড়যন্ত্র কিনা-এমন প্রশ্নের জবাবে এই নিরাপত্তা বিশ্লেষক বলেন, ‘আমি বলতে চাই না পুলিশের মধ্যে সরকারবিরোধীরা সক্রিয়। কিন্তু ক্রসফায়ার নিয়ে তো সমালোচনা আছেই। পুলিশ নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত, তাও প্রমাণিত। থানার ওসিদের অনেকের বিরুদ্ধেই অভিযোগ। পুলিশের কর্মকাণ্ডে সরকার বিব্রত আগে থেকেই। আর এই ঘটনা সরকারের অস্বস্তি আরও বাড়িয়েছে। করোনাসহ নানা সমস্যা সামলাতে হচ্ছে সরকারকে। এমন সময়ে এই ঘটনার জন্য কেউই প্রস্তুত থাকার কথা নয়। তদন্তের মাধ্যমে সত্যটি বেরিয়ে আসুক। আস্থা ফিরে আসুক জনমনে’।

গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

এক সময় স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সে দায়িত্ব পালন করা রাশেদের বয়স ছিল ৩৬ বছর। তার বাবা মরহুম এরশাদ খান ছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন সাবেক উপসচিব।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (13)
মোঃ ছবিরুল হক রায়হান ৪ আগস্ট, ২০২০, ১:৩৭ পিএম says : 0
পূর্বে এরকম ঘটনা বহুল ঘটেছে। আগেরগুলোর বিচার না হওয়াতে এটা করার সাহস হয়েছে। আর এটার বিচার না হলে ভবিষ্যতে আরও ভয়াবহ হবে । দেশ এক সংকটময় পরিস্থিতির মধ্যে এগোচ্ছে। আমি দেশের একজন নাগরিক হয়ে এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার প্রত্যাশা করি।
Total Reply(0)
রিফাত ৪ আগস্ট, ২০২০, ২:৩৯ পিএম says : 1
নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসর) এম সাখাওয়াত হোসেন স্যার একদম ঠিক কথা বলেছেন
Total Reply(0)
উর্মি ৪ আগস্ট, ২০২০, ২:৪০ পিএম says : 0
ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক ও দুঃখজনক
Total Reply(0)
শাহাদাত হোসেন ৪ আগস্ট, ২০২০, ২:৪১ পিএম says : 1
আশা করি সুষ্ঠ তদন্তে মাধ্যমে অপরাধীদের কঠোর শাস্তি প্রদান করা হবে।
Total Reply(0)
রিমন ৪ আগস্ট, ২০২০, ২:৩৯ পিএম says : 2
আমরা পুলিশকে সত্যে ও ন্যায়ের প্রতিক হিসেবে দেখতে চাই
Total Reply(1)
মতিন ৪ আগস্ট, ২০২০, ৪:০৭ পিএম says : 2
তখনই দেখতে পাবেন যখন তাদের নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করতে দেওয়া হবে। সেটা এদেশে সম্ভব কিনা ভেবে দেখবেন।
ইকবাল ৪ আগস্ট, ২০২০, ২:৪২ পিএম says : 0
অন্যায় করলে তাকে গ্রেফতার করা যেত। এভাবে গুলি করে হত্যা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।
Total Reply(0)
রুমি ৪ আগস্ট, ২০২০, ২:৪৩ পিএম says : 0
আশা করছি সঠিক তথ্য বেরিয়ে আসবে।
Total Reply(0)
রেজা ৪ আগস্ট, ২০২০, ৩:০৯ পিএম says : 1
যেখানে প্রাইভেট কার আছে নিজস্ব এটাইতার বড় পরিচয় ছিল এর পর বিজিবি চেক করেছে তারপরও নির্মম এই হত্যা আমি নিজেই পোস্টটি পড়ে হতভম্ব। সেনাবাহিনীর হউক অবঃ কর্মকর্তা। তবুওএদেশের রত্ন তারা। আমিও এর সুসঠ বিচার চাই।
Total Reply(1)
মতিন ৪ আগস্ট, ২০২০, ৪:০৩ পিএম says : 1
বিজিবি চেক করেছিল তা পুলিশ জানবে কিভাবে?
মতিন ৪ আগস্ট, ২০২০, ৩:৫৫ পিএম says : 0
আসল ঘটনা না জেনেই বিভিন্ন মন্তব্য করা হচ্ছে। গুলি করে মারা হয়েছে তাতে সন্দেহ নাই। সেটা অবশ্যই অপরাধ। তার আইন অনুযায়ী বিচার হওয়া উচিৎ। কিন্তু আসল সত্য কি সেটা আগে জানতে হবে। যা আমরা কেউ এখনো জানি না। পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ কতটা বিশ্বাসযোগ্য? এক পত্রিকা বলছে মেজর গাড়ী থেকে বের হবার সাথে সাথে গুলি করেছে। অন্যটা বলছে বের হবার পর মেজর বলেছে আমার পরিচয় আছে। তখন কুত্তার বাচ্চা বলে গুলি করেছে। কোনটা সঠিক? আবার লিখেছে মেজর নামার সাথে সাথে কিছু না বলে গুলি করেছে ও তাকে নয়ে তদন্ত কেন্দ্রে চলে গিয়েছে ০৮.৪৫ এর দিকে। আবার ০৯.৩০ এর সময় সার্জন্ট ঘটনাস্থলে আসার পর সেখানে তার পরিচয় পেয়ে সেখান থেকে হাসপাতালে নিয়ে গেছে। তদন্তকেন্দ্রে নেবার পর আবার ঘটনাস্থলে আনল কখন কিভাবে? আসলে সাংবাদিকরা যাচাই না করে মনগড়া সংবাদ লেখে আর তা ভাল করে বিশ্লেষণ না করেই আমরা আবেগে অনেক কিছু লিখি ও অযৌক্তিক ও বে আইনি দাবী তোলা শুরু করি। যদিও জানি আমি যা দাবী করছি তা পুরন করা সম্ভব না। তাই রয়ে সয়ে বুঝে তারপর মন্তব্য করা উচিৎ। দোষীকে যেন কোন প্রকার ছাড় না দেওয়া হয় এই আশা করি।
Total Reply(0)
Zia uddin ৪ আগস্ট, ২০২০, ৪:১৭ পিএম says : 0
We need Exemplary punishedment.
Total Reply(0)
ইমরান মোঃ শরীফ ৪ আগস্ট, ২০২০, ৫:২৭ পিএম says : 0
ন্যায় বিচার কামনা করছি। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।
Total Reply(0)
Mrh Rubel ৫ আগস্ট, ২০২০, ৪:১২ পিএম says : 0
বড় পরিতাপের বিষয়,একজন সাবেক মেজরের সাথে যদি এমন অাচরন করা হয় তাহলে বুঝা যায় সাধারন লোকের কি অবস্থায় না পরতে হয়।
Total Reply(0)
জামাল ৬ আগস্ট, ২০২০, ৮:১০ পিএম says : 0
এই ঘটনা যাতে অন্য দিকে মোর না নেয় সে দিকে দুই বাহিনীকে সোচ্চার থাকতে হবে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন