শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ০৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মুহাররম ১৪৪৪

ধর্ম দর্শন

প্রশ্ন : ইবাদতের পরিচয় কি?

| প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০১ এএম

উত্তর : আল্লাহ তা’আলা মানুষকে সৃষ্টি করেছেন আর মানুষকে আদেশ দিয়েছেন একনিষ্ঠভাবে তাঁর ইবাদত করার শিরিক না করার। কোরআনের বিভিন্ন জায়গায় এ বিষয়ে উল্লেখ রয়েছে। সূরা বনী ইসরাইলের ২৩ নম্বর আয়াতে উল্লেখ হয়েছে “আর তোমার পালনকর্তা আদেশ করেছেন, তাঁকে ছাড়া অন্যকারো ইবাদত করো না এবং পিতা-মাতার সাথে ভালো ব্যবহার করো।“ ইবাদত করতে হবে শরীর, মন ও উপার্জন পবিত্র করে। হাদিসে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ ‘পবিত্রতা ছাড়া নামায কবুল হয় না ও হারাম উপায় প্রাপ্ত সম্পদের দান-সদকাও কবুল হয় না।‘ (তিরমিযি, হাদিস ১, সহিহ)
ইবাদতের সংজ্ঞা: ইবাদত অর্থ আনুগত্য, দাসত্ব করা, সর্বোচ্চ পর্যায়ের নত হওয়া। পরিভাষায়: আল্লাহর নির্দেশে আল্লাহর জন্য সন্তুষ্টিমূলক কর্ম। ইবাদতের সমার্থক কিছু শব্দ রয়েছে: (১) কুরবত, অসিলা। অর্থ: নৈকট্য। পরিভাষায়: এমন কর্ম যেগুলো করলে আল্লাহর নৈকট্যবান বান্দা হওয়া যায়। যেমন সূরা মায়েদার ৩৫ নম্বর আয়াতে উল্লেখ হয়েছে: “তোমরা আল্লাহর নৈকট্য কামনা করো।“ (২) ত্বআত, এতাআত। অর্থ: আত্মসমর্পণ, আনুগত্য। এতাআত, আল্লাহর, রাসূলের বা কোন ব্যক্তিরও হতে পারে। যেমন কুরআনে উল্লেখ হয়েছে: সূরা নিসা ৫৯ নম্বর আয়াত, “হে ঈমানদারগণ তোমরা আনুগত্য করো আল্লাহর, আনুগত্য করো রাসূলের এবং তোমাদের মাঝের ক্ষমতার অধিকারীদের।“ ক্ষমতার অধিকারী বলতে শাসক, বিচারক এবং ধর্মীয় পন্ডিত, তাদের আনুগত্য করা যাবে শুধু ন্যায় বিষয়গুলোতেই, অন্যায় আদেশ করলে তাদের আনুগত্য করা হবে না।
ইবাদতের মূল নীতি হচ্ছে, যে ইবাদত করা হচ্ছে তা ওহির ভিত্তিতে প্রমাণিত হতে হবে, নিজের মনমত কিছু করার নাম ইবাদত নয়। এমনিভাবে ইবাদতে নিয়ত শর্ত, নিয়ত করলেই কেবল ইবাদত হিসেবে গৃহীত হবে।
আল্লাহ আমাদেরকে সঠিকভাবে তাঁর ইবাদত করার তাওফীক দান করুন, আমীন।
উত্তর দিচ্ছেন : মুফতি আবু বকর সিদ্দিক খতিব, ইব্রাহীমনগর মসজিদ, নামুজা, বগুড়া।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
মোঃদেলোয়ার হোসেন ৬ নভেম্বর, ২০২১, ৪:৩০ পিএম says : 0
মোবাইল ফোনের মধ্যে ছবি তুলে রাখা যাবে?
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন