ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

আনাসপন্থীরা অভিমান ভুলে হেফাজতে ফিরতে আগ্রহী

চট্টগ্রাম ব্যুরো ও হাটহাজারী সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২০ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০২ এএম

হেফাজতে ইসলামে ফিরতে চান নতুন কমিটিতে বাদ পড়া প্রতিষ্ঠাতা আমির শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.)-এর পুত্র মাওলানা আনাস মাদানির অনুসারীরা। মান-অভিমান ভুলে মূলধারায় ফিরে আসলে তাদের বরণ করতেও কোন বাধা নেই বলে জানিয়েছেন নতুন কমিটির নেতারা। সম্মেলনকে ঘিরে কিছু নেতার সাথে তিক্ততা সৃষ্টি হলেও হেফাজতে এখন ঐক্যের সুর শোনা যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কতিপয় নেতা হেফাজতে ইসলামের জাতীয় প্রতিনিধি সম্মেলন ও কাউন্সিলের বিরোধিতা করেন। নতুন কমিটিতে তাদের রাখা হয়নি। তারা এখন মূলধারায় ফিরতে আগ্রহী। কিছু শর্ত মেনে এবং কমিটিতে তাদের অন্তর্ভুক্ত করা হলে তারা ফিরে আসবেন এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন। আবার হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বেশ কিছু সংখ্যক পদ এখনও খালি থাকায় তাদের ফিরিয়ে আনার সুযোগ এবং সেইসাথে কমিটির নেতাদের আগ্রহের বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করছেন অনেকে। গত কয়েকদিনে বিভিন্ন পর্যায়ে আলাপ-আলোচনায় উভয় পক্ষের দূরত্ব কিছুটা কমেছে বলে জানা গেছে।

গত ১৫ নভেম্বর প্রতিষ্ঠার ১০ বছর পর অরাজনৈতিক এ সংগঠনের প্রথম জাতীয় প্রতিনিধি সম্মেলন ও কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসায় সম্মেলনে শায়খুল হাদিস আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরীকে আমির এবং আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমীকে মহাসচিব করে ১৫১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। নবগঠিত ১৫১ সদস্যের মধ্যে ১২০ জনকে পদ দেয়া হয়েছে। বাকি ৩১ জনকে পরে সংযুক্ত করবে নতুন কমিটিতে। জানা গেছে, সম্মেলনের যারা বিরোধিতা করেছিলেন তারা এখন সংগঠনে ফিরতে চান। শূণ্যপদগুলোতে আসতে চান তাদের অনেকে।

তারা কিছু শর্ত দিয়ে হেফাজতে ফিরতে চান। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- ঘোষিত কমিটি সংস্কার, প্রতিষ্ঠাতা আমির আল্লামা শফীর নীতি ও আদর্শ মেনে চলা। বর্তমান কমিটির নেতারা বলছেন তাদেরকে বহিষ্কার করা হয়নি। হলুদ কার্ড প্রদর্শন তথা তাদের কৃতকর্মের জন্য সতর্ক করা হয়েছে মাত্র। আর হেফাজতে ইসলাম আল্লামা শফীর নীতি বা মূল আদর্শ থেকে একচুলও বিচ্যুত হয়নি। তারা আসতে চাইলে তাদের গ্রহণ করার সুযোগ রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে হেফাজতের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দীন রুহী ইনকিলাবকে বলেন, একটি পরিবারের সদস্যের মধ্যেও মতবিরোধ হয়, মান অভিমান হয়। হেফাজতে ইসলাম আমাদের জন্য একটি পরিবারের মতো। আমরাই হেফাজতের প্রতিষ্ঠা করেছি মহান উদ্দেশ্য নিয়ে। বর্তমানে যে কমিটি করা হয়েছে তাতে কতিপয় ব্যক্তিকে পদ দেয়া হয়েছে।

হেফাজতে ইসলাম কোন ব্যক্তি বা দলকেন্দ্রিক সংগঠন নয়, তৌহিদী জনতা, ইসলাম প্রিয় মানুষের প্রাণপ্রিয় সংগঠন এ দেশের কওমি আলেম ও মুসলমানদের একটি ঐক্যবদ্ধ এ সংগঠন। হেফাজতের ভাঙন আমরা চাই না। বর্তমান কমিটির নেতারা যদি আল্লামা শফীর নীতি ও আদর্শে ফিরে আসেন তাহলে একযোগে মিলে মিশে এক হয়ে কাজ করতে আমাদের কোন সমস্যা নেই।

এসব বিষয়ে আজ শনিবার ঢাকায় তাদের অনুসারী আলেম-ওলামা এবং হেফাজত নেতাদের নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে আলোচনার ভিত্তিতে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে আপাতত হেফাজতের কোন পাল্টা কমিটি করার চিন্তা-ভাবনা নেই বলেও জানান তিনি।

এদিকে শিগগিরই বাকি ৩১ জনকে যুক্ত করে হেফাজতের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন এক নেতা। এই ব্যাপারে হেফাজতের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী জানান, হেফাজতে ইসলাম কারো পকেটের নয়। এটি হলো তৌহিদী জনতার অরাজনৈতিক সংগঠন। আমরা কোন গ্রæপ বুঝিনা। আসুন সবাই এক নীতিতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করি। হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা নাসির উদ্দিন মনির বলেন, তারা ফিরে আসতে চাইলে তাদের কিভাবে গ্রহণ করা হবে এ সিদ্ধান্ত হেফাজতের নেতারাই নেবেন।

উল্লেখ্য, নতুন কমিটিতে ঠাঁই হয়নি সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী, সাবেক প্রচার সম্পাদক মাওলানা আনাস মাদানিসহ বেশ কয়েকজন নেতার।

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (25)
মোঃ আফিফ ২০ নভেম্বর, ২০২০, ১২:৪৮ এএম says : 0
তাদেরকে না রাখলেই হেফাজতের জন্য কল্যান হবে
Total Reply(0)
মারিয়া ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৫:১৮ এএম says : 0
তাদেরকে বুঝে শুনে ফেরাতে হবে।
Total Reply(0)
Kazi Uddin ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৫:২০ এএম says : 0
ঈমান আর কোরআন-হাদিসের রীতির উপর যতক্ষণ প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকবো, আমাদের মাথা অবনত হবেনা, ইসলামের পতাকার পতন হবেনা।
Total Reply(0)
Habib Rahman ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৫:২০ এএম says : 0
Alhamdulillah
Total Reply(0)
Md Md Ak Sohel ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৫:২১ এএম says : 0
হেফাজতে ইসলাম ওদের কোন প্রয়োজন নাই ওরা আসলেই বা কি না আসলেই বা কি বরং ওরা এখন বুঝতে পারতেছে ওদের কোন গ্রহণযোগ্যতা নেই এই দালালরা শুধু হেফাজতকে ব্যবহার করছে
Total Reply(0)
salman ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৬:০৮ এএম says : 0
Ma sha Allah, Alhamdulillah, Valo e hobay. AKOTA e Bol, but ....
Total Reply(0)
করিম ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৮:২৪ এএম says : 0
নতুন কোন ফন্দি ফিকির করবে না তো? নাকি কারো নুন খাওয়া শেষ।
Total Reply(0)
জালাল আহমেদ ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৮:৫৪ এএম says : 0
দুষ্ট গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল অনেক ভালো,,
Total Reply(0)
জালাল আহমেদ ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৮:৫৪ এএম says : 0
দুষ্ট গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল অনেক ভালো,,
Total Reply(0)
Abdullah Al Arify ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৮:৩৮ এএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ! তারা যদি বর্তমান কমিটিতে যোগদান করতে চায়। তাহলে আমার মতামত হলো তারা তাদের পূর্বের কৃতকর্ম স্বীকার করতে হবে। এবং দেশবাসীর নিকট ক্ষমা চেয়ে প্রবেশ করলে মনে হয় ভাল হবে। আর তাদেরকে গুরুত্বপূর্ণ কোন দায়িত্ব আপাতত না দেওয়াই উত্তম।
Total Reply(0)
Mohammad Ashik Uddin ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৯:৩৯ এএম says : 0
পুরো জাতির সামনে তাদের পূর্বের ভুলের সঠিক ব্যাখ্যা দিয়ে ক্ষমা চেয়ে নেওয়ায় পর এবং ভবিষ্যতে সেই ভুলের পুনরাবৃত্তি ঘটাবেনা এমন প্রতিজ্ঞা নিয়ে হেফাজতে ইসলামের সাধারণ সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে, সেই সাথে চরমোনাই এর ফয়জুল করিম সাহেব কে মূল্যায়ন করার অনুরোধ করছি।
Total Reply(1)
Hathazari ২১ নভেম্বর, ২০২০, ১১:১৭ এএম says : 1
চরমোনাই এর ফয়জুল করিম সাহেব তো আমামীলীগের লোক
Mohammad Ashik Uddin ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৯:৪১ এএম says : 0
পুরো জাতির সামনে তাদের পূর্বের ভুলের সঠিক ব্যাখ্যা দিয়ে ক্ষমা চেয়ে নেওয়ায় পর এবং ভবিষ্যতে সেই ভুলের পুনরাবৃত্তি ঘটাবেনা এমন প্রতিজ্ঞা নিয়ে হেফাজতে ইসলামের সাধারণ সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে, সেই সাথে চরমোনাই এর ফয়জুল করিম সাহেব কে মূল্যায়ন করার অনুরোধ করছি।
Total Reply(0)
Muzzammil ২০ নভেম্বর, ২০২০, ২:৩৭ পিএম says : 0
তাদেরকে স্থান দেওয়া মানে হেফাজতের জন্যে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত
Total Reply(0)
Md.Mahfujur Rahman. ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৪:২৩ পিএম says : 0
Mawlana Ruhike bad deye Mawlana Anas k newa jeye pare.karon tini Ahmed Shofi(RH) Hujure putro. Ar Ruhir kono background nai. 1no dalal. Mittha bolte bolte onar chehara theke noor chole gese.
Total Reply(0)
মোঃ আশরাফুল হক ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৭:১১ পিএম says : 0
মুলোতো এখন আর আন্দোলন করে কোথায় যাওয়ার ব্যাবস্থা নেই , আর সাধারণ মানুষ তাদের চিহ্নিত করে ফেলেছে , সংগঠন বাপ দাদার সম্পত্তি নয় যে উঃ অধিকার পাবেন, সংগঠন চলে যৌগ নেতা দিয়ে
Total Reply(0)
আব্দুল জলিল ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৬:১৩ পিএম says : 0
নতুন কমিটি করতে গিয়ে গুটিকয়েক জন ঐক্যমতে পৌছতে না পেরে এবং তাদের গ্রহনযোগ্যতা না থাকায় মূল ধারায় ফিরতে চাচ্ছেন আনাস গ্রুপ। এই ফিরে আসতে চাওয়ার পিছনেও কোনো দূরভিসন্ধি থাকাটা অসম্ভব কিছু না! তাঈ ই, তাঁদের দূরে রেখে "হেফাজতে ইসলামের"পথ চলাই হবে সঠিক সিদ্ধান্ত!!
Total Reply(0)
Md.Mahfuzur Rahman ২০ নভেম্বর, ২০২০, ১০:০৫ পিএম says : 0
ওদেরকে না রাখা হবে হেফাজতের মঙ্গল
Total Reply(0)
Tufayel Ahmed ২০ নভেম্বর, ২০২০, ১০:৫৫ পিএম says : 0
গর্তের ভিতরে ইঁদুর রেখে গর্ত ভরাট করা
Total Reply(0)
Tufayel Ahmed ২০ নভেম্বর, ২০২০, ১০:৫৫ পিএম says : 0
গর্তের ভিতরে ইঁদুর রেখে গর্ত ভরাট করা
Total Reply(0)
Rahees uddin ২১ নভেম্বর, ২০২০, ১০:৫২ এএম says : 0
তাদেরকে না নিলে ভালো হয় কারন তারা প্রথমে অনেক নাটক করেছে
Total Reply(0)
Rahees uddin ২১ নভেম্বর, ২০২০, ১০:৫২ এএম says : 0
তাদেরকে না নিলে ভালো হয় কারন তারা প্রথমে অনেক নাটক করেছে
Total Reply(0)
Rahees uddin ২১ নভেম্বর, ২০২০, ১০:৫৬ এএম says : 0
তাদেরকে না নিলে ভালো হয় কারন তারা প্রথমে অনেক নাটক করেছে
Total Reply(0)
Jack Ali ২১ নভেম্বর, ২০২০, ১:০১ পিএম says : 0
O'Muslim do not created division.. those who create division Allah will throw them in the Hell. “My ummah will divide into 73 sects, all of them will be in the Fire except for one, and that is the Jamā’ah.” Allah (the Most High) has commanded us with unity upon the truth, as He stated: وَاعْتَصِمُوا بِحَبْلِ اللَّهِ جَمِيعًا وَلَا تَفَرَّقُوا ۚ “And hold fast to the Rope of Allah, altogether and be not divided.” (Āli ‘Imrān: 103) He also said: إِنَّ الَّذِينَ فَرَّقُوا دِينَهُمْ وَكَانُوا شِيَعًا لَّسْتَ مِنْهُمْ فِي شَيْءٍ ۚ إِنَّمَا أَمْرُهُمْ إِلَى اللَّهِ ثُمَّ يُنَبِّئُهُم بِمَا كَانُوا يَفْعَلُونَ “Indeed, those who have divided their religion and become sects, you O Prophet, are not associated with them in anything. Their affair is left only to Allah and He will inform them about what they used to do.” (Al-An’ām: 159) And He, the Most High, stated: “And do not be like the ones who became divided and differed after the clear proofs had come to them. And those will have a great punishment.” (Āli Imrān: 105) So Allah prohibited us from division and commanded us with unity and holding fast to the Book of Allah and the Sunnah of His Messenger, as He said: وَأَنَّ هَٰذَا صِرَاطِي مُسْتَقِيمًا فَاتَّبِعُوهُ ۖ وَلَا تَتَّبِعُوا السُّبُلَ فَتَفَرَّقَ بِكُمْ عَن سَبِيلِهِ ۚ ذَٰلِكُمْ وَصَّاكُم بِهِ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُونَ “And this is My path, which is straight, so follow it; and do not follow the other paths, for you will be separated from His Path. This has He instructed you that you may become righteous.” (Al-An’ām: 153) So differing and splitting by following one’s desires is not allowed, and likewise the blind following of one’s father and forefathers, or to blindly follow the Jews and Christians. Differing is not permissible in the affairs of belief and in the foundations of the Religion; it is obligatory to have agreement and unity upon these matters.
Total Reply(0)
রাকিব ২২ নভেম্বর, ২০২০, ১:৪৬ পিএম says : 0
আল্লাহ সবাইকে সঠিক বুজ দান করুন। আমিন।
Total Reply(0)
রবিউল ২৪ নভেম্বর, ২০২০, ১০:০৮ পিএম says : 0
যদি তারা আসতে চায় আলহামদুলিল্লাহ, আমরা আসতে দেবো, তবে মনে রাখতে হবে, পুকুরে নামার পূর্বে ওঠার চিন্তা করতে হবে,। নইলে বিপদ অনিবার্য,।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন