ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ০৩ আষাঢ় ১৪২৮, ০৫ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

অল মাদ্রিদ ‘ফাইনাল’ বানালেন সুয়ারেজ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ মে, ২০২১, ১২:০০ এএম

স্পেনে লা লিগা, ফ্রান্সে লিগ ওয়ান। ইউরোপের শীর্ষ দুই লিগই শেষের দিকে এসে বেশ জমজমাট। কোনটি রেখে কোনটি দেখব-এই শঙ্কায় নিশ্চয়ই পড়েছিলেন ফুটবল সমর্থকেরা। নিরবেই যে লা লিগা বলছে আমাকে দেখ, অন্যদিকে লিগ ওয়ান বলছে না, আমাকে দেখ। উত্তেজনার দিক দিয়ে দুই লিগ এবার যা দেখাচ্ছে, কোনো লিগ থেকেই চোখ সরানোর জো ছিলনা।
এত নাটক! লা লিগায় সর্বশেষ কোন মৌসুমে এত নাটক হয়েছে, মনে করা আসলেই মুশকিল। সেই নাটকেরই একটা নতুন পর্ব যেন মঞ্চস্থ হলো গতপরশু রাতে। আর তাতেও কত টুইস্ট! কিন্তু তারপরেও বোঝা গেল না শেষ পর্যন্ত লা লিগার এই মৌসুমের ট্রফি কোন দলের হাতে উঠতে যাচ্ছে। রিয়াল মাদ্রিদ না কি অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ? ও হ্যাঁ, একটা ব্যাপার নিশ্চিত হয়ে গেছে। এ লড়াইয়ে এখন আর বার্সেলোনা নেই।
ওসাসুনার সঙ্গে ড্র করতে বসা ম্যাচটা শেষ মুহূর্তে লুইস সুয়ারেজের গোলে ২-১ ব্যবধানে জিতেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। জিতেছে মাদ্রিদের আরেক দল রিয়াল মাদ্রিদও। বিলবাওয়ের বিপক্ষে ম্যাচে জিনেদিন জিদানের দলের একমাত্র গোলদাতা নাচো ফার্নান্দেজ। ওদিকে সেল্টা ভিগোর কাছে বার্সেলোনা হেরেছে ২-১ গোলে। এতে লা লিগার শিরোপা লড়াই থেকেও ছিটকে গেছেন লিওনেল মেসিরা।
আপাতত ৩৭টি করে ম্যাচ শেষে অ্যাটলেটিকোর পয়েন্ট ৮৩, রিয়ালের ৮১ ও বার্সার ৭৬। লা লিগার শিরোপা মাদ্রিদের দুই ক্লাবের কোনটি নেবে, সেই মীমাংসা হবে লিগের শেষ সপ্তাহে।
এমনিতেই শিরোপার লড়াইয়ে টানটান উত্তেজনা। আর মাত্র দুই রাউন্ড বাকি ছিল বলে এই সপ্তাহে সব ম্যাচ হচ্ছে একই সময়ে। হবে শেষ সপ্তাহেও। তো আজকের ম্যাচগুলোতেও কত নাটক! সবার আগে গোলটা বার্সেলোনাই করল। কিন্তু ২৮ মিনিটে লিওনেল মেসির গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর বার্সেলোনা সেই ছন্দটা আর ধরে রাখতে পারেনি। ৩৮ মিনিটে সেল্টা ভিগোর হয়ে সান্তি মিনা সমতা ফিরিয়েছেন। ৮৯ মিনিটে নিজের ও দলের দ্বিতীয় গোলটা করে মিনাই লড়াই থেকে ছিটকে দিয়েছেন বার্সেলোনাকে।
অবশ্য অ্যাটলেটিকোর জয় বার্সেলোনাকে এমনিতেই লড়াই থেকে ছিটকে দিত। কিন্তু ডিয়েগো সিমিওনের দলের সেই জয়টাও যে নিশ্চিত হয়েছে ম্যাচের ৮৮ মিনিটেই এসে। ৭৫ মিনিটে আন্তে বুদিমিরের গোলে পিছিয়ে পড়ার পর অ্যাটলেটিকোর হয়ে ৮২ মিনিটে সমতা ফেরান রেহান লোদি। তারপর লুইস সুয়ারেজের ওই গোল, অ্যাটলেটিকোর বুনো উদযাপন!
রিয়াল মাদ্রিদ এগিয়ে গিয়েছিল ম্যাচের ৬৮ মিনিটে নাচোর গোলে। সেই গোলটাই আর বিলবাওকে শোধ করতে দেননি জিদানের শিষ্যরা। অবশ্য শিরোপার জন্য এখনো রিয়ালকে নগর প্রতিদ্ব›দ্বীদের দিকেই তাকিয়ে থাকতে হবে। মৌসুমের শেষ ম্যাচে রিয়ালকে জিততে হবে এবং অ্যাটলেটিকোকে হারতে বা ড্র করতে হবে। মুখোমুখি লড়াইয়ে অ্যাটলেটিকোর বিপক্ষে কিন্তু এগিয়ে রিয়ালই।
অন্যদিকে ফরাসি লিগও যেন এবার উঠেপড়ে লেগেছে নিজের গায়ে লেগে থাকা অপবাদ ঘোচানোর জন্য। এক ক্লাবের লিগ হয়ে থাকার অপবাদ, শুধু পিএসজির লিগ হয়ে থাকার অপবাদ। সহজ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন লিগ হয়ে থাকার অপবাদ।
যে লিগকে এত দিন পিএসজির সম্পত্তি বলে মনে করা হতো, নেইমাররা এবার সে লিগের শীর্ষেই উঠতে পারছেন না। ওই জায়গায় এবার লিলের কর্তৃত্ব। ৩৭ ম্যাচ পরেও একই হিসাব। তবে শেষ রাউন্ডের আগে লিল শীর্ষে থাকলেও গতপরশু রাতে ব্যবধান কমিয়ে এনেছে পিএসজি। রিমকে ৪-০ গোলে হারিয়েছে তারা। ওদিকে সেঁত এতিয়েঁর সঙ্গে গোলশ‚ন্য ড্র করে দুই পয়েন্ট খুইয়েছে লিল। ফলে শেষ রাউন্ডের আগে দুই দলের ব্যবধান কমে দাঁড়িয়েছে এক-এ। শেষ রাউন্ডে পিএসজি যদি ব্রেস্তকে হারায়, আর ওদিকে অজেঁর বিপক্ষে লিল যদি হারে বা ড্র করে, তাহলে লিল নয়, চ্যাম্পিয়ন নেইমাররাই হবেন।
কিন্তু দুই দলই যদি নিজ নিজ ম্যাচ জেতে-তাহলে দশ বছর পর শিরোপা যাবে লিলের ঘরে। কিন্তু শেষ রাউন্ডে যদি পিএসজি ড্র করে, আর লিল যদি হারে, সে ক্ষেত্রে চ্যাম্পিয়ন হবে পিএসজিই।
গোটা ম্যাচেই গত রাতে ছড়ি ঘুরিয়েছেন নেইমাররা। দশ মিনিটে ইউনিস আবদেলহামিদের লাল কার্ডের কারণে পিএসজির কর্তৃত্ব দেখানোর বিষয়টা আরও সহজ হয়ে গিয়েছিল। পেনাল্টি থেকে গোল করেছেন নেইমার। কিলিয়ান এমবাপ্পে, মার্কিনিওস ও মইস কিনও একটি করে গোল করেছেন। মার্কিনিওসের গোলটাও বানিয়ে দিয়েছেন নেইমার।
অপেক্ষা এখন শেষ রাউন্ডের। সে রাউন্ডে পিএসজি আর লিলের ফলাফলের ওপরেই নির্ভর করছে লিগের ভাগ্য।

পয়েন্ট টেবিল
লা লিগা
দল ম্যাচ জয় হার ড্র পয়েন্ট
অ্যাট. মাদ্রিদ ৩৭ ২৫ ৪ ৮ ৮৩
রিয়াল মাদ্রিদ ৩৭ ২৪ ৪ ৯ ৮১
বার্সেলোনা ৩৭ ২৩ ৭ ৭ ৭৬
সেভিয়া ৩৭ ২৩ ৯ ৫ ৭৪
সোসিয়াদাদ ৩৭ ১৬ ১০ ১১ ৫৯
রিয়াল বেটিস ৩৭ ১৬ ১১ ১০ ৫৮

শীর্ষ চার দল সরাসরি খেলবে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে। টেবিলের পাঁচে ও ছয়ে থাকা দল সুযোগ পাবে ইউরোপা লিগে।

লিগ ওয়ান
দল ম্যাচ জয় হার ড্র পয়েন্ট
লিলে ৩৭ ২৩ ৩ ১১ ৮০
পিএসজি ৩৭ ২৫ ৮ ৪ ৭৯
মোনাকো ৩৭ ২৪ ৮ ৫ ৭৭
লিও ৩৭ ২২ ৫ ১০ ৭৬

শীর্ষ দুই দল সরাসরি খেলবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে। তিনে জায়গা করে নেয়া দল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বাছাইপর্বে খেলার সুযোগ পাবে। এছাড়া চারে থাকা দল সরাসরি সুযোগ পাবে ইউরোপা লিগের আসরে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন