সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বিচার কার্যক্রম শুরু

মেজর (অব.) সিনহা হত্যা মামলা

কক্সবাজার ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

চাঞ্চল্যকর মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তার (আইও) প্রদত্ত চার্জশিট আদালত আমলে নিয়ে মামলাটি চার্জ গঠন করেছেন এবং মামলাটি বিচার কার্যক্রম শুরু করার জন্য প্রস্তুত করা হয়।

গতকাল রোববার কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল চার্জ গঠন করেন। কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম মামলাটির চার্জ গঠন শুনানি করেন। গত বছর ৩১ জুলাই ঈদুল আজহার আগের রাত সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশ কর্মকর্তা লিয়াকত আলীর গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। হত্যার পাঁচদিনের মাথায় ৫ আগস্ট সিনহার তার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।
মামলায় প্রধান আসামি করা হয় বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক লিয়াকত আলীকে। ওসি (বরখাস্ত) প্রদীপ কুমার দাশকে করা হয় দুই নম্বর আসামি। মামলার তিন নম্বর আসামি করা হয় টেকনাফ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দদুলাল রক্ষিতকে। আদালত থেকে মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয় র‌্যাব-১৫ কে। এরপর আসামি ৭ পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে তদন্তে নেমে হত্যার ঘটনায় স্থানীয় ৩ জন, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) ৩ সদস্য এবং প্রদীপের দেহরক্ষীসহ আরো মোট ৭ জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। গত ২৪ জুন মামলার চার্জশিটভুক্ত এতদিন পলাতক আসামি কনস্টেবল সাগর দেব আদালতে আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে আলোচিত এই মামলার ১৫ আসামির সবাই এখন আইনের আওতায় আসে।
এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় চার মাসের বেশি সময় ধরে চলা তদন্ত শেষে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ৮ আলোচিত মামলাটির অভিযোগপত্র দাখিল করে র‌্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম।
মামলায় রাষ্ট্র পক্ষে পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম, বাদী শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস এর পক্ষে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মোস্তফা, আসামিদের পক্ষে অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত, অ্যাডভোকেট দিলীপ দাস, অ্যাডভোকেট প্রতিভা দাশ, চট্টগ্রামের আইনজীবী অ্যাডভোকেট চন্দন দাশ, শহীদুল আলম, শফিউল আলমসহ ২১/২২ জন আইনজীবী শুনানিতে অংশ নেন। আদালতে চার্জ শুনানিকালে চার্জশিটভুক্ত ১৫ জন আসামি আদালতের কাটগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। চাঞ্চল্যকর এই মামলার ধার্যদিন উপলক্ষে সকল আসামিকে আদালতে আনা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps