শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১০ সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশেই চিরতরে রেখে দেয়ার প্রস্তাব বিশ্ব ব্যাংকের!

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ জুলাই, ২০২১, ৪:২২ পিএম

রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশেই রেখে দেওয়ার জন্য বিশ্ব ব্যাংকের প্রস্তাব মেনে না নিতে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগকে চিঠি দিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বিশ্ব ব্যাংকের ওই প্রস্তাব মেনে নিয়ে ওই সংস্থা থেকে ঋণ গ্রহণ করলে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর বদলে তাদেরকে বাংলাদেশেই চিরতরে রেখে দিতে হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে মন্ত্রণালয়। এজন্য ওই প্রস্তাবের পরিবর্তন না হলে উদ্বাস্তু সংক্রান্ত কোনও অর্থ বিশ্ব ব্যাংকের কাছ থেকে না নেওয়ার লিখিত মতামত পাঠানোর পাশাপাশি অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সঙ্গে বৈঠক করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
সম্প্রতি অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের কাছে বিশ্ব ব্যাংক তাদের প্রস্তাবিত 'রিফিউজি পলিসি রিভিউ ফ্রেমওয়ার্ক'টি মতামতের জন্য পাঠায় এবং চিঠিতে উল্লেখ করে- ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে কোনও মতামত না পেলে ওই প্রস্তাব সরকার মেনে নিয়েছে বলে তারা ধরে নেবে। বিশ্ব ব্যাংকের এই রিফিউজি পলিসি রোহিঙ্গাসহ অন্যান্য দেশে অবস্থিত সব উদ্বাস্তুর জন্য প্রযোজ্য।
অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতামত চাইলে নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করে মন্ত্রণালয়।
ওই বৈশ্বিক ফ্রেমওয়ার্কের তিনটি উদ্দেশ্য হচ্ছে‑ ১. উদ্বাস্তু ও হোস্ট কমিউনিটির জন্য অর্থনৈতিক সুযোগ তৈরি করা ২. উদ্বাস্তুরা যেদেশে অবস্থান করছে সেই সমাজে অন্তর্ভুক্ত করে নেওয়া অথবা তাদের ফেরত পাঠানো এবং ৩. দেশের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা যাতে করে নতুন উদ্বাস্তুদের আশ্রয় দেওয়া সম্ভব হয়।
এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘আগে জাতিসংঘ, বিশ্ব ব্যাংক ও পশ্চিমা বিশ্বের কিছু দেশ এই তিনটি উদ্দেশ্য আকারে-ইঙ্গিতে বা মুখে বলতো কিন্তু এই প্রথমবারের মতো তারা বিষয়টি লিখিত আকারে উপস্থাপন করলো।’
বিশ্ব ব্যাংকের প্রস্তাব মেনে নিলে রোহিঙ্গারা যেকোনো স্থানে চলাচল করতে পারবে, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড অর্থাৎ শ্রমিক হিসাবে কাজ করতে পারবে বা ব্যবসা করতে পারবে। শুধু তাই না তাদেরকে নিবন্ধনের আওতায় এনে সামাজিক পরিচয়পত্রও দিতে হবে বলে তিনি জানান।
রোহিঙ্গাদের জন্য সবচেয়ে বেশি সম্পদ ব্যয় করছে বাংলাদেশ এবং অন্যান্য অনেক দেশ তাদের দেখ-ভালের জন্য জাতিসংঘকে অর্থ প্রদান করে। এই অর্থ প্রদানের পরিমাণ দিন-দিন কমে আসছে এবং এর ফলে বাড়তি বোঝা বাংলাদেশের ওপর চাপানোর একটি চেষ্টা আছে বিদেশিদের।
এ বিষয়ে আরেকজন কর্মকর্তা বলেন, ‘বিদেশি অর্থদাতারা চাইছে রোহিঙ্গাদের উপার্জনের ব্যবস্থা‑ যাতে করে নিজেদের ব্যয় তারা নিজেরাই মেটাতে পারে। এছাড়া তাদের জন্য শিক্ষা, দক্ষতা বৃদ্ধি, অবাধ চলাচলের বিষয়েও তারা জোর দিচ্ছে।’
এজন্য রোহিঙ্গাদের সিভিল নিবন্ধন অর্থাৎ পরিচয়পত্র, জন্ম নিবন্ধনসহ অন্যান্য বিষয়গুলো চালু করার প্রস্তাব করছে তারা বলে তিনি জানান।

প্রত্যাবাসনই একমাত্র পথ এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘এ বিষয়ে আমাদের অবস্থান পরিষ্কার।’
তিনি বলেন, ‘তাদের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণের জন্য যদি আমরা এইসব মেনে নেই তবে আমাদের দীর্ঘমেয়াদি যে লক্ষ্যগুলো আছে সেগুলো সঙ্গে সাংঘর্ষিক হতে পারে। এজন্য আমাদের খুব সতর্ক থাকতে হবে।’
উদ্বাস্তু সমস্যা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বলেন, এটি তিনভাবে সমাধান করা যায়। একটি আছে অন্তর্ভুক্তিকরণ, আরেকটি হচ্ছে তৃতীয় দেশে সেটেলমেন্ট এবং অপরটি হচ্ছে প্রত্যাবাসন।
তিনি বলেন, আমাদের জন্য তৃতীয় দেশে সেটেলমেন্ট ফিজিবল না কারণ সংখ্যাটি অনেক বড়। যদি সংখ্যা ৩০ বা ৪০ হাজার হতো তাহলে বিভিন্ন দেশে ভাগ করে দেওয়া যেত কিন্তু সংখ্যাটি ১০ লাখের উপরে। এখন পৃথিবীর কোন দেশ এই পরিমাণ মানুষ নেবে না এটাই বাস্তবতা।
আরেকটি সমাধান হচ্ছে অন্তর্ভুক্তিকরণ, কিন্তু বাংলাদেশ পৃথিবীর সবচেয়ে ঘনবসতির দেশ এবং এখানে প্রচুর পরিমাণ শ্রমিক আছে। ফলে বাড়তি শ্রমিকের কোন প্রয়োজন নেই এবং সে সম্ভাবনাও নেই বলে তিনি জানান।
পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘সুতরাং আমাদের জন্য একমাত্র অপশন হচ্ছে তাদের নিজ ভূমিতে টেকসই ও সম্মানের সঙ্গে প্রত্যাবাসন।’
অন্তর্ভুক্তিকরণের বিষয়ে জাতিসংঘ বা বিশ্ব ব্যাংক চিন্তা করতে পারে কিন্তু আমরা এটি করতে পারবো না এবং এটি তাদের বারবার স্মরণ করিয়ে দিতে হচ্ছে বলে তিনি জানান।
তিনি বলেন, ‘গতবারই তারা আমাদেরকে যখন এ ধরনের ভাষা বা পয়েন্ট বলেছিল তখন তাদেরকে আমরা বলেছি যে এটি আমাদের পক্ষে করা সম্ভব নয়।’
পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘আমাদের নজরে যেটি আসছে সেটি আমরা পয়েন্ট আউট করছি এবং সংশ্লিষ্ট যারা রয়েছে তাদেরকে বলছি যে, এ ধরনের শর্ত মানা আমাদের পক্ষে সম্ভব না ।’
রোহিঙ্গাদের শিক্ষার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যদি দিতে হয় তাহলে মিয়ানমারের কারিকুলাম অনুযায়ী দিতে হবে। কারণ আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে এই লোকগুলোর মিয়ানমারে ফেরত যাওয়া। কিন্তু এমন কোন ধরনের শিক্ষা যেখানে আমাদের এখানে অন্তর্ভুক্তি হওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে, এ ধরনের শিক্ষা আমরা দিতে চাই না।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Mohammad Walid Hasan ২৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৪৯ পিএম says : 0
রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সামরিক পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। সীমান্তে সেনা মোতায়েন করে মিয়ানমারের মত আমাদেরও যুদ্ধংদেহী মনোভাব প্রকাশ করা। রোহিঙ্গাদের সামরিক প্রশিক্ষণ দিয়ে মায়ানমারে পুশব্যাক করা। তাহলে মায়ানমার শিক্ষা পাবে।
Total Reply(1)
Badrul Alam ২৯ জুলাই, ২০২১, ৯:৫৬ পিএম says : 0
In World Bank, a lot of Indians are working. They maintain opinion that the Indian leaders have. India supports Burma in this Rohinga issue. Now World Bank ( actually the Indians in there) making this support to Burma more effective to get some benefit from Burma in exchange.
Karim Bin Shahid ২৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৫০ পিএম says : 0
এটাকেই বলে বসতে দিলে খেতে চাই আর খেতে দিতে শুতে চাই।লে ঠেলা
Total Reply(0)
asif ২৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৪১ পিএম says : 0
muslim ra muslim der bhai .... tai rohinga prosne appoti thakte pare na
Total Reply(0)
Anowar Parvez ২৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৪৯ পিএম says : 0
আফগান ও ইরাক থেকে পলানোর পর এবার বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়া নিয়ে বড় ধরনের ষড়যন্ত্রের আবাস।
Total Reply(0)
Nishi Islam ২৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৪৯ পিএম says : 0
তাহলে রাখাইন রাজ্য বাংলাদেশকে দেওয়া এবং রোহিঙ্গাদের সমরিক প্রশিক্ষন দেওয়ার প্রস্তাবও দিতে হবে।
Total Reply(0)
Biby Julekha ২৯ জুলাই, ২০২১, ৫:৫০ পিএম says : 0
সরকার কূটনৈতিকভাবে চূড়ান্ত মাত্রায় ব্যার্থ না হলে বিশ্ব ব্যাংক কেন এমন প্রস্তাব দিবে,,রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনের বিকল্প কিছু হতে পারেনা।
Total Reply(0)
মোঃশাহজালাল ২৯ জুলাই, ২০২১, ৭:৪৬ পিএম says : 0
আমি আগেই বলেছি রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো সহজ ব্যাপার হবেনা।
Total Reply(0)
মোঃ+দুলাল+মিয়া ২৯ জুলাই, ২০২১, ১০:২৪ পিএম says : 0
আল্লা করিম দিলে ভালো হবে। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংকের উচিত হবে এদের জন্য পাউন্ড তৈরী করে এদের ঘর দরজা জায়গা সম্পত্তি লইয়া দেওয়া,এবং কেশ কিছু টাকা পদান করা যাতে তাহারা বেবসা বানিজ্য করতে পারে।আর লেখা পড়ার বেপারে তাদের মাতৃ ভাষা ব্যবহার করবে,কিন্তু তাদের জাতীয় ভাষা বাংলা ভাষা হবে,বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশ সরকার থেকে জমি কিনতে হবে অবশ্যই।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন