মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

যুদ্ধ বন্ধের আর কোনো বিকল্প নেই পশ্চিমাদের

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ মে, ২০২২, ১২:০২ এএম

ইউক্রেনের যুদ্ধ আরো বিপজ্জনক পর্যায়ে প্রবেশ করছে। যদিও কিয়েভ মস্কোর প্রাথমিক আক্রমণে বাধা দেওয়ার পরে রাশিয়া তার উদ্দেশ্যগুলোকে পিছিয়ে দিয়েছে বলে মনে হচ্ছে। ক্রেমলিন এখন ২০১৪ সালে দখল করা পূর্ব এবং দক্ষিণ ইউক্রেনের অংশ স¤প্রসারণে বদ্ধপরিকর। এদিকে, ন্যাটো মিত্ররা অস্ত্র ঢালছে, গোয়েন্দা তথ্য সরবরাহ করছে এবং ইউক্রেন থেকে রাশিয়াকে বিতাড়িত করে ‘বিজয়’-এর মজা উপভোগের আশা করছে।

উভয় পক্ষই দ্বিগুণ হয়ে যাওয়ায় ন্যাটোর উচিত ইউক্রেনীয় সরকারের সাথে রক্তপাত না বাড়িয়ে তার লক্ষ্যগুলো কীভাবে অর্জন করা যায় সে সম্পর্কে খোলাখুলি আলোচনায় লিপ্ত হওয়া। পশ্চিমারা কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রাশিয়াকে আঘাত করেছে। ন্যাটো তার পূর্বদিককে শক্তিশালী করেছে, আর ফিনল্যান্ড ও সুইডেন জোটে যোগ দিচ্ছে। ন্যাটো এবং ইউক্রেন উভয়ের জন্য কৌশলগত প্রজ্ঞা যুদ্ধ করার এবং বড় ঝুঁকি নেওয়ার চাপের পরিবর্তে এই সাফল্যগুলো কাটার পক্ষে যুক্তি দেয়।

এখনও অবধি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা কিয়েভকে তার কৌশলগত লক্ষ্যগুলো সীমিত করার জন্য চাপ দেওয়া থেকে দূরে সরে গেছে। ন্যাটো পরিবর্তে ইউক্রেনকে আত্মরক্ষার উপায় প্রদানের দিকে মনোনিবেশ করেছে- আরো ট্যাঙ্ক-বিরোধী ক্ষেপণাস্ত্র এবং বিমান, আরো ড্রোন, আরো আর্টিলারি এবং আরো বুদ্ধিমত্তা দিয়ে। বাইডেন প্রশাসন যুক্তি দেয় যে, ইউক্রেনীয়দের তাদের যুদ্ধের লক্ষ্য নির্ধারণ করা উচিত। এটাও সত্য যে, ২০১৪ সালে রাশিয়ার দখলে থাকা ক্রিমিয়া এবং ডনবাস বিভাগ পুনরুদ্ধার করে ইউক্রেনের সম্পূর্ণ আঞ্চলিক অখন্ডতা পুনরুদ্ধার করার জন্য নৈতিক ও আইনগত ভিত্তিতে কিয়েভ সম্পূর্ণরূপে ন্যায্য। কিন্তু কিয়েভের পূর্ণ আঞ্চলিক সার্বভৌমত্বের জন্য লড়াই করার অধিকার এটিকে কৌশলগতভাবে বুদ্ধিমান করে তোলে না। রাশিয়ার প্রাথমিক অগ্রগতি প্রতিহত করার ক্ষেত্রে ইউক্রেনের কথিত সাফল্য সঙ্ঘঘাতের পরবর্তী পর্যায়ের বিষয়ে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের কারণ হওয়া উচিত নয়। প্রকৃতপক্ষে, কৌশলগত বাস্তববাদের জন্য ন্যাটো এবং ইউক্রেনের মধ্যে কিয়েভের উচ্চাকাক্সক্ষার ওপর লাগাম টানতে এবং এমন একটি ফলাফলের সাথে কাজ করার বিষয়ে একটি খোলামেলা কথোপকথন প্রয়োজন যা ‘বিজয়’ থেকে কম পড়ে।

এ সংযমের জন্য যে বিভিন্ন আহবান বিবেচনা আছে- প্রথমত, যুদ্ধ যত দীর্ঘ হবে, তত বেশি মৃত্যু, ধ্বংস এবং বাস্তুচ্যুতি আপনি কাটাবেন। রাশিয়ান আগ্রাসন ইতোমধ্যেই হাজার হাজার মানুষের জীবন নিয়েছে। প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ ইউক্রেনীয়কে তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য করেছে (প্রায় ৬০ লাখ দেশ ছেড়েছে) এবং ইউক্রেনের অবকাঠামোতে প্রায় ৬ হাজার কোটি ডলার ধ্বংস করেছে। রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা এবং সরবরাহ নিয়ন্ত্রণে অনেক দেশে দাম বৃদ্ধির কারণ এবং বিশ্বব্যাপী খাদ্য ঘাটতি হতে পারে।

দ্বিতীয়টি হল বৃদ্ধির ঝুঁকি। যদি রাশিয়ান বাহিনী পূর্ব এবং দক্ষিণে ভাল করে, ক্রেমলিন শেষ পর্যন্ত তার যুদ্ধের লক্ষ্যগুলো প্রসারিত করার এবং আরো ইউক্রেনকে গ্রাস করার চেষ্টা করতে পারে। বিকল্পভাবে, যদি রাশিয়ান বাহিনী আগামী সপ্তাহে পরাজয় বরণ করে এবং ভøাদিমির পুতিন আরেকটি পরাজয়ের সম্মুখীন হয়, তাহলে তিনি গণবিধ্বংসী অস্ত্র ব্যবহার করতে পারেন, বা যুদ্ধের গতিপথ পরিবর্তন করতে একটি বিস্তৃত সংঘাতের জন্ম দিতে পারেন। দুর্ঘটনাজনিত বৃদ্ধি একটি বাস্তব বিপদও উপস্থাপন করে, কারণ রাশিয়া ইতোমধ্যেই ন্যাটো অঞ্চলের কাছাকাছি হামলা চালিয়েছে এবং রাশিয়ান ও ন্যাটো বাহিনী কাছাকাছি অবস্থানে কাজ করছে।

তৃতীয়ত, পশ্চিমারা ইউক্রেনের সমর্থনে এবং রুশ আগ্রাসনের মোকাবিলায় অসাধারণ ঐক্য দেখালেও সময়ের সাথে সাথে পশ্চিমের সংহতি হ্রাস পেতে পারে। আটলান্টিকের উভয় তীরে মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা যুদ্ধের স্পিলওভার প্রভাবে চালিত। ক্রমবর্ধমান দাম তার যুদ্ধের কঠোর নিয়ন্ত্রণ সত্তে¡ও প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জনপ্রিয়তার ওপর প্রভাব পড়ছে এবং আমেরিকান কর্মীদের সংখ্যা কার্যকরভাবে উন্নত করার বিষয়ে তার পূর্বের ফোকাসকে দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। দ্বিদলীয় সহযোগিতা পুতিনের বিরুদ্ধে ক্ষয় হতে পারে।

ট্রান্সআটলান্টিক মিত্রদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিতে শুরু করে। ফ্রান্স, জার্মানি এবং ইতালির নেতারা গত সপ্তাহে যুদ্ধবিরতি এবং আলোচনার মাধ্যমে নিষ্পত্তির প্রয়োজনীয়তার কথা বলেছেন। এদিকে, ওয়াশিংটন এবং লন্ডন ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভাষায়, ‘অধিকৃত অঞ্চলের মুক্তি’ অর্জনের অভিপ্রায়কে সমর্থন করছে বলে মনে হচ্ছে।

যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে নির্বাচনী ফলাফল পশ্চিমাদের সম্মিলিত টিকে থাকার ক্ষমতার জন্যও ভালো ইঙ্গিত দেয় না। ‘উদারনৈতিক গণতন্ত্র’-এর রক্ষক ভিক্টর অরবান হাঙ্গেরিতে পুনরায় নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। এটি এখনও পর্যন্ত রাশিয়ার ওপর তেল নিষেধাজ্ঞা আরোপের ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রচেষ্টাকে বাধাগ্রস্ত করেছে। মধ্যপন্থী প্রার্থী ইমানুয়েল ম্যাখোঁ ফ্রান্সে পুনঃনির্বাচিত হলেও কট্টর-ডানপন্থী এবং রাশিয়াপন্থী প্রার্থী মেরিন লা পেন ৪০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছেন। জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শুলজ প্রাথমিকভাবে ইউক্রেনে পুতিনের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে জার্মান পররাষ্ট্র নীতিতে একটি সাহসী পরিবর্তনের রূপরেখা দিয়েছেন। কিন্তু বার্লিন এরপর থেকে পিছিয়ে গেছে এবং সপ্তাহান্তের আঞ্চলিক নির্বাচনে রাজনৈতিক ধাক্কায় শুলজের সরকার দুর্বল হয়ে পড়েছে।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থনে উচ্ছ¡সিত জেডি ভ্যান্স স¤প্রতি ওহাইয়ো সিনেটে একটি উত্তপ্ত প্রাথমিক নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন। ইউক্রেনের যুদ্ধের বিষয়ে তার মতামত বরং অকপট: ‘আমি মনে করি এটি অযৌক্তিক যে, আমরা ইউক্রেনের এ সীমান্তের দিকে মনোনিবেশ করছি। আমাকে আপনার সাথে সৎ হতে হবে, ইউক্রেনের সাথে কোনভাবে কী ঘটবে তা আমি সত্যিই চিন্তা করি না’। ব্যাপক মুদ্রাস্ফীতির মধ্যে রিপাবলিকান পার্টির ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ উইং নভেম্বরে দেশের মধ্যবর্তী নির্বাচনে সমাবেশ করতে প্রস্তুত।

অবশেষে, পশ্চিমকে রাশিয়ার সাথে একটি সম্পর্ক রক্ষা করার জন্য যুদ্ধের বাইরের দিকে তাকানো শুরু করতে হবে যা সহযোগিতার একটি পরিমিত দ্বার উন্মুক্ত রাখে। এমনকি যদি একটি নতুন স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়, তবে সংলাপটি শীতল যুদ্ধ ১.০ এর সময়ের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হবে। আরো আন্তঃসংযুক্ত এবং বিশ্বায়িত বিশ্বে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের আলোচনা, আবহাওয়া পরিবর্তন বন্ধ করা, সাইবার পরিচালনা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্যের প্রচারের মতো সাধারণ চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলায় মস্কোর সাথে পশ্চিমের অন্তত কিছু পরিমাপের ব্যবহারিক সহযোগিতার প্রয়োজন হবে। সেই লক্ষ্যে একটি যুদ্ধবিরতি এবং আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতার মাধ্যমে দ্রæত একটি যুদ্ধের অবসান ঘটানো একটি যুদ্ধ অব্যাহত থাকা বা একটি নতুন, হিমায়িত সঙ্ঘাত যা একটি প্রতিক‚ল অচলাবস্থায় শেষ হয় তার চেয়ে অনেক ভালো।

সমালোচকরা অভিযোগ করেন যে, সম্পূর্ণ পরাজয়ের চেয়ে কম ফলাফল পুতিনকে উৎসাহিত করবে। তাকে ইউক্রেনের এমনকি একটি ছোট অংশের নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখে বিজয় দাবি করার অনুমতি দেওয়া যুক্তিযুক্ত যুক্তি, শুধুমাত্র পরবর্তী জমি দখলকে উৎসাহিত করবে। সুতরাং, চীন রাশিয়ার পরাজয়ের লজ্জাজনক ফলাফলকে তাইওয়ানকে রক্ষা করার জন্য পশ্চিমের ইচ্ছা পরীক্ষার জন্য উৎসাহ হিসাবে ব্যাখ্যা করতে পারে।

তবে এ যুদ্ধ যেভাবেই শেষ হোক না কেন পুতিন চিন্তায় থাকবেন এবং বাড়িতে ফিরে আরো দুঃসাহসিক কাজে অর্থ প্রদানে তিনি ইতোমধ্যেই যথেষ্ট ধাক্কা খেয়েছেন। দেশটির অর্থনীতি সঙ্কুচিত হওয়ার সাথে সাথে রাশিয়ান সামরিক বাহিনী রিলভিং করছে। ইউক্রেনীয়রা মস্কোর প্রভাব বলয়ের পরাধীনতার সাথে জড়িত যে কোনো ভবিষ্যতকে দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে। রুশ অভিযান একসময় সোভিয়েত বøকের অংশ, পূর্বে নিরপেক্ষ ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনকে এক ডজনেরও বেশি দেশের জোট ন্যাটোতে সদস্যপদে ঠেলে দিয়েছে। ইউক্রেনে পুতিনের অভিযানে কেউ বিজয়ী হয়নি। এমনকি পশ্চিমারা ইউক্রেনকে আত্মরক্ষার উপায় সরবরাহ করে চলেছে, আটলান্টিক গণতন্ত্রের জন্য যুদ্ধের সমাপ্তির দিকে মনোনিবেশ করার সময় এসেছে। সূত্র : দ্য আটলান্টিক।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
আহমদ ২০ মে, ২০২২, ৪:৩১ এএম says : 0
পশ্চিমারা ইউক্রেনের সমর্থনে এবং রুশ আগ্রাসনের মোকাবিলায় অসাধারণ ঐক্য দেখালেও সময়ের সাথে সাথে পশ্চিমের সংহতি হ্রাস পেতে পারে। ফলে রাশিয়া যুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য অনেক পজিটিভ থাকবে
Total Reply(0)
আকিব ২০ মে, ২০২২, ৪:২৯ এএম says : 0
যুদ্ধ দুই দেশেরই থামানো উচিত। নয়তো এ যুদ্ধের কারণে বিশ্বের অর্থনীতিতে ধস নেমে পড়বে। যুদ্ধ থামালে সবারই ভালো হবে। নয়তো বিশেষ করে ইউক্রেনের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হবে
Total Reply(0)
আনিছ ২০ মে, ২০২২, ৪:২৬ এএম says : 0
আমরা চাই এ যুদ্ধের দ্রুত সমাধঅন হোক
Total Reply(0)
আনিছ ২০ মে, ২০২২, ৪:২৫ এএম says : 0
ইউক্রেন ও রাশিয়ার যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত রাশিয়া জয়ী হবে। পশ্চিমারা যতই নিষেধাজ্ঞা দেক না কেনো
Total Reply(0)
আলিফ ২০ মে, ২০২২, ৪:৪৫ এএম says : 0
পশ্চিমাদের রাশিয়ার সাথে একটি সম্পর্ক রক্ষা করার জন্য যুদ্ধের বাইরের দিকে তাকানো শুরু করতে হবে যা সহযোগিতার একটি পরিমিত দ্বার উন্মুক্ত রাখে। ফলে এ উদ্যোগ বিশ্বের জন্য ভালো হবে।
Total Reply(0)
আহমদ ২০ মে, ২০২২, ৪:৪১ এএম says : 0
যুদ্ধ যত দীর্ঘ হবে, তত বেশি মৃত্যু, ধ্বংস এবং বাস্তুচ্যুতি আপনি কাটাবেন। রাশিয়ান আগ্রাসন ইতোমধ্যেই হাজার হাজার মানুষের জীবন নিয়েছে। প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ ইউক্রেনীয়কে তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য করেছে। কাজেই বিশ্বের ক্ষমতাশীল দেশগুলো নিষেধাজ্ঞা না দিয়ে যুদ্ধ থামানোর উদ্বেগ নেওয়া উচিত। নয়তো ইউক্রেনের আরো অনেক মানুষ মারা যাবে। এমনকি বিশ্ব দুর্ভিক্ষের দিকেও যেতে পারে।
Total Reply(0)
আহমদ ২০ মে, ২০২২, ৪:৩৪ এএম says : 0
তবে শেষ পর্যন্ত যুদ্ধ চললে বিশ্বের অর্থনীতি সবচেয়ে বড় ধাক্কা খাবে। এমনকি বিশ্বের অর্থনীতিতে নেমে পড়তে পারে। তাই যুদ্ধ থামলে এখন তাদের দুই দেশের লাভ না, এটা সারা বিশ্বের জন্য লাভ
Total Reply(0)
মোঃআব্দুল ওয়াহাব ২০ মে, ২০২২, ৯:১৫ এএম says : 0
বিশ্বের দুইপরাশক্তিদেখাযাক কি হয়।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps