রোববার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১০ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বাখমুতকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলছে রুশ সেনা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ মার্চ, ২০২৩, ১:৩৭ পিএম

রাশিয়ান বাহিনী পূর্ব ইউক্রেনের কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর বাখমুতকে চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলতে তীব্র আক্রমণ চালিয়ে যাচ্ছে। শহরটির পতন এখন সময়ের অপেক্ষা বলে মনে করছেন সামরিক বিশ্লেষকরা।

ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনীর জেনারেল স্টাফদের মতে, রাশিয়ান সৈন্যরা গত দিনে বাখমুত এলাকায় কোনো নতুন সাফল্য অর্জন করতে পারেনি। তবে ভারী গোলাবর্ষণ এবং ক্রমাগত পদাতিক আক্রমণ, বিশেষ করে ওয়াগনার ভাড়াটে গোষ্ঠী, শহরের রক্ষকদের ক্রমবর্ধমান চাপের মধ্যে ফেলেছে। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি মঙ্গলবার গভীর রাতে তার প্রতিদিনের ভিডিও ভাষণে বলেছেন, ‘যুদ্ধের তীব্রতা কেবল বাড়ছে।’

যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় যুদ্ধের উপর তাদের দৈনিক ব্রিফিংয়ে বলেছে যে, রাশিয়া কিয়েভের উত্তর-পূর্বে তার ব্রায়ানস্ক অঞ্চলকে আক্রমণের একটি নতুন এলাকা হিসাবে ব্যবহার করছে যা ইউক্রেনের রাজধানী শহরের চারপাশে বিমান প্রতিরক্ষাকে প্রতিক্রিয়া জানাতে কম সময় দেয়। এদিকে রাশিয়ায়, দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বুধবার বলেছে যে, তারা ক্রিমিয়ায় ইউক্রেনের একটি ড্রোন হামলা প্রতিহত করেছে।

রাশিয়া গত গ্রীষ্ম থেকে বাখমুতকে মুক্ত করার চেষ্টা করছে। রাশিয়ান ওয়াগনার দ্বারা নিয়োগ করা হাজার হাজার সেনা এ শীতে শহরে আক্রমণ করেছে এমন কৌশলে যা, সামরিক বিশ্লেষকরা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সাথে তুলনা করেছেন। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে, রাশিয়া ধীরে ধীরে বাখমুতের উত্তর এবং দক্ষিণে অগ্রসর হতে পেরেছে, শহরটিকে তিন দিকে ঘিরে রেখেছে এবং সেখানে ইউক্রেনীয় সেনা সরবরাহকারী দুটি প্রধান সড়ক নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। অনেক বিশ্লেষক বলছেন, ইউক্রেন শিগগিরই বাখমুত থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কঠিন সিদ্ধান্তের মুখোমুখি হবে।

বাখমুত উভয় পক্ষের জন্য প্রতীকী গুরুত্ব পেয়েছে। তবে শহরটি দখল করা সম্ভবত রাশিয়ার জন্য সীমিত কৌশলগত মূল্য থাকবে কারণ ইউক্রেনীয় সেনারা শহরের কয়েক মাইল পশ্চিমে উঁচু স্থলে সুরক্ষিত অবস্থানে পিছু হটতে পারে, সামরিক বিশ্লেষকরা বলছেন। রাশিয়ান বাহিনী ধীরে ধীরে শীতকালে ফ্রন্টের উত্তর অংশে কয়েক মাইল অগ্রসর হয়েছে, সোয়াতোভ এবং ক্রেমিন্না শহরের কাছে, পাশাপাশি বাখমুতের চারপাশে এগিয়েছে। ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী এ বসন্ত ও গ্রীষ্মে তাদের নিজস্ব আক্রমণে ব্যবহারের জন্য নতুন আগত পশ্চিমা ট্যাঙ্ক দিয়ে সজ্জিত নতুন ব্রিগেড প্রস্তুত করার সময় তাদের সামনের সারির সৈন্যদের আক্রমণ সীমিত করার চেষ্টা করছে।

রাশিয়া ইউক্রেনে অভিযান শুরু করার পর এক বছর পেরিয়ে গেছে কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র ও তার পশ্চিমা মিত্রদের কারণে সংঘাত শেষ হওয়ার কোন লক্ষণ নেই। ক্রেমলিন বলে চলেছে যে, যেকোন শান্তি আলোচনার পূর্বশর্ত হিসাবে ইউক্রেনের বেশ কয়েকটি অঞ্চলে রাশিয়ার আঞ্চলিক দাবি কিয়েভকে মেনে নিতে হবে। কিয়েভ চায় যে, কোনও যুদ্ধবিরতি চুক্তির অংশ হিসাবে রাশিয়ান সৈন্যরা তার অঞ্চল থেকে সেনা প্রত্যাহার করুক।

বেলারুশিয়ান প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কো, মস্কোর ঘনিষ্ঠ মিত্র, বুধবার চীনা নেতা শি জিনপিংয়ের সাথে দেখা করেছেন, তিনি ইউক্রেনে যুদ্ধ শেষ করার জন্য বেইজিংয়ের প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছেন। চীন যুদ্ধবিরতি ও শান্তি আলোচনার আহ্বান জানিয়েছে কিন্তু রাশিয়াকে ইউক্রেন থেকে সরে যেতে চাপ দেয়নি। মার্কিন কর্মকর্তারা বলেছেন যে, চীন রাশিয়ান বাহিনীকে আর্টিলারি এবং ড্রোন সরবরাহ করার কথা বিবেচনা করছে যা যুদ্ধকে দীর্ঘায়িত করতে পারে, তবে এমন দাবি বেইজিং প্রত্যাখ্যান করেছে। সূত্র: ওয়াল স্ট্রীট জার্নাল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন