রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, ০৩ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

বিনোদন প্রতিদিন

হানিফ সংকেতের মৃত্যুর গুজব: টিকটকের ভয়াবহ শিকার

বিনোদন রিপোর্ট: | প্রকাশের সময় : ২৬ মে, ২০২২, ১২:০৫ এএম

টিকটক যে কতটা ভয়াবহ হয়ে উঠেছে, তার সর্বশেষ শিকার হলেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব হানিফ সংকেত। গত মঙ্গলবার কে বা কারা টিকটকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয় সড়ক দুর্ঘটনায় হানিফ সংকেত মারা গেছেন। এ সূত্র ধরে সোস্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন জন স্ট্যাটাস দিচ্ছেন। এ ব্যাপারে হানিফ সংকেতের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি বিস্মিত ও হতবাক। এমন একটি ভুয়া এবং অসত্য ও ভয়াবহ সংবাদ টিকটকের মাধ্যমে ছড়ানোয় সারা দেশের মানুষের মধ্যে একধরনের হাহাকার ছড়িয়েছে। এটা তাদের মানসিক অস্থিরতা সৃষ্টি ও ক্ষতি করেছে। ডিজিটাল যুগে আমরা আছি ঠিকই, তবে এর অপব্যবহার রোধ করার কার্যকর কোনো পন্থা অবলম্বন করা যাচ্ছে না। যে যেভাবে পারছে, যা খুশি তা নিয়ে টিকটক করছে। গুজব ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। এর আগে এ ধরনের গুজবের শিকার নায়করাজ রাজ্জাক, এ টি এম শামসুজ্জামানের মতো বরেণ্য ব্যক্তিত্বরা হয়েছিলেন। এর প্রতিকার হওয়া দরকার। হানিয় সংকেত বলেন, একটি শ্রেণী শুধুমাত্র ভিউ বাড়ানোর জন্য এমন জঘন্য পন্থা অবলম্বন করে চলেছে। সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মৃত্যু গুজব ছড়িয়ে দিচ্ছে। এ এক ভয়ংকর প্রবণতা। এসব স্পর্শকাতর বিষয়ের ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া উচিৎ। আমরা পুলিশের সাইবার ক্রাইমকে জানিয়েছি। তাদের বলেছি, এর বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে। এদিকে জানা যায়, টিকটক ভিডিওতে একটি অ্যাম্বুলেন্সে শোয়া এক ব্যক্তির ছবি দিয়ে সাথে হানিফ সংকেতের ছবি জুড়ে দিয়ে বলা হয় তিনি সড়ক দুর্ঘটনা মৃত্যুবরণ করেছেন। ভিডিওটি দশ লাখের মতো ভিউ হয়। এ থেকে অন্য টিকটকাররাও তা করে এবং খবরের সত্যাসত্য যাঁচাই না করে অনেক দায়িত্বশীলরাও সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দেন। এদিকে, টিকটক মাধ্যমে দেশের তরুণ সমাজের আসক্তি বাড়ছে। এর মাধ্যমে অরাধী চক্রও সক্রিয়। টিকটকের মাধ্যমে প্রতারণা করে নারী পাচার পর্যন্ত হয়েছে। অনেকে এ ফাঁদে পা দিয়ে ভয়াবহ বিপদে পড়ছে। বিস্ময়ের ব্যাপার হচ্ছে, শো-বিজের অনেক পরিচিত শিল্পীরাও টিকটকে আসক্ত। নিজেদের শর্ট ভিডিও আপলোড করে ভিউ পাওয়ার চেষ্টা করছেন। শিল্পবোদ্ধারা মনে করছেন, এর মাধ্যমে তারা নিজেদের সস্তা করে তুলছেন। একজন শিল্পীর পরিচিতি ও গ্রহণযোগ্যতা আসে তার অভিনয় দিয়ে। এখন তারা এ কাজের চেয়ে দ্রুত গ্রহণযোগ্যতা পেতে সস্তা টিকটক ভিডিও আপলোড করছেন। এসব ভিডিও তাদেরকে হাস্যকর করে তুলছে। ব্যক্তিত্ব বলে কিছু থাকছে না। টিকটকের এই নেতিবাচক প্রবণতা তাদের বন্ধ করা উচিৎ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps