সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৯ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

ধর্ম দর্শন

আলহাজ্ব মাওলানা শামছুল হুদাঃ একজন দায়ীর জীবন ও কর্ম

আমিনুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ৩০ জুন, ২০২২, ১২:০৫ এএম

বংলাদেশে কোরআন-হাদিসের খেদমত করে যাঁরা স্মরণীয় হয়ে আছেন, তাঁদের মধ্যে একজন মাওলানা শামছুল হুদা। যিনি ছাত্র জীবনে সফল ও শিক্ষকতা জীবনে অসামান্য অবদান রেখেছেন। অসংখ্য ছাত্র আজও তাঁর নাম শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তাঁর সফল আলোকিত ছাত্র বৃন্দ দেশ-বিদেশের নানা অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে দ্বীন প্রচারের কাজে ব্যস্ত আছেন। চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার ডাটরা শিবপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১ সেপ্টেম্বর ১৯৫১ খ্রি. তারিখে জন্ম গ্রহন করেন এই দায়ী। পিতা-মাতার ইচ্ছা সন্তানকে আলেম বানাবেন। প্রাথমিক ও মাধ্যমি শিক্ষা শেষ করে ১৯৬৬ সালে আলিম পরীক্ষায় ২য় বিভাগে উত্তীর্ণ হন। ১৯৬৮ সালে ফাযিল পরীক্ষায় ২য় শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন। কামিল শ্রেণিতে অধ্যয়নের জন্য লক্ষীপুর জেলার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত রায়পুর উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত রায়পুর আলীয়া মাদরাসায় ভর্তি হন।সেখানে দুই বছর পড়াশোনা করে হাদীস বিভাগ থেকে ১৯৭০ ইং সালে কামিল কেন্দ্রীয় পরিক্ষায় ২য় শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন। বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস মাওঃ আফলাতুন কায়সারের (র.) এর তত্ত্বাবধানে হাদিস বিষয়ে অগাধ ইলম অর্জন করেন।

পারিবারিক জীবন : নিজ গ্রামের ততকালীন সম্ভ্রান্ত এক মুসলিম পরিবারে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাঁর শশুর ছিলেন জগৎ বিখ্যাত আলেম,কোরআনের খাদেম। পূর্ব-পশ্চিম অনেক গ্রামে কোরআনের তা’লিম দিতেন।এমনকি ‘মানুরী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসা’য় দীর্ঘদিন অধ্যাপনায় নিয়োজিত ছিলেন। যিনি একনামে ক্বারী সোলাইমান সাহেব নামে পরিচিত ছিলেন। তাঁর একমাত্র কন্যার সাথে বিবাহ হয়।তিন ছেলে,তিন মেয়ে নিয়ে আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে সুখী জীবন যাপন করছেন।

কর্ম জীবনঃ আলহাজ্জ মাওলানা শামছুল হুদার মতো মহান দ্বীনের সেবকের কর্মজীবনের রয়েছে বর্ণিল ইতিহাস। কামিল কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফলের পূর্বে রায়পুর উপজেলার কোলঘেঁষে রামগঞ্জ উপজেলার নাগের দীঘির পাড় দাখিল মাদ্রাসায় কিছুদিন খণ্ডকালীন আরবি শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭০ইং কামিল কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর পরই যে মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পাশ করেছে অর্থাৎ ফরিদগঞ্জ, চাঁদপুরের বিখ্যাত প্রাণপ্রিয় মানুরী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসায় আরবী প্রভাষক পদে যোগদান করেন। অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে চাকরির লোভনীয় অফার (প্রিন্সিপাল হওয়ার, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকরির) বর্জন করে মানুরী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসা’য় অধ্যাপনার মতো মহান পেশা, দ্বীনের খেদমত বেচে নেন। যার ফলে শত শত দ্বীনের খাদেম তৈরির সাধনায় ১৯৭০ ইং হতে ‘আরবি প্রভাষক পদে কর্মজীবন শুরু করেন।১ সেপ্টেম্বর ২০১১ ইং ‘সহঃ অধ্যাপক হিসেবে কর্মজীবনের ইতি টানেন। কর্ম সাধনার ফসল হিসেবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কোরআন হাদীসের খাদেম বহু মাওলানা, খতিব, ইমাম ছড়িয়ে আছেন। এ ছাড়া ও গ্রামে-গঞ্জে বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কার্যক্রমে অবদান রয়েছে। এখনো সমাজের ডাকে সাড়া দিয়ে থাকেন।

চরিত্রঃ রাসুল (স.) এর সুন্নতের পূর্ণ পাবন্দ সহজ-সরল জীবন যাপনকারী আলহাজ্জ মাওলানা শামছুল হুদা’ শামছুল হুদা ছিলেন একজন আদর্শ শিক্ষক। ক্লাশে বা রাস্তা-ঘাটে তাঁর আগে কেউ সালাম দিতে পারতেন না। ছাত্রদেরকে রাত-দিন সর্বদা পড়াতেন। তিনি সদালাপী, মিষ্টভাষী, নির্মল চরিত্রের অধিকারী। জাগতিক সম্পদের প্রতি তাঁর কোন মোহ ছিল না। সামাজিকভাবে তিনি সবার নিকট পরম শ্রদ্ধেয় ও বরণীয় ব্যক্তি হিসেবে সমাদৃত আছেন।

উল্লেখযোগ্য ছাত্র বৃন্দঃ এ মহামনিষীর সংস্পর্শে এসে যারা জীবনে প্রখ্যাত জ্ঞানী হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন তাদের তালিকা দীর্ঘ। তন্মধ্যে কয়েকজন হল- (১) ডঃ এ,কে,এম,মাহবুবুর রহমান। অধ্যক্ষ, ফরিদগঞ্জ মজিদিয়া কামিল মাদ্রাসা। (২)ডঃ আবদুল্লাহ আল মারূফ। অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। (৩) মোঃ মেহেদী হাসান।প্রভাষকঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। (৪) মোঃ কামাল উদ্দিন,সিনিয়র অফিসার, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (৫) মাওঃ মোঃ আমিন উদ্দিন, অধ্যক্ষ, মানুরী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসা । মানুরী, ফরিদগঞ্জ, চাঁদপুর। আরো অনেক সফল ছাত্রের নাম আছে,যা এখানে উল্লেখ না করার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। কারণ, স্বল্প পরিসরে লেখার ইচ্ছায় কলম ধরেছি।

যবনিকাঃ আলহাজ্ব মাওলানা শামছুল হুদা সাহেব এখন বয়সের ভারে ন্যুব্জ হয়ে আছেন। দুর্বলতা ঘিরে ফেলেছে। মহান আল্লাহ এ বীর কে হায়াতে তাইয়েবা ও খাতেমা বিল খায়ের নসীব দান করেন।কায়মনোবাক্যে দয়ালু ও মেহেরবান আল্লাহ তায়ালার আলীশান দরবারে এ প্রার্থনা করি। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে মুসলিম উম্মার নিকট দোয়ার আহবান জানাই।

প্রভাষকঃ বাংলা, বিঘা আহমদিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসা, রামগঞ্জ, লক্ষীপুর ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন