শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

এমবিএসকে ইট মারতে গিয়ে পাটকেল খেলেন বাইডেন

খাশোগি হত্যার বিষয় নিয়ে বিতর্ক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০২২, ১১:৫৯ পিএম

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের মুখোমুখি হলে আমেরিকার নিজস্ব বিতর্ক নিয়ে জো বাইডেনকে পাল্টা গুলি চালিয়েছিলেন সউদী আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ।

দুই নেতার মধ্যে শুক্রবারের বিতর্কিত বৈঠকের সাথে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র সিএনএনকে জানিয়েছে, এমবিএস নামে পরিচিত ক্রাউন প্রিন্স ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহর মৃত্যু এবং মার্কিন সেনাদের ইরাকের আবু ঘ্রাইব কারাগারে বন্দিদের সাথে দুর্ব্যবহার করার ঘটনাগুলো তুলে ধরে পাল্টা তীর ছুঁড়েছেন। সূত্রটি বলেছে যে, এমবিএস মি. বাইডেনকে বলেছেন, দুটি ঘটনা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে খারাপভাবে প্রতিফলিত হয়েছে। মে মাসে পশ্চিম তীরে ইসরাইলি সামরিক অভিযান কভার করার সময় আবু আকলেহকে গুলি করে হত্যা করা হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার মৃত্যুর প্রতিক্রিয়ার জন্য সমালোচনার মুখে পড়েছে। সাংবাদিকের পরিবার এবং ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ আমেরিকান কর্মকর্তাদের ইসরাইলকে জবাবদিহি করার আহ্বান জানিয়েছে।

গত শুক্রবার মি. বাইডেন ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সাথে পশ্চিম তীর পরিদর্শন করেন যেখানে তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার হত্যার ‘পূর্ণ ও স্বচ্ছ হিসাব’ পেতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

এমবিএস ইরাকে আমেরিকার আগ্রাসনের শুরুর সময় বন্দিদের প্রতি মার্কিন সেনাবাহিনীর অপব্যবহারের কথাও উল্লেখ করেছেন। ২০০৪ সালে আবু ঘ্রাইব কারাগার থেকে গ্রাফিক ফটোগুলো প্রকাশিত হয়েছিল যেখানে মার্কিন সামরিক কর্মীরা ইরাকি বন্দিদের নির্যাতন ও যৌন নিপীড়ন করছে যাকে তারা বন্দি করেছিল এবং সেখানে আটকে রেখেছিল। ফটোগুলোর প্রেক্ষিতে অবশেষে ১১ মার্কিন সৈন্যকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

সউদী যুবরাজ দুটি বিতর্ক উত্থাপন করেন যখন মি. বাইডেন তাকে বলেন যে, তিনি বিশ্বাস করেন, তিনি খাশোগি হত্যার আদেশের জন্য দায়ী।
২০১৮ সালের ২ অক্টোবর ওয়াশিংটন পোস্টের সাংবাদিক এবং সউদী সরকারের কড়া সমালোচক জামাল খাশোগিকে ইস্তাম্বুলের সউদী কনস্যুলেটের ভিতরে এমবিএস-এর সাথে সম্পর্কযুক্ত গোয়েন্দা অপারেটিভদের একটি দলকে দিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। এরপর খাশোগির লাশ একটি করাত দিয়ে নৃশংসভাবে টুকরো টুকরো করা হয়।

সউদী আরব সরকার প্রাথমিকভাবে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছিল এবং দাবি করেছিল যে, তাকে সউদী আরবে হস্তান্তর করার চেষ্টা করার সময় অপারেটররা তাকে দুর্ঘটনাক্রমে হত্যা করেছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো পরে সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে, এমবিএস এই হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন।

শুক্রবার মি. বাইডেনের মুখোমুখি হওয়ার সময় এমবিএস তার নির্দোষতাকে দ্বিগুণ করে নির্মম হত্যার জন্য সমস্ত দায় অস্বীকার করেন। বৈঠকের পরে মি. বাইডেন সাংবাদিকদের বলেন যে, তিনি খাশোগির ‘আক্রোশজনক’ হত্যার বিষয়ে এমবিএসকে চাপ দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, ‘আমি আমার দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার করে দিয়েছি... একজন আমেরিকান প্রেসিডেন্টের জন্য মানবাধিকার ইস্যুতে নীরব থাকা আমরা কে এবং আমি কে তার সাথে অসঙ্গতিপূর্ণ’।
বাইডেন প্রশাসন সউদ আরব সফর এবং এমবিএসের সাথে দেখা করার সিদ্ধান্তকে রক্ষায় বাধ্য হয়েছে, বিশেষত মি. বাইডেন তার ২০২০ হোয়াইট হাউস পরিচালনার সময় যে বিবৃতি দিয়েছিলেন যে, তিনি সউদী আরবকে ‘প্যারিয়া’ করবেন।

শুক্রবারের বৈঠকের শুরুতে যখন তিনি এমবিএসকে বন্ধুত্বপূর্ণ মুষ্টি-বাম্প দিয়ে অভ্যর্থনা জানালেন তখন প্রেসিডেন্ট আরো প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেন।
মি. বাইডেন এই অঞ্চলে তার চার দিনের সফরে মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কয়েকজন নেতার সাথে দেখা করেন যার অংশটি ছিল তেলসমৃদ্ধ দেশগুলোর সাথে চুক্তিতে পৌঁছানো এবং শেষ পর্যন্ত বর্তমান আকাশ-ছোঁয়া গ্যাসের দামের কারণে আমেরিকানদের ব্যথা কমানো।

সফরের সময় এটিও উঠে এসেছে যে, একজন আমেরিকান আইনজীবী, যিনি আগে খাশোগিকে রক্ষা করেন, বৃহস্পতিবার একটি পারিবারিক বিয়ের জন্য ইস্তাম্বুলে যাওয়ার সময় সংযুক্ত আরব আমিরাতে আটক করা হয়েছিল।

মানবাধিকার সংগঠন ডেমোক্রেসি ফর দ্য আরব ওয়ার্ল্ড নাউ (ডিএডব্লিউএন) বলেছে যে, মি. গফুরকে অর্থ-পাচারের জন্য অনুপস্থিতিতে দোষী সাব্যস্ত করার অভিযোগে আবুধাবিতে একটি বন্দি কেন্দ্রে রাখা হয়েছে।
ডিএডব্লিউএন জানিয়েছে, ভার্জিনিয়া থেকে আসা মার্কিন নাগরিক এবং নাগরিক অধিকারের অ্যাটর্নি যিনি আগে খাশোগির পক্ষে অ্যাটর্নি হিসাবে কাজ করেছিলেন, তার দোষী সাব্যস্ত হওয়ার বিষয়ে পূর্বে জানা ছিল না। সূত্র : দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
A M Tahmid ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৬ এএম says : 0
আমেরিকার রাষ্ট্রপ্রতির এই সফরের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হলো ইসরায়েলের দালালি করা,এবং শান্তিময় মধ্য প্রাচ্যে আবারো অশান্তি সৃষ্টি করা।আরব দেশগুলোর উচিত হবে নিজেদের রাষ্ট্রীয়সার্থ অগ্রাধিকার দিয়ে আমেরিকার সাথে কোন বিষয়ে একমত হওয়া।
Total Reply(0)
Sydur Rahman ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৭ এএম says : 0
যুক্তরাষ্ট্র সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লংঘন করে। কত সাদ্দাম, গাদ্দাফীসহ অনেক বিশ্ব নেতাদের হত্যাকারী
Total Reply(0)
Mahbub Hasan ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৭ এএম says : 0
বাইডেনকে শুধু তেল কেন, যুবরাজ এখন তাকে তেল ধোয়া পানিও দিবেনা
Total Reply(0)
Ariyan MoHi Uddin ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৭ এএম says : 0
গনতন্ত্রের ফেরিওয়ালা আমেরিকা আজ রাজতন্ত্রের কাছে ধরনা দিচ্ছে।পুতিন অনেক বড় মাপের খেলোয়াড়।
Total Reply(0)
Slima Munia ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৭ এএম says : 0
বাইডেন সাহেব তো প্যাঁচ লাগানোতে ওস্তাদ! না জানি কি অভিসন্ধি!
Total Reply(0)
Nazir Muhammad ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৮ এএম says : 0
যতদিন তুমি নিজেকে মূল্যায়ন না করবে, ততদিন অন্যেরা তোমায় অবমূল্যায়ন করে যাবে।
Total Reply(0)
Md Ali Azgor ১৮ জুলাই, ২০২২, ৬:০৮ এএম says : 0
তেলের জন্য অনেক কিছুই বলতে বাধ্য মি. বাইডেন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন