বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইতালীতে সরকারের পতন ঘটিয়েছেন পুতিন?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৩৯ পিএম

ইতালীর উগ্র-ডানপন্থী দল লিগ পার্টির নেতা মাত্তেও সালভিনি


ইতালির দুই সাবেক প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছেন যে, দেশটির সরকার পতনের জন্য শাসক জোটের উগ্র-ডানপন্থী দল লিগ পার্টির নেতার উপর চাপ সৃষ্টি করেছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ইতালির ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রধান এনরিকো লেত্তা এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মাত্তিও রেনজি গোয়েন্দা কমিটি দ্বারা তদন্ত শুরু করার জন্য সংসদে আহ্বান জানিয়েছেন। লেত্তাও বলেন, ‘সালভিনিকে অবশ্যই লিগ এবং ক্রেমলিনের মধ্যে সম্পর্ক ব্যাখ্যা করতে হবে। আমরা জানতে চাই পুতিনই দ্রাঘি সরকারের পতন ঘটিয়েছিলেন কিনা।’

বৃহস্পতিবার ইতালির দৈনিক পত্রিকা লা স্তাম্পা প্রথম দাবি করে যে, রোমে রাশিয়ান দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা সালভিনিকে চাপ দিয়েছিলেন যেনো তিনি মে মাসে ক্ষমতাসীন জোট থেকে তার সমর্থন প্রত্যাহার করে নেন। পত্রিকাটির খবর অনুসারে, ইতালির দূতাবাসের রাজনৈতিক কর্মকর্তা ওলেগ কস্তিউকভ এবং সালভিনির উপদেষ্টা আন্তোনিও ক্যাপুয়ানোর মধ্যে এসংক্রান্ত যোগাযোগ হয়েছিল বলে জানা গেছে, যিনি লিগ নেতাকে মে মাসে একটি শান্তি মিশনে মস্কোতে পাঠানোর প্রচেষ্টায় ছিলেন। এরপরপরই ইতালির অস্থির রাজনৈতিক অঙ্গনে ঝড় ওঠে।

লা স্তাম্পা দাবি করেছে যে, ইতালীয় গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে তার প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী লুইগি ডি মাইও এই দাবিকে গভীর উদ্বেগজনক বলে অভিহিত করেছেন। কারণ, সালভিনি এবং বারলুসকোনি উভয়ই অতীতে পুতিনের সাথে গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কে ছিলেন। এমনকি, সালভিনি একবার রাশিয়ান নেতার ছবি সম্বলিত টি-শার্ট পরে ইতালির রেড স্কোয়ারে পোজ দিয়েছিলেন। মাইও বলেন, ‘আমি সালভিনিকে বলছি যে তাকে রাশিয়ার সাথে তার সম্পর্ক ব্যাখ্যা করতে হবে।’

ধারণা করা হচ্ছে যে, লিগ এবং ফোরজা ইতালিয়া ইতালির সবচেয়ে জনপ্রিয় দল জর্জিয়া মেলোনির নেতৃত্ব্ধীন কট্টর ডানপন্থী দল ব্রাদার্স অফ ইতালির সাথে জোট করবে। তাদের একসাথে ২৫ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। লীগের কথিত রাশিয়ান সংযোগের অভিযোগের আপাতত জোটকে দুর্বল করার সম্ভাবনা নেই।

ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংকের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মারিও দ্রাঘির নেতৃত্বের সরকারী জোটটি গত সপ্তাহে নাটকীয়ভাবে ভেঙে পড়ে এবং সিলভিও বারলুসকোনির ফোরজা ইতালিয়া সহ ও আরও দুটি দল তাদের সমর্থন প্রত্যাহার করে নেয়। এরপর, ইতালির ছোট মধ্যপন্থী পার্টির প্রধান আজিওনে কার্লো ক্যালেন্ডাও মন্তব্য করেন, ‘পুতিনপন্থী তিনটি দল সরকার পতন ঘটিয়েছে।’ তবে, সালভিনি এই দাবিগুলিকে জাল খবর বলে অভিহিত করেছেন।

এদিকে, ইতালিতে সাধারণ নির্বাচন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে রাশিয়া অভিবাসী ও শরণার্থীদের ইতালির বিরুদ্ধে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দেশটিতে শরণার্থী আগমনের সংখ্যা আগের বছরের তুলনায় বেড়েছে। জুলাই মাসে এপর্যন্ত ১১ হাজারেরও বেশি অভিবাসী ইতালিতে পৌঁছেছে, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৮ হাজার ৬শ’ কম এবং ২০২০ সালের একই সময়ে ছিল ৭ হাজার। সংবাদপত্র লা রিপাব্লিকা অনুসারে, অভিবাসী নৌকাগুলি মূলত লিবিয়ার উপকূলের পূর্বাঞ্চল সাইরেনাইকার তোব্রুক এবং দেরনা থেকে আসছে।

অভিবাসীদের অতি আগমন ইতালীয় জনমতকে শঙ্কিত করে তুলতে পারে এবং ডানপন্থী জোটকে নির্বাচনে জয়ী হতে সাহায্য করতে পারে, বিশেষ করে সালভিনিকে। কারণ তিনি অবৈধ আগমন রোধ করার প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে স্পষ্টবাদী। দেশটির একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা লা রিপাব্লিকাকে বলেন, ‘দেশকে অস্থিতিশীল করতে এবং সেপ্টেম্বরে ভোটে হস্তক্ষেপ করতে চাইলে অভিবাসন সম্ভবত সবচেয়ে শক্তিশালী অস্ত্র।’ সূত্র: দ্য টেলিগ্রাফ।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন