বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

হাইকোর্টের প্রশ্ন : সুইস ব্যাংকে জমা অর্থের তথ্য কেন চাওয়া হয়নি ?

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ আগস্ট, ২০২২, ১:০৯ পিএম | আপডেট : ৩:২৪ পিএম, ১১ আগস্ট, ২০২২

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশী নাগরিকদের জমাকৃত অর্থ সম্পর্কে কেন সুনির্দিষ্ট ও পূর্ণাঙ্গ তথ্য চাওয়া হয়নি-তার কারণ জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। আজ (বৃহস্পতিবার) বিচারপতি মো:নজরুল ইসলাম তালুকদার এবং বিচারপতি খিজির হায়াতের ডিভিশন বেঞ্চ এই কারণ জানতে চান। আগামি রোববারের মধ্যে এ বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এবং সরকারকে জানাতে বলা হয়েছে।
বেঞ্চটিতে দায়িত্বপালনকারী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিনউদ্দিন মানিক বলেন,
সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে অর্থ জমা নিয়ে নির্দিষ্ট কওে দেশটির সরকারের কাছে বাংলাদেশ সরকার কোনো তথ্য কেন চায়নি,তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী রোববারের মধ্যে দুদক ও সরকারপক্ষকে তা জানাতে বলা হয়েছে।

আদালত বলেছেন, বিচারপতিরা সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে পড়েছেন। বিষয়টি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পেতে প্রকাশিত সংবাদ কপি জমা দিতে বলা হয়েছে। এই সময় দুদক ও সরকারপক্ষীয় আইনজীবীর বক্তব্য শোনেন আদালত। আগামী রোববার এ বিষয়ে আদেশ দেয়া হবে। আদালতে দুদকের পক্ষে অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।
এর আগে গতকাল বুধবার সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশীদের টাকার বিষয়ে বাংলাদেশ নির্দিষ্ট কোনো তথ্য চায়নি বলে জানান ঢাকায় নিযুক্ত সুইস রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড।

সুইস রাষ্ট্রদূত বলেন, সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক বা এসএনবির ২০২২ সালের জুন মাসে প্রকাশিত বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী গত বছর বাংলাদেশীরা প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থ সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে জমা করেছেন। ২০২১ সালের ডিসেম্বরে সুইজারল্যান্ডে বাংলাদেশীদের আমানত দাঁড়িয়েছে ৮৭ কোটি ১১ লাখ সুইস ফ্রাঁ। প্রতি ফ্রাঁ বাংলাদেশী ৯৫.৭০ টাকা হিসাবে মোট টাকার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৩৩৩ কোটি টাকা। যা এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় অংক।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশীরা কত টাকা জমা রেখেছে,ওই তথ্য প্রতিবছর সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক দিয়ে থাকে। ওই অর্থ অবৈধ পথে আয় করা হয়েছে কিনা, এটি আমাদের পক্ষে বলা সম্ভব নয়।

নাথালি চুয়ার্ড বলেন, তথ্য পেতে হলে কী করতে হবে, সে সম্পর্কে আমরা সরকারকে জানিয়েছি। কিন্তু নির্দিষ্ট কোনো তথ্যের জন্য আমাদের কাছে অনুরোধ করা হয়নি। আমরা আন্তর্জাতিক মানদ- বজায় রাখার ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। দুই পক্ষের সম্মতির ভিত্তিতে এ ধরণের তথ্য আদান-প্রদান করা সম্ভব এবং সেটি তৈরি করতে হবে। এটি নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে সুইজারল্যান্ড কাজ করছে বলেও জানান এই রাষ্ট্রদূত।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
MD.ANISUR RAHMAN ১১ আগস্ট, ২০২২, ২:০০ পিএম says : 0
THANKS TO HIGH COURD
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন