রোববার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৪ শাবান সানি ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বাগদাদে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে, নিহত বেড়ে ৩০, আহত ৭০০

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ আগস্ট, ২০২২, ২:৪৫ পিএম

আবারও অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে ইরাক। দেশটির প্রভাবশালী শিয়া নেতা মুক্তাদা আল-সদরের রাজনীতি থেকে অবসর ঘোষণার পরপরই বিক্ষোভে ফেটে পড়েন তাঁর সমর্থকেরা। ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে বাগদাদের সুরক্ষিত গ্রিন জোনের সরকারি ভবন এলাকায় ভাঙচুর চালান তাঁরা। বিক্ষোভ দমাতে গেলে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ৩০ জন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৭০০ জনেরও বেশি। তাঁদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর শতাধিক সদস্য রয়েছেন।
আল-জাজিরার প্রতিবেদনে জানা যায়, পরিস্থিতি বিবেচনায় এরই মধ্যে বাগদাদে কারফিউ জারি করা হয়েছে। পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত মন্ত্রিসভার অধিবেশন স্থগিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী মুস্তাফা আল-কাদিমি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) সরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ।
মুক্তাদা আল-সদরের সমর্থকেরা তাঁর ডাকা দেশটির সংসদ ভেঙে দেওয়ার আহ্বানে সাড়া দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে যাচ্ছেন। চলমান আন্দোলনের ফলে দেশটি প্রায় ১০ মাস ধরে একধরনের অচলাবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে সদরের রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দেশটিতে নতুন করে রাজনৈতিক সংকট উসকে দিয়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।
গ্রিন জোন ঘিরে রাখা হাজারো বিক্ষোভকারীকে হটাতে রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। দেশটির গণমাধ্যম জানিয়েছে, নিজের সমর্থকদের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা বাহিনীর বলপ্রয়োগ বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত অনশনের ঘোষণা দিয়েছেন মুক্তাদা আল-সদর।
বাগদাদ থেকে আলজাজিরার মাহমুদ আবদেল ওয়াহেদ বলেন, ইরাকি রাজধানীর গ্রিন জোন এখন যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত হওয়ার কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে না। নানা জায়গায় বন্দুকের আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে।

সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে ইরান
আলজাজিরার প্রতিনিধি দোরসা জাব্বারি তেহরান থেকে জানান, ইরানি কর্তৃপক্ষ ইরাকগামী সকল ফ্লাইট বাতিল করে দিয়েছে, তার নাগরিকদেরকে ইরাক সফর থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছে।
তিনি বলেন, ইরান ও ইরাকের মধ্যকার সকল সীমান্ত ক্রসিং বন্ধ করে দিয়েছে তেহরান কর্তৃপক্ষ।

'আগাম নির্বাচন হবে বিপর্যয়কর'
হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়েল মিডল ইস্ট ইনিশিয়েটিভের গবেষণা ফেলো মারসিনি আলশামারি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, আল-সদরের দাবি মেনে নিয়ে আগামী নির্বাচন দেয়া হলে তা ইরাকি গণতন্ত্রের জন্য বিপর্যয়কর হবে।
তিনি বলেন, আগাম নির্বাচন দেয়া হলে রাজনৈতিক দলগুলোর অবস্থা বদলে যাবে। সূত্র : আলজাজিরা ও ডেইলি সাবাহ

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন