শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৭ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

বিনোদন প্রতিদিন

ফাল্গুনী পাঠকের গান গেয়ে চরম বিপাকে নেহা কাক্কার

| প্রকাশের সময় : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

নব্বই দশকে বলিউডে রাজত্বকারী একাধিক অভিনেতা থেকে গায়ক তাঁদের অসাধারণ প্রতিভা বলে আজও অনুরাগীদের হৃদয় জুড়ে রয়েছেন। যার মধ্যে একজন বিখ্যাত গায়িকা ফাল্গুনী পাঠক। যিনি বলিউডের উল্লেখযোগ্য গায়িকাদের মধ্যে একজন। ৯০ এর দশকে তাঁর কিছু আইকনিক গান আজও দর্শকদের হৃদয়ে সতেজ। তবে তাঁর অনেক আইকনিক গানগুলি কয়েক বছর ধরেই পুনর্নির্মিত হচ্ছে। এবার তাঁর একটি উল্লেখযোগ্য গান পুনরায় তৈরি করলেন বলিউডের রিমেক কুইন নেহা কাক্কার। নেহা কাক্কারের কণ্ঠে ফাল্গুনী পাঠকের এই গান শুনে, নেটিজেনরা তীব্র কটাক্ষ করেছেন নেহাকে। নেটিজেনরা দাবি করেছেন, তাঁদের শৈশব নষ্ট করে দিয়েছেন নেহা। ফাল্গুনী পাঠকের একাধিক আইকনিক গান শুনে নব্বই দশকের মানুষদের শৈশব কেটেছে। আর সেই গানকেই কাটাছেঁড়া করাতে নেহাকে চরম নিন্দা করেছেন নেটিজেনরা।
প্রখ্যাত, গায়িকা নেহা কাক্কার সম্প্রতি তাঁর নতুন মিউজিক ভিডিও ‘ও সাজনা’ প্রকাশ করেছেন। যার মধ্যে ফাল্গুনী পাঠকের কণ্ঠের আইকনিক গান ‘ম্যায়নে পায়েল হ্যায় ছানকাই’ও রয়েছে। যা পুনরায় নির্মাণ করেছেন নেহা কাক্কার। আর ধনশ্রী ভার্মা এবং প্রিয়াঙ্ক শর্মা সমন্বিত নেহার এই মিউজিক ভিডিওটি কিছুক্ষণ আগেই প্রকাশিত হয়েছে। যা দেখে নেটিজেনদের তীব্র নিন্দা করেছেন নেহাকে। বেশিরভাগ মানুষই এই আইকনিক গানটি নষ্ট করার জন্য তাঁদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তবে নেহার ভক্তরা গায়িকা আশ্চর্যজনক কণ্ঠের জন্য প্রশংসা করেছেন। এদিকে অসংখ্য ফাল্গুনী পাঠকের অনুরাগীরা টুইটারে গিয়ে নেহা কাক্কার এবং তানিস্ক বাগচীর প্রতি প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেছেন যে, ভবিষ্যতে তাঁদের যাতে আর কোনও পুরানো গান পুনর্নির্মাণের অনুমতি দেওয়া না হয়।
একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘নেহা কাক্কারকে অবশ্যই পুরানো আইকনিক গান গাইতে নিষিদ্ধ করা উচিত। যিনি একের পর এক পুরনো গান পুনরায় নির্মাণ করে তা ধ্বংস করছে।’ অন্য ব্যবহারকারী নেহা কাক্কার এবং তনিষ্ক বাগচীকে বয়কট ঘোষণা করেছেন। অন্যদিকে, কিছু ব্যবহারকারী যারা নেহার গানটির প্রশংসা করেছেন এবং বলেছেন নেহা কাক্কার সত্যিই একজন প্রতিভাবান গায়িকা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন